ঢাকা। শুক্রবার ১১ জানুয়ারি ২০১৯। ২৮ পৌষ ১৪২৫। ৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪০
redcricent
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • ফরিদগঞ্জের মনতলা হাজী বাড়ির মোতাহের হোসেনের ছেলে ফাহিম মাহমুদ (৩) নিজ বাড়ির পুকুরে ডুবে মারা গেছেন। ||  শনিবার সকালে ফাহিমের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেন হাজীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দায়িত্বপ্রাপ্ত চিকিৎসক। || 
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৩৭ আয়াত, ৪ রুকু, ‘মক্কী

২৭। আকাশম-লী ও পৃথিবীর আধিপত্য আল্লাহরই, যেদিন কিয়ামত সংঘটিত হইবে সেদিন মিথ্যাশ্রয়ীরা হইবে ক্ষতিগ্রস্ত,

 


assets/data_files/web

সৌভাগ্যবান হওয়ার চেয়ে জ্ঞানী হওয়া ভালো।        


-ডাবলিউ জি বেনহাম।


স্বভাবে নম্রতা অর্জন কর।



 


ফটো গ্যালারি
রাস্তা থেকে কষ্টদায়ক বস্তু সরিয়ে দাও
মৃধা রেজাউল করিম
১১ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


আল্লাহ সুবনাহু ওয়া তা'য়ালা পবিত্র কোরআনুল কারিমে বলেন, 'আর তোমরা নিকটাত্মীয়দের দিয়ে দাও তার অধিকার, আর মিসকিন ও মুসাফিরকে দাও। অতিমাত্রায় ব্যয় করো না, নিশ্চয়ই অপচয়কারীরা শয়তানের ভাই। শয়তান তার পালনকর্তার বড়ই অকৃতজ্ঞ।' সূরা বনি ইসরাইল, আয়াত ২৬-২৭।



এ আয়াতে আমরা জানতে পারি আল্লাহতা'য়ালা আত্মীয়স্বজন, গরিব মিসকিন, সফরকারীসহ সব শ্রেণিপেশার মানুষের হক আদায় করার কথা বলেছেন।



আমরা সবাই সড়ক, নৌ, বিমান, রেল তথা যাত্রাপথে ভ্রমণ করি। আমরা কতটুকু হক বা সেবা পেয়েছি অথবা কতটুকু অপরের হক আদায় করতে পেরেছি। বরং এক্ষেত্রে তো আমরা কেবল দুর্ভোগই লক্ষ্য করছি। নানা ধরনের কষ্ট। ভোগান্তি শঙ্কা ও দুর্ঘটনার মুখোমুখি হচ্ছি।



সেটা যেমন সড়কপথে, নৌপথে তেমনই রেলপথেও। আমাদের প্রিয় নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম যাত্রাপথ তথা চলার পথের কষ্ট-দুর্ভোগ দূর করার প্রতি জোর দিয়েছেন।



রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম পথ থেকে কষ্টদায়ক বস্তু সরিয়ে দেয়া ঈমানের অঙ্গ বলে অবিহিত করেছেন। সেখানে দেশজুড়ে আমরা কেবল এর উল্টো চিত্রই দেখছি। পথজুড়ে শুধু কষ্ট আর কষ্ট, ভোগান্তি আর ভোগান্তি। সেটি নানাভাবে অসহনীয়ভাবে হচ্ছে।



দুর্ভোগের মাত্রা চরমে উঠে কারও দায়িত্বহীনতার কারণে কোনো একটি মানুষের মৃত্যু ঘটে। এ দুর্ভোগ শুধু ওই ব্যক্তিরই নয় বরং পুরো পরিবার সমাজ এমনকি সর্বোপরি দেশেরই দুর্ভোগ।



প্রকৃত মুসলমান হতে হলে তো সম্মিলিতভাবে দুর্ভোগমুক্ত করতে হবে রাস্তাঘাট। তবেই আমরা যথাযথ মুসলমান হতে পারবো।



হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে আমর ইবনিল আছ রাদিয়াল্লাহু তা'য়ালা আনহু থেকে বর্ণিত তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, প্রকৃত মুসলমান তো সে, যার মুখ ও হাত থেকে অন্য মুসলমান নিরাপদ থাকে, আর প্রকৃত মুহাজির তো সে, যে আল্লাহ যা থেকে নিষেধ করেছেন তা ত্যাগ করে (বুখারি ও মুসলিম)।



তাছাড়া অসতর্কতা, অসচেতনতা, অব্যবস্থাপনা ও অন্যায়ভাবে যদি একটি প্রাণও খোয়া যায় তাহলে কিয়ামতের দিন আল্লাহর আদালতে খুনি হিসেবে দাঁড়াতে হবে।



আল্লাহু সুবহানাহু ওয়া তা'য়ালা কোরআনুল কারিমের সূরা আল মায়িদার ৩২নং আয়াতে বলেন, 'এসব কারণেই আমি বনি ইসরাইলের ওপর লিখে দিয়েছি যে কোনো একটি প্রাণকে অন্য একটি প্রাণের বিনিময়ে ছাড়া অথবা পৃথিবীতে ফ্যাসাদ ছাড়া হত্যা করলো সে যেনো পৃথিবীর সকল মানুষকে হত্যা করলো, আর যে একটি প্রাণীকে জীবিত করলো বা (রক্ষা করলো) সে যেনো সকল মানুষকে জীবিত করলো।'



অতএব আমাদের সবাইকে রাস্তাঘাটে সজাগ থাকতে হবে। আমাদের কারণে যেনো যাত্রাপথে কারও দুর্ভোগে পড়তে না হয়।



হজরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, এক মুসলমান আরেক মুসলমানের ভাই, সে তাকে অপদস্থ করবে না। আর তাকে মিথ্যায় ফেলবে না ধোঁকা দেবে না। তার সঙ্গে জুলুম করবে না। আর নিশ্চয়ই তোমাদের কেউ তার ভাইয়ের আয়নাস্বরূপ। অতএব যদি সে কোনো কষ্ট দুর্ভোগ দেখে সে যেনো তার থেকে তা দূর করে দেয়, তিরমিজি।



সূত্র : যুগান্তর।



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৮১৯৬৫১
পুরোন সংখ্যা