চাঁদপুর, বৃহস্পতিবার ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১২ ফাল্গুন ১৪২৭, ১২ রজব ১৪৪২
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
স্বর্ণখোলায় আবর্জনার স্তূপে আগুনে জনদুর্ভোগ
মোস্তফা কামাল সুজন
২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


চাঁদপুর শহরের বিভিন্ন ডাস্টবিনের ময়লা-আবর্জনা প্রতিদিন পৌরসভার গাড়িতে করে শহরের স্বর্ণখোলা ও মাঝি বাড়ি এলাকার মাঝখানে ফেলা হচ্ছে। এখানে অপরিকল্পিতভাবে ময়লা, আবর্জনা ফেলে রাখা হচ্ছে। সেই সাথে প্রায় সময় বিশেষ করে চলমান শীতকালে এই ময়লাস্তূপে আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়। এই আগুন ধরানোর ফলে ময়লার স্তূপে থাকা প্লাস্টিকসহ যাবতীয় বর্জ্যের ধোঁয়ায় আশপাশের এলাকার মানুষজনের বসবাস করাই দায় হয়ে পড়েছে। ধোঁয়ার কারণে বিশেষ করে শ্বাসকষ্টে ভোগা মানুষজন তীব্র যন্ত্রণা ভোগ করে। দেখা যায় যে, খোলা স্থানে পড়ে থাকা এই ময়লার স্তূপে রাতের কোনো এক সময় পৌরসভার লোকজন অথবা অন্য কেউ আগুন ধরিয়ে দেয়। যেই আগুন প্লাস্টিক ও অন্যান্য দাহ্য পদার্থের সংস্পর্শে এসে জ্বলতে থাকে সারারাত ব্যাপী। ধিকি ধিকি জ্বলতে থাকা এই আগুন প্রচুর পরিমাণে ধোঁয়ার সৃষ্টি করে। এই ধোঁয়া বাতাসের আনুকূল্য পেয়ে এক পর্যায়ে আশেপাশের এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে। ঘুমিয়ে থাকা মানুষজন তখন তীব্র শ্বাসকষ্ট নিয়ে ঘুম থেকে উঠে কিছু বুঝতে পারে না যে, তার ঘরে কোথাও আগুন লেগেছে, নাকি দূরে কোথাও আগুনের ধোঁয়ায় এই সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে। শীতকালে ঘন কুয়াশার মধ্যে তো অবস্থা আরো খারাপ হয়ে যায়। তখন প্লাস্টিকের পোড়া ধোঁয়ার গন্ধে আশপাশের মানুষজনের তীব্র শ্বাসকষ্ট শুরু হয়। সুস্থ মানুষও কাশতে থাকে, কাশতে কাশতে অনেকেই অসুস্থ হয়ে যায়। বুক ভরা শ্বাস নিতে তখন মানুষজন হাঁফফাঁস করতে থাকে।



পরিকল্পিতভাবে ময়লা আবর্জনা না ফেলে জনাকীর্ণ এলাকা দিয়ে এভাবে আবর্জনা ফেলা হচ্ছে, অথচ পরিবেশবাদীরাও নিশ্চুপ। অবিলম্বে ঐ স্থানে ময়লা-আবর্জনা ফেলা ও আগুন লাগিয়ে ধোঁয়ার সৃষ্টি করা বন্ধের দাবি জানান ভুক্তভোগীরা। এ ব্যাপারে পৌর মেয়রের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন তারা।



 


হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৯৬-সূরা 'আলাক


১৯ আয়াত, ১ রুকু, মক্কী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


 


assets/data_files/web

একজন জ্ঞানী প্রশাসক সময়োপযোগী শাসন করেন।


-সিডনি লেনিয়ার।


 


যার মধ্যে বিনয় ও দয়া নেই, সে সকল ভালো গুণাবলি হতে বঞ্চিত।


 


 


ফটো গ্যালারি
করোনা পরিস্থিতি
বাংলাদেশ বিশ্ব
আক্রান্ত ৬,৪৪,৪৩৯ ১৩,২১,৯৪,৪৪৭
সুস্থ ৫,৫৫,৪১৪ ১০,৬৪,২৬,৮২২
মৃত্যু ৯,৩১৮ ২৮,৬৯,৩৬৯
দেশ ২১৩
সূত্র: আইইডিসিআর ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।
আজকের পাঠকসংখ্যা
৬৮২০৬
পুরোন সংখ্যা