চাঁদপুর, রোববার ২৯ নভেম্বর ২০২০, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৩ রবিউস সানি ১৪৪২
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
নাতি-নাতনির সঙ্গে নবীজির দিনগুলো
সাইফুল ইসলাম তাওহিদ
২৯ নভেম্বর, ২০২০ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


রাসুল (সাঃ) ছিলেন মানবসভ্যতার আদর্শ। নববি দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি মানবীয় গুণাবলিতে তিনি ছিলেন সবার অনুকরণীয়। সাধারণ মানুষের মতোই ছিলো তাঁর জীবনযাত্রা। স্ত্রী, সন্তান ও নাতিদের নিয়ে ছিলো তাঁর পরিবার। তাই উম্মতের রাসুল হওয়ার পাশাপাশি তিনি ছিলেন একজন আদর্শ স্বামী, বাবা, নানা ও পরিবারে সচেতন সদস্য। নানার ভূমিকা পালন করে নাতি-নাতনিদের সঙ্গেও সময় কাটিয়েছেন। তাদের আনন্দে তিনি আনন্দিত হয়েছেন। কেমন ছিলো নাতিদের সঙ্গে কাটানো রাসুল (সাঃ)-এর সেই আনন্দঘন মুহূর্তগুলো! সে রৌদ্রকরোজ্জ্বল মুহূর্তগুলো, সে ব্যাপারে আলোকপাত করার চেষ্টা করব, ইনশাআল্লাহ।



রাসুল (সাঃ)-এর নাতি-নাতনির সংখ্যা : সিরাত গ্রন্থ থেকে রাসুল (সাঃ)-এর আটজন নাতি-নাতনির কথা জানা যায়। জয়নব (রাঃ) ও আবুল আসের ঘরে দুজন : আলী ও উমামা। রুকাইয়া ও উসমানের ঘরে একজন : আবদুল্লাহ। ফাতেমা (রাঃ) ও আলী (রাঃ)-এর ঘরে পাঁচজন : হাসান, হুসাইন, মুহসিন, জয়নব ও উম্মে কুলসুম। (বিদায়া ওয়ান নিহায়া, ৫/৩০৬)



হাসান-হুসাইনের নাম নির্বাচন : আলী (রাঃ) থেকে বর্ণিত, হাসান ভূমিষ্ঠ হলে আমি তার নাম রাখলাম হারব (যুদ্ধ)। রাসুল (সাঃ) এসে বলেন, আমার নাতি আমাকে দেখাও, তোমরা তার কী নাম রেখেছ? আমরা বললাম, হারব। তিনি বলেন, বরং তার নাম হাসান। পরে হুসাইন ভূমিষ্ঠ হলে আমি তার নাম রাখলাম হারব। রাসুল (সাঃ) এসে বলেন, আমার নাতি আমাকে দেখাও, তোমরা তার কী নাম রেখেছ? আমরা বললাম, হারব। তিনি বলেন, বরং তার নাম হুসাইন। অতঃপর তৃতীয় সন্তান ভূমিষ্ঠ হলে আমি তার নামও রাখলাম হারব। অতঃপর রাসুল (সাঃ) এসে বলেন, আমার নাতি আমাকে দেখাও, তোমরা তার কী নাম রেখেছে? আমরা বললাম, হারব। (মুসনাদ আহমদ, হাদিস : ৭৮০)



নাতিদের চুম্বন ও কোলে নেওয়া : আবু হুরায়রা (রাঃ) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, একদা রাসুল (সাঃ) হাসান-হুসাইনকে কাঁধে নিয়ে বের হলেন (দুই কাঁধে দুজন ছিল)। তিনি একবার হাসানকে চুমা দেন আরেকবার হুসাইনকে, এভাবে করতে করতে আমাদের কাছে আসেন। তখন এক ব্যক্তি রাসুল (সাঃ)-কে বলল, হে আল্লাহর রাসুল, আপনি এদের খুব ভালোবাসেন? তখন তিনি বলেন, যে তাদের (হাসান-হুসাইন) ভালোবাসবে সে আমাকে ভালোবাসবে। আর যে এদের রাগান্বিত করবে সে আমাকে রাগান্বিত করবে। (মুসনাদ আহমদ, হাদিস : ৯৯২৪)



রাসুল (সাঃ)-এর কাঁধে আরোহণ : আবু হুরায়রা (রাঃ) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, একদা আমরা রাসুল (সাঃ) এর সঙ্গে এশার নামাজ পড়ছিলাম। রাসুল (সাঃ) সিজদা করলে হাসান -হুসাইন লাফ দিয়ে তাঁর পিঠে উঠত। রাসুল (সাঃ) সিজদা থেকে ওঠার সময় তাদের হাত দিয়ে নামিয়ে দিতেন। তিনি আবার সিজদা করলে তারাও আবার পিঠে উঠত। এভাবে তিনি নামাজ শেষ করেন। (মুসনাদ আহমদ, হাদিস : ৭৮৭৬)



আবু কাতাদাহ (রাঃ) থেকে বর্ণিত, একদা আমরা মসজিদে বসা ছিলাম। এমন সময় রাসুল (সাঃ) স্বীয় কন্যা জয়নবের মেয়ে উমামাহ বিনতে আবুল আসকে নিয়ে আমাদের কাছে আসেন। তখন উমামা শিশু ছিল, রাসুলুল্লাহ তাকে কাঁধে নিয়ে নামাজ আদায় করেন। তিনি রুকু করার সময় তাকে নামিয়ে রাখতেন এবং দাঁড়ানোর সময় আবার কাঁধে উঠিয়ে নিতেন। এভাবে তিনি নামাজ আদায় শেষ করেন। (আবু দাউদ, হাদিস: ৯১৮)



নাতিদের জন্য দোয়া : আবু হুরায়রা (রাঃ) বলেন, দিনের এক প্রহরে আমি রাসুল (সাঃ)-এর সঙ্গে রওনা হলাম। তিনি আমার সঙ্গে কথা বলেননি। আমিও তাঁর সঙ্গে কথা বলছিলাম না। অবশেষে বনু কাইনুকা-এর বাজারে পেঁৗছালেন, এরপর তিনি ফিরে চললেন এবং ফাতিমা (রাঃ)-এর ঘরে ঢুকলেন। বললেন, এখানে কি শিশু আছে, এখানে কি শিশু আছে, অর্থাৎ হাসান। ফাতেমা (রাঃ) তাঁকে দেরি করাচ্ছেন। আমরা অনুমান করলাম যে তাকে তার মা সোনা-রুপা ছাড়া পুঁতির মালা পরাচ্ছেন যা বাচ্ছাদের পরানো হয়। কিন্তু অল্পক্ষণের ভেতরেই হাসান দৌড়ে চলে এলেন এবং রাসুল (সাঃ)-এর গলা জড়িয়ে ধরলেন। সে সময় রাসুল (সাঃ) বলেন, 'হে আল্লাহ! আমি তাকে পছন্দ করি, তুমিও তাকে পছন্দ কোরো, আর পছন্দ কোরো সেসব ব্যক্তিকে যে তাকে পছন্দ করে।' (মুসলিম, হাদিস : ৬১৫১)



নাতিদের সঙ্গে রাসুল (সাঃ)-এর সম্পর্কটা ছিল ভালোবাসার অটুট বন্ধনে আবদ্ধ। তিনি তাদের সঙ্গে খেলাধুলা করেছেন। তাদের কাঁধে তুলে নিয়েছেন। কোলে বসিয়েছেন। তাদের আনন্দ দিয়েছেন। নিজে আনন্দিত হয়েছেন। সূত্র : কালের কণ্ঠ।



 



 



 



 


হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৮২-সূরা ইন্ফিতার


১৯ আয়াত, ১ রুকু, মক্কী


১৬। এবং উহারা উহা হইতে অন্তর্হিত হইতে পারিবে না।


১৭। কর্মফল দিবস সম্বন্ধে তুমি কী জান?


১৮। আবার বলি, কর্মফল দিবস সম্বন্ধে তুমি কি জান?


১৯। সেই দিন একে অপরের জন্য কিছু করিবার সামর্থ্য থাকিবে না; এবং সেই দিন সমস্ত কর্তৃত্ব হইবে আল্লাহর।


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


আমার মুক্তি আলোয়...।


-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর।


 


 


 


 


 


 


যার দ্বারা মানবতা উপকৃত হয়, মানুষের মধ্যে তিনি উত্তম পুরুষ।


 


ফটো গ্যালারি
করোনা পরিস্থিতি
বাংলাদেশ বিশ্ব
আক্রান্ত ৫,৩৮,০৬২ ১০,৬৪,২৭,১০৩
সুস্থ ৪,৮৩,৩৭২ ৭,৮০,৮৪,৯০৯
মৃত্যু ৮,২০৫ ২৩,২২,০৫৩
দেশ ২১৩
সূত্র: আইইডিসিআর ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।
আজকের পাঠকসংখ্যা
৭০০০৫৯
পুরোন সংখ্যা