চাঁদপুর, মঙ্গলবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৪ আশ্বিন ১৪২৭, ১১ সফর ১৪৪২
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • --
নিজের হাতে গড়া আশ্রমে চির নিদ্রায় শায়িত কবিরাজ সুখরঞ্জন ব্রহ্মচারী
আগামী ৭ অক্টোবর শ্রাদ্ধানুষ্ঠান
বিমল চৌধুরী
২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


শত শত ভক্ত অনুরাগী, গুরুভ্রাতা ও শুভানুধ্যয়ীদের কাঁদিয়ে নিজের হাতে গড়া আশ্রমে চির নিদ্রায় শায়িত হলেন অযাচক আশ্রম চাঁদপুরের অধ্যক্ষ কবিরাজ সুখরঞ্জন ব্রহ্মচারী। গতকাল ২৮ সেপ্টেম্বর সোমবার সকাল ৯টায় চাঁদপুর অযাচক আশ্রম প্রাঙ্গণে পরমারাধ্য গুরুদেব শ্রীশ্রীমৎ স্বরূপানন্দ পরমহংসদেব প্রবর্তিত সমবেত অখ-বিধিমতে তার অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া সম্পন্ন হয়। এ সময় প্রয়াতের গুরুভ্রাতা, ভগি্নসহ শুভানুধ্যায়ীদের মাঝে শোকের ছায়া নেমে আসে। এ সময় অনেকেই কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। তাদের ভারাক্রান্ত হৃদয়ের আকুতিতে চারপাশের পরিবেশ ভারী হয়ে উঠে। তাঁরই হাতে গড়া কষ্টার্জিত আশ্রমের একপ্রান্তে তাঁকে সমাহিত করতে হবে এমনটা ভাবেননি গুরুভ্রাতাদের অনেকেই।



অনেক কষ্ট আর ব্যথা বুকে চাপা দিয়েই গুরুভ্রাতাগণ দুপুর ১২টা বাজার ১০ মিনিট আগে সুখরঞ্জন ব্রহ্মচারীকে বসুমতি মাতার অন্ধকার ঘরে (মাটির ঘরে) তাকে সমাহিত করেন। সমাধিস্থলের মাটি খুঁড়লেন তার দীর্ঘদিনের ছায়াসঙ্গী প্রতিবেশী আবুল হোসেন মজুমদার। স্বামী স্বরূপানন্দের ভাষায় প্রয়াত সুখরঞ্জন ব্রহ্মচারী প্রমাণ করলেন, আমি জানিতে চাহি না বন্ধু, তুমি হিন্দু না মুসলিম, খ্রিস্টান না বৌদ্ধ। আমি জানিতে চাহি তুমি কতটুকু মানুষ। তাই তিনি জীবদ্দশায় মানুষকে ভালোবেসেছেন বিচার করেননি কোনো জাতপাতের। তাঁর সেই ভালোবাসার প্রমাণ দিলেন জাতি ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে সর্ব শ্রেণীর মানুষ। তাঁর সমাধিস্থলে উপস্থিত হন চাঁদপুর পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব নাছির উদ্দিন আহমেদ, ফরিদগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডঃ জাহিদুল ইসলাম রোমান, আসন্ন পৌর নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী অ্যাডঃ জিল্লুর রহমান জুয়েল ও চাঁদপুর কণ্ঠের প্রধান সম্পাদক রোটারিয়ান কাজী শাহাদাত।



তাঁরা প্রয়াতের প্রতি অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে বলেন, কবিরাজ সুখরঞ্জন ব্রহ্মচারী একেশ্বরবাদে ছিলেন বিশ্বাসী, ধর্মসাধনায় কখনো সামপ্রদায়িকতাকে স্থান দেননি, সকল ধর্মের মানুষই ছিল তাঁর কাছে সমান প্রিয়, মানুষের কল্যাণে কাজ করা ছিল তাঁর বড় গুণ। শ্রীশ্রীমৎ স্বামী স্বরূপানন্দের পুণ্য জন্মস্থান উদ্ধারপূর্বক আশ্রম নির্মাণে তার অনবদ্য কষ্টের কথা কেউ ভুলে গেলে চলবে না। জলামগ্ন স্থানকে আজকে এমন পুণ্যময় স্থানে রূপান্তর করা সম্ভব হয়েছে তার অক্লান্ত পরিশ্রমের কারণেই। কর্মময় জীবনে তিনি শুধু একজন সাধকই ছিলেন না, সমাজ উন্নয়নেও তার ছিল অনবদ্য অবদান। তিনি চরিত্রগঠন আন্দোলনকে বেগবান করার লক্ষ্যে চরিত্র গঠন আন্দোলন পরিষদ গঠন করেছেন। তাঁর বিশ্বাস ছিলো, সৎ চরিত্রবান হলেই সৎ মানুষ গড়া সম্ভব। আর সৎ মানুষ হলেই সুন্দর সমাজ গড়ে উঠবে। তিনি শিক্ষামন্ত্রীর মাধ্যমে একটি দাবি জানিয়েছিলেন, ১ জানুয়ারিকে চরিত্রগঠন আন্দোলন দিবস ঘোষণা করা হোক। আশা করি মাননীয় মন্ত্রী মহোদয় তাঁর এ দাবি বাস্তবায়নে সক্ষম হবেন। তাঁর একটি ইচ্ছে ছিলো এখানে আন্তর্জাতিক মানের ধ্যানমন্দির নির্মাণের, সেই লক্ষ্যে তিনি অনেক দূর অগ্রসরও হয়েছেন। কিন্তু নিয়তির নির্মম পরিহাস, তা তিনি বাস্তবায়ন করে যেতে পারেননি। আশা করি বিশ্ব অখ- সংঘ প্রধান শ্রী শ্রী দাদামণি তপন ব্রহ্মচারীসহ তার গুরুভ্রাতাগণ সুখরঞ্জন ব্রহ্মচারীর এই ইচ্ছাটুকু পূরণে সর্বাগ্রে চেষ্টা করবেন। সুখরঞ্জন ব্রহ্মচারী তিল তিল করে বহু কষ্টের মাধ্যমে এ আশ্রম গড়ে তুলেছেন। যখন আশ্রমটি সকল দিক থেকে পরিপূর্ণভাবে গড়ে উঠলো, ঠিক সেই সুখের সময় সুখরঞ্জন ব্রহ্মচারী না ফেরার দেশে চলে গেলেন। তাঁর এ বিদায়লগ্নে আপনাদের সাথে আমরাও গভীরভাবে শোকাহত। তাঁর শেষ ইচ্ছা পূরণে গুরুভ্রাতাগণ এগিয়ে আসবেন, যদি প্রয়োজন মনে করেন আমাদেরকে ডাকলে আমরাও সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিব। অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে বক্তাগণ আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন।



সমাহিত করাকালীন চাঁদপুর হরিবোলা সমিতির সভাপতি অজয় কুমার ভৌমিক, জেলা হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি অ্যাডঃ বিনয় ভূষণ মজুমদার, সহ-সভাপতি তপন সরকার, গোপাল চন্দ্র সাহা, জেলা পূজা উদ্যাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক তমাল কুমার ঘোষ, সমাজকল্যাণ সম্পাদক লিটন সাহা, সদস্য সুমন সরকার জয়, দোকান মালিক সমিতির সভাপতি আলহাজ্ব মোস্তাক হায়দার চৌধুরী, সদর উপজেলা পূজা উদ্যাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক লক্ষ্মণ চন্দ্র সূত্রধর, সদর উপজেলা হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা বাসুদেব মজুমদার, চরিত্র গঠন আন্দোলন পরিষদের আহ্বায়ক ডাঃ পীযূষ কান্তি বড়ুয়া, সদস্য সচিব রাজন চন্দ্র দে, বঙ্গবন্ধু আবৃত্তি পরিষদের সভাপতি মুক্তা পীযূষ, পুরাণবাজার জন্মাষ্টমী উদ্যাপন পরিষদের সভাপতি অনন্ত চক্রবর্তী, সাধারণ সম্পাদক ডাঃ সহদেব দেবনাথ, যুগ্ম সম্পাদক মনোতোষ সাহা, টুটন বণিক, খোকন সাহা, বাংলাদেশ সম্মিলিত অখ- সংগঠনের সদস্য সচিব সুজিত কুমার দে, সদস্য তাপস কুমার সরকার, চাঁদপুর অযাচক আশ্রম বোর্ড অব ট্রাস্টের সাধারণ সম্পাদক মৃনাল কান্তি দাস, সদস্য অঞ্জন দাস, প্রণব সাহা, মৃদুল কান্তি দাস, চাঁদপুর সম্মিলিত অখ- সংগঠনের সভাপতি অধ্যাপক রাধেশ্যাম কুরী, সাধারণ সম্পাদক রোটাঃ গৌতম সাহাসহ জনপ্রতিনিধি, বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠন ও রাজনিতিক নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।



অধ্যক্ষ সুখরঞ্জন ব্রহ্মচারীর প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি এমপি, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, পৌর নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী অ্যাডঃ জিল্লুর রহমান জুয়েল, বিশ্ব অখ- সংঘ প্রধান শ্রীশ্রী দাদামণি তপন ব্রহ্মচারী, জেলা হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ, জেলা পূজা উদ্যাপন পরিষদ, দাসপাড়া সার্বজনীন কালী মন্দির, পুরাণবাজার জন্মাষ্টমী উদ্যাপন পরিষদ, চাঁদপুর শ্রীশ্রী কালীবাড়ি মন্দির, চাঁদপুর হরিবোলা সমিতি, আন্তর্জাতিক কৃষ্ণ ভাবনামৃত সংঘ (ইসকন), চাঁদপুর সার্বজনীন শ্রীশ্রী জগন্নাথ মন্দির, জীবনদীপ, হাজীগঞ্জ অখ-ম-লী, পুরাণবাজার দাসপাড়া রাধাকৃষ্ণ গোপাল মন্দিরসহ বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ফুলেল শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন।



সমবেত উপাসনা পরিচালনা করেন আশ্রমের গুরুভ্রাতা দুলাল চন্দ্র দাস, অখ- সংহিতা পাঠ করেন গুরুভ্রাতা অরুন কুমার ঘোষ। অখ- সঙ্গীত পরিবেশন করেন গুরুভ্রাতা রোটাঃ মানিক রায়।



আগামী একাদশ দিবসে (৭ অক্টোবর) প্রয়াতের আত্মার শান্তি কামনায় আশ্রম প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত হবে শ্রাদ্ধানুষ্ঠান।



উল্লেখ্য, গত ২৭ সেপ্টম্বর বিকেল সাড়ে ৫টায় ঢাকা বারডেম হাসপাতালে লাইফ সাপোর্টে চিকিৎসাকালীন সুখরঞ্জন ব্রহ্মচারী সকলকে কাঁদিয়ে পৃথিবীর মায়া মমতা ত্যাগ করেন।



 


হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৭৭-সূরা মুর্সালাত


৫০ আয়াত, ২ রুকু, মক্কী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


৬। ওযর-আপত্তি রহিতকরণ ও সতর্ক করার জন্য


৭। নিশ্চয়ই তোমাদিগকে যে প্রতিশ্রুতি দেওয়া হইয়াছে তাহা অবশ্যম্ভাবী।


৮। যখন নক্ষত্ররাজির আলো নির্বাপিত হইবে,


 


যে ব্যাপারকে নিয়ন্ত্রণ করবার ক্ষমতা আমার নেই, তা নিয়ে আমি কখনো ভাবি না।


-বুথ টাসিংটন।


 


 


 


আল্লাহর আদেশ সমূহের প্রতি প্রগাঢ় ভক্তি প্রদর্শন এবং যাবতীয় সৃষ্ট জীবের প্রতি সহানুভূতি-ইহাই ইসলাম।


 


ফটো গ্যালারি
করোনা পরিস্থিতি
বাংলাদেশ বিশ্ব
আক্রান্ত ৩,৮৭,২৯৫ ৩,৯৬,৩৮,১৮৮
সুস্থ ৩,০২,২৯৮ ২,৯৬,৭৮,৪৪৬
মৃত্যু ৫,৬৪৬ ১১,০৯,৮৩৮
দেশ ২১৩
সূত্র: আইইডিসিআর ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।
আজকের পাঠকসংখ্যা
৮৪২৪৩৩
পুরোন সংখ্যা