চাঁদপুর। সোমবার ১৮ ডিসেম্বর ২০১৭। ৪ পৌষ ১৪২৪। ২৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯
redcricent
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • হাজীগঞ্জে পানিতে ডুবে দুই ভাইয়ের মৃত্যু
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৩৩-সূরা আহ্যাব

৭৩ আয়াত, ৯ রুকু, মাদানী

পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।

 ২৯। আর যদি তোমরা কামনা কর আল্লাহ্, তাঁহার রাসূল ও আখিরাত, তবে তোমাদের মধ্যে যাহারা সৎকর্মশীল আল্লাহ্ তাহাদের জন্য মহাপ্রতিদান প্রস্তুত রাখিয়াছেন।'

৩০। হে নবী-পতিœগণ!  যে কাজ স্পষ্টত অশ্লীল, তোমাদের মধ্যে কেহ তাহা করিলে তাহাকে দ্বিগুণ শাস্তি দেওয়া হইবে এবং ইহা আল্লাহর জন্য সহজ।

দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন।

দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


মন যখন অন্যত্র, চোখ তখন বন্ধ।  

-পাবলিয়াস সাইরাস।


মুসলমানগণের মধ্যে যার স্বভাব সবচেয়ে ভালো সে-ই সর্বাপেক্ষা ভালো ব্যবহার করে, তারাই তোমাদের মধ্যে সর্বাপেক্ষা শ্রেষ্ঠ  ব্যক্তি।


ফটো গ্যালারি
হাইমচরে বিজয় দিবস উদ্যাপন ও মুক্তিযোদ্ধা সংবর্ধনা
জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান মুক্তিযোদ্ধাদের আত্মত্যাগের বিনিময়ে আমরা স্বাধীন বাংলাদেশ পেয়েছি
উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নূর হোসেন পাটওয়ারী
মোঃ হাসান আল মামুন
১৮ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


হাইমচরে উপজেলা পরিষদ ও উপজেলা প্রশাসনের ব্যাপক ও বর্ণাঢ্য আয়োজনে ৪৬তম মহান বিজয় দিবস উদ্যাপন করা হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষে মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নূর হোসেন পাটওয়ারী বলেন, পাকিস্তানী বর্বর শাসক গোষ্ঠীর হাত থেকে বাঙালি জাতিকে রক্ষায় বাংলাদেশের স্থপতি হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আহ্বানে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধাদের আত্মত্যাগের বিনিময়ে স্বাধীন বাংলাদেশ পেয়েছি। ৩০ লাখ শহীদ ও ২ লাখ মা-বোনের ইজ্জতের বিনিময়ে অর্জিত বিজয়ের এদিনে সকলের প্রতি শ্রদ্ধা ও কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি। আধুনিক অস্ত্রে সজ্জিত পাক হানাদার বাহিনীকে পরাজিত করে মুক্তিযোদ্ধারা ১৯৭১ সালের এ দিনে বিজয় অর্জন করে আমাদেরকে লাল সবুজের পতাকা উপহার দেয়ায় আমরা পৃথিবীর বুকে বিজয়ী জাতির স্বীকৃতি পেয়েছি। তাঁদের ত্যাগের বিনিময়ে আজ আমরা স্বাধীনতার সুফল ভোগ করছি। জাতির জনকের কন্যা শেখ হাসিানর নেতৃত্বে সরকার মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদমুক্ত আধুনিক ও উন্নত বাংলাদেশ গঠনে কাজ করে যাচ্ছে। মুক্তিযুদ্ধ ও বিজয়ের গৌরবকে পুঁজি করে সুখী সুন্দর বাংলাদেশ নির্মাণে আমরা সকলে এক যোগে কাজ করবো-আজকের বিজয়ের এ দিনে সকলের কাছে এটাই প্রত্যাশা করছি।



গত ১৬ ডিসেম্বর শনিবার বেলা ১২টায় দুর্গাপুর উচ্চ বিদ্যালয় অডিটরিয়মে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাসুমের সভাপতিত্বে ও উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা একেএম মীর হোসেনের পরিচালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন অফিসার ইনচার্জ রনোজিত রায়, হাইমচর প্রেসক্লাব সাধারণ সম্পাদক মোঃ খুরশিদ আলম, হাইমচর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার সন্তোষ চন্দ্র মজুমদার ও শাহ মোঃ আঃ বারেক বকাউল। সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে হাইমচরের ৮ শহীদ পরিবারের প্রতি সম্মাননা ক্রেস্টসহ সকল মুক্তিযোদ্ধার মাঝে সম্মাননা প্রদান ও বিশেষ খাবার বিতরণ করা হয়।



দিবসের শুরুতে ভোর ৬টায় উপজেলা সদরে তোপধ্বনির মাধ্যমে শুরু হওয়া কার্যক্রমের পর ৬টা ৩০ মিনিটি শহীদ মিনারে পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন স্থানীয় সংসদ সদস্য ডাঃ দীপু মনির পক্ষে উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক নূর হোসেন পাটওয়ারীর নেতৃত্বে দলীয় নেতৃবৃন্দ। এছাড়া উপজেলা পরিষদের পক্ষে চেয়ারম্যান নূর হোসেন, উপজেলা প্রশাসনের পক্ষে নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ মাসুম, পুলিশ প্রশাসনের পক্ষে রনোজিত রায়, মুক্তিযোদ্ধা সংসদের পক্ষে সাবেক কমান্ডার সন্তোষ মজুমদার, উপজেলা আওয়ামী লীগের পক্ষে হুমায়ুন প্রধানীয়া, সাধারণ সম্পাদক নূর হোসেন পাটওয়ারীসহ নেতৃবৃন্দ, উপজেলা বিএনপির পক্ষে সভাপতি আমিন উল্লাহ বেপারী ও সাধারণ সম্পাদক মাজহারুল ইসলাম শফিকসহ অন্য নেতৃবৃন্দ, উপজেলা জাতীয় পার্টি, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেঙ্, উপজেলা বাসদ, উপজেলা জাকেরপার্টি, উপজেলা যুবলীগ, উপজেলা ছাত্রলীগ, প্রজন্ম বাংলাদেশসহ বিভিন্ন সামাজিক ও রাজনৈতিক সংগঠনের পক্ষে স্ব স্ব নেতৃবৃন্দ। পুষ্পমাল্য অর্পণ শেষে শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের আত্মার মাগফেরাত এবং দেশ ও জাতির কল্যাণে বিশেষ দোয়া মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়। দোয়া পরিচালনা করেন হাইমচর প্রেসক্লাবের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাওঃ মোঃ নুরুল ইসলাম।



সকাল ৯টা ৩০ মিনিটে বেলুন ও পায়রা উড়িয়ে জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে বিজয় দিবসের কর্মসূচির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নূর হোসেন পাটওয়ারী। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ মাসুম, অফিসার ইনচার্জ রনোজিত রায়। উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে পুলিশ, আনসার ভিডিপি, ফায়ার সার্ভিস, প্রাথমিক বিদ্যালয়, মাধ্যমিক বিদ্যালয়, মাদ্রাসা ও কলেজসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে মনোমুগ্ধকর শারীরিক কসরত ও ডিসপ্লে প্রদর্শন করা হয়। পরে ডিসপ্লেতে অংশগ্রহণকারীসহ ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। ডিসপ্লেতে প্রাথমিক বিদ্যালয় পর্যায়ে ১ম স্থান অধিকার করে হাইমচর আইডিয়াল স্কুল। বিজয় দিবসের অতিথি ও মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য বিশেষ আকর্ষণীয় ইভেন্ট হিসেবে হাঁসের গলায় রিং পরানো খেলা অনুষ্ঠিত হয়। সন্ধ্যায় উপজেলার দুর্গাপুর উচ্চ বিদ্যালয় অডিটরিয়মে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।



 


এই পাতার আরো খবর -
আজকের পাঠকসংখ্যা
৫৪৮১৪৬
পুরোন সংখ্যা