চাঁদপুর। শুক্রবার ১৪ জুলাই ২০১৭। ৩০ আষাঢ় ১৪২৪। ১৯ শাওয়াল ১৪৩৮

বিজ্ঞাপন দিন

বিজ্ঞাপন দিন

সর্বশেষ খবর :

  • শুক্রবার সকালে হাজীগঞ্জের সৈয়দপুর সর্দার বাড়ির পুকুর থেকে শাহিদা আক্তার মুক্তা নামের এক গৃহবধুর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ॥ স্বামী হাছান সর্দার পলাতক || হাজীগঞ্জের সৈয়দপুর সর্দার বাড়ির পুকুর থেকে শাহিদা আক্তার মুক্তা নামের এক গৃহবধুর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ॥ স্বামী হাছান সর্দার পলাতক
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

২৮-সূরা কাসাস 


৮৮ আয়াত, ৯ রুকু, ‘মক্কী’


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


৮৩। ইহা আখিরাতের সেই আবাস যাহা আমি নির্ধারিত করি তাহাদের জন্য যাহারা এই পৃথিবীতে উদ্ধ্যত হইতেও বিপর্যয় সৃষ্টি করিতে চাহে না। শুভ পরিণাম মুত্তাকীদের জন্য।    


দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


 


সৎ এবং চরিত্রবান নাগরিক দেশের গর্ব


                                    -ড্রাইডেন।

যে ব্যক্তির স্বভাবে নম্রতা নেই সে সর্বপ্রকার কল্যাণ হইতে বঞ্চিত


ফটো গ্যালারি
সাহাবাদের জীবন আমাদের জন্য আদর্শ
মুহাম্মদ আবদুর রহমান গাজী
১৪ জুলাই, ২০১৭ ১৯:১৯:২০
প্রিন্টঅ-অ+
সাহাবাদের জীবন আমাদের জন্য আদর্শ। নবী করিম (সাঃ)-এর পর তাদের জীবন থেকেই আমরা সবচেয়ে অনুপ্রাণিত ও শিক্ষা পাই। মহিলা সাহাবীদের জীবনও পুরুষ সাহাবীদের জীবন থেকে কম উজ্জ্বল নয়। তাঁদের আত্মত্যাগ অনেক পুরুষ সাহাবীদের হার মানায়। তাঁদের জীবনের উজ্জ্বল দিক নিয়েই আমার কিছু কথা উপস্থাপন করার ইচ্ছ করছি। আল্লাহ পাক সে কথাগুলো আমাকে বলার তৌফিক দান করুন। উপস্থিত সকলে বলুন আমিন।

আজ মহিলা সাহাবীদের জীবন থেকে দু'টি বিষয়ে আলোচনা করব। ইনশাআল্লাহ!একটি হলো প্রতিবেশীর হক আর অপরটি হলো ধৈর্য ও বুদ্ধিমতা। এ দুটি বিষয় আমাদের জন্য কম গুরুত্ব নয়। জীবনের প্রোয়োজনে এ বিষয়গুলো আমলে থাকা প্রোয়োজন।

প্রতিবেশির হক

প্রতিদিন শেষ রাতে ছেলেটির ঘুম ভেঙ্গে যায়। অবাক হয়ে লক্ষ্য করে মা তাহাজ্জুদের নামাজ পড়ছেন। ছেলেটিও অভ্যাসবশত বিছানা থেকে উঠে ওজু করে মায়ের পাশে নামাজে দাঁড়ায়। মায়ের সাথে নামাজ পড়ার সময় সে একটা ব্যাপার লক্ষ্য করে। মা নামাজ শেষে মোনাজাত করছেন, কেঁদে কেঁদে আল্লাহর কাছে দোয়া করছেন প্রতিবেশীদের মঙ্গলের জন্য,তাদের গোনাহ মাফের জন্য। কিন্তু নিজেদের জন্য কিছুই প্রার্থনা করছেন না! এভাবে বেশ কিছুদিন যাওয়ার পর ছেলেটি তার কৌতূহল দমিয়ে রাখতে পারলো না। সে মাকে জিজ্ঞেস করলো, “মা, মোনাজাতের সময় তুমি কেবল পাড়া-প্রতিবেশীর মঙ্গল কামনা করো। তোমার নিজের জন্য বা আমাদের কারও জন্য তো দোয়া করো না! এর কারণ কি?”

স্নেহময়ী মা এবার ছেলেকে আদর করে বুকে টেনে নিয়ে বললেন, বাছা আমার! আমি কেন ওরকম করি? তুমি জেনে রেখো, প্রতিবেশীর হক আগে। প্রতিবেশীর মঙ্গল কামনা করলে, তাদের খোঁজখবর নিলে আল্লাহ তায়ালা খুব খুশি হন। তাই আমি তাদের জন্য দোয়া করি। তবে তোমাদের জন্যও দোয়া করি। তবে প্রতিবেশীর অধিকার আগে,এটা মনে রাখবে-কেমন?

বন্ধুরা! তোমরা নিশ্চয়ই এই মহিয়সী মা ও তাঁর ছেলেটির পরিচয় জানতে চাচ্ছেন! হ্যাঁ বলছি, এই মহিয়সী মা ছিলেন আমাদের প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) এর কন্যা হযরত ফাতিমা (সা. আ.) এবং যে ছেলেটির কথা বলা হলো তিনি হলেন ইমাম হাসান। হযরত ফাতিমারই আদরের সন্তান।

উম্মে সুলাইমের ধৈর্য ও বুদ্ধিমত্তা

আনাস বিন মালেক বলেনঃ আবু তালহা (রাঃ) তাঁর একটি অসুস্থ পুত্র সন্তান বাড়িতে রেখে বাইরে (সফরে) গেলেন। সফরে যাওয়ার পর সন্তানটি মারা গেল। আবু তালহা তখনও বাইরে ছিলেন। আবু তালহার স্ত্রী উম্মে সুলাইম তার পরিবারের লোকদেরকে বললেনঃ আবু তালহা ফেরত আসলে তোমরা তাকে পুত্রের মৃত্যু সংবাদ জনাবে না। আমিই প্রথমে তাকে সংবাদটি জানাবো। আবু তালহা বাড়িতে আসলে তিনি তার জন্য রাতের খাবার পরিবেশন করলেন। অতঃপর পূর্বের চেয়ে আরও সুন্দর করে আবু তালহার জন্য সাজ-সজ্জা গ্রহণ করলেন। তারা রাত্রে সহবাসে মিলিত হলেন। তিনি যখন দেখলেন, তার স্বামী পরিতৃপ্ত হয়েছেন তখন বলতে লাগলেনঃ হে আবু তালহা! লোকেরা যদি অন্য লোকদের কাছে কোন জিনিস আমানত রাখে, আর পরবর্তীতে যদি তারা জিনিসটি ফেরত চায়, তাহলে কি তারা তা আটকিয়ে রাখার অধিকার রাখেন? আবু তালহা বললেনঃ না, আটকিয়ে রাখার কোন অধিকার তারা রাখেন না। এবার আবু তালহার স্ত্রী বললেনঃ আপনি সবুর করুন। আপনার ছেলেটি মারা গেছে। এতে আবু তালহা রাগান্বিত হয়ে বললেনঃ তুমি আমাকে আগে সংবাদ দাও নি কেন? আর এখন আমি ময়লা-আবর্জনায় অপিবত্র হয়ে যাওয়ার পর সংবাদ দিচ্ছ?

এরপর আবু তালহা সরাসরি রাসূল (সাঃ)এর দরবারে গিয়ে হাজির হলেন এবং রাতের ঘটনা সম্পর্কে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে জানিয়ে দিলেন। তিনি তখন বললেনঃ আল্লাহ তা’আলা তোমাদের জন্য এ রাত্রিতে বরকত দান করবেন।

অন্য বর্ণনায় এসেছে উম্মে সুলাইম ছেলেকে গোসল দিয়ে কাফন পরিয়ে ঘরের এক পাশে রেখে দিলেন। আবু তালহা ঘরে এসে জিজ্ঞেস করলেনঃ ছেলেটি কোথায়? উম্মে সুলাইম বললেনঃ সে বিশ্রাম করছে। আমার মনে হয় সে আরামে ঘুমাচ্ছে।

আবু তালহা ভাবলেন : তাঁর স্ত্রী সত্য কথাই বলছেন। আবু তালহা রাত্রি যাপন করলেন। সকাল হলে তিনি গোসল করলেন। যখন তিনি বের হওয়ার ইচ্ছা করলেন তখন তাঁর স্ত্রী তাঁকে জানালেন যে, ছেলেটি মারা গেছে। তিনি নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামএর সাথে ফজরের নামাজ আদায় করলেন। অতঃপর তাঁকে তাদের উভয়ের সংবাদ শুনালেন। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তখন বললেনঃ আল্লাহ তা’আলা তোমাদের জন্য এ রাত্রিতে বরকত দান করবেন। সেই রাত্রির সহবাসে উম্মে সুলাইম গর্ভবতী হয়ে একটি পুত্র সন্তান প্রসব করলেন। আনাস (রাঃ) বলেনঃ আবু তালহা আমাকে বললেনঃ সন্তানটিকে বহন করে তুমি রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের কাছে নিয়ে যাও। আর আবু তালহা সাথে কয়েকটি খেজুর দিয়ে দিলেন। রাসূল (সাঃ) জিজ্ঞেস করলেনঃ সাথে কিছু আছে কি? তিনি বললেনঃ কয়েকটি খেজুর আছে। নবী (সাঃ) সেই খেজুরগুলো চিবিয়ে তাঁর পবিত্র মুখ থেকে কিছু বের করে শিশুটির মুখে রাখলেন। অতঃপর তার নাম রাখলেন আব্দুল্লাহ। জনৈক আনসারী সাহাবী বলেনঃ আমি আবু তালহার নয়জন সন্তান দেখেছি। তারা প্রত্যেকেই কুরআনের হাফেজ হয়েছিল। (বুখারী ও মুসলিম)

এই ঘটনায় আমাদের জন্য যে সমস্ত শিক্ষণীয় বিষয় রয়েছে তার মধ্যে :

১) আবু তালহার স্ত্রী উম্মে সুলাইমের ফজিলত ও তাঁর বুদ্ধিমত্তার পরিচয় পাওয়া গেল।

২) তাকদীরের প্রতি সন্তুষ্ট থাকা এবং বিপদাপদে পেরেশান হয়ে উচ্চস্বরে ক্রন্দন না করে ধৈর্য ধারণ করা।

৩) তারা সেই রাত্রে যেই ধৈর্যের পরিচয় দিয়েছিলেন তার বিনিময়ে আল্লাহ তাআলা পরবর্তীতে তাদেরকে নেক সন্তান দান করেছিলেন। যারা কুরআনের হাফেয হয়েছিল।

৪) রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আল্লাহর দরবারে যে দুআ করতেন, তা কবুল হয়ে যেত।

৫) আমানত বা গচ্ছিত রাখা বস্তু তার মালিকের নিকট ফেরত দেয়া ওয়াজিব।

৬) জন্ম গ্রহণ করার পর পরই শিশুর মুখে খেজুর চিবিয়ে তার রস দেয়া মুস্তাহাব। নবজাতকের (ছেলে) ডান কানে আযান বাম কানে ইকামত। আর মেয়ে হলে বাম কানে আযান ডান কানে ইকামত দেওয়া সুন্নাত।

৭) ইসলাম নবজাত শিশুর প্রতি যথেষ্ট গুরুত্ব প্রদান করতে উৎসাহ দিয়েছে।

৮) মুসলিম মহিলার উচিত তার স্বামীর জন্য সাজ-সজ্জা গ্রহণ করা। বিশেষ করে স্বামী বিদেশ বা সফর থেকে ফেরত এসে প্রথম সাক্ষাতের সময়।

৯) জন্মের সাথে সাথেই শিশুর জন্য সুন্দর একটি নাম নির্বাচন মুস্তাহাব। আব্দুল্লাহ এবং আবদুর রাহমান আল্লাহর কাছে সবচেয়ে প্রিয় নাম।

১০) নবী সাল্লাল্লাহ আলাইহি ওয়া সাল্লামের মুখের থুথু, লালা এবং তাঁর পবিত্র শরীরের সাথে লেগেছে এমন বস্তু দিয়ে বরকত গ্রহণ করা জায়েয ছিল।

আজকের পাঠকসংখ্যা
১০৯৫১৯
পুরোন সংখ্যা