চাঁদপুর। বুধবার ১৬ মে ২০১৮। ২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫। ২৯ শাবান ১৪৩৯
redcricent
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • --
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৩৭-সূরা সাফ্ফাত

১৮২ আয়াত, ৫ রুকু, মক্কী

পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।

১৫৬। নাকি তোমাদের কাছে সুস্পষ্ট কোন দলিল রয়েছে?

১৫৭। তোমরা সত্যবাদী হলে তোমাদের কিতাব আন।

১৫৮। তারা আল্লাহ ও জ্বিনদের মধ্যে সম্পর্ক সাব্যস্ত করেছে, অথচ জ্বিনেরা জানে যে, তারা গ্রেফতার হয়ে আসবে।

১৫৯। তারা যা বলে তা থেকে আল্লাহ পবিত্র।

দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


যারা যুক্তি মানে না, তারা বর্বর।

-জর্জ বার্নাড শ’।


দেশের শাসনভার আল্লাহতায়ালার নিকট হতে আমানত।


ফটো গ্যালারি
হরিণায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দু' গ্রুপের সংঘর্ষে আহত ১০ আটক ৩
স্টাফ রিপোর্টার
১৬ মে, ২০১৮ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


অনেকটা সন্ত্রাসের জনপদ হিসেবে চিহ্নিত হচ্ছে চাঁদপুর সদর উপজেলার ১৩নং হানারচর ইউনিয়নের হরিণা চৌরাস্তা ও ফেরিঘাট এলাকা। এখানে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন গোষ্ঠীর মধ্যে বিরোধে হামলা, মারামারি-সংঘর্ষ, বাড়িঘর-দোকানপাট ভাংচুর ও মামলা-পাল্টা মামলার ঘটনা লেগেই আছে। পুলিশও এ এলাকার রেষারেষিতে অতিষ্ঠ। গত ১৪ মে সোমবার দিবাগত রাত ১টায় হরিণা চৌরাস্তা সংলগ্ন গাজী ও ছৈয়াল বাড়ির মধ্যে তুমুল সংঘর্ষ বাঁধে। এতে পুলিশসহ ১০ জন আহত হয়েছে। পুলিশ ওই রাতে ঘটনাস্থলে পেঁৗছে লাঠিচার্জ এবং শর্টগানের গুলি ছুঁড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে এবং সেখান থেকে তিনজনকে আটক করা হয় বলে জানিয়েছেন চাঁদপুর মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মাহবুব মোল্লা।



এ সংঘর্ষের ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশ উপ-পরিদর্শক হাবিব জানান, মোক্তার গাজী ও হাবু ছৈয়াল-মানিক গাজী গ্রুপের মধ্যে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে এই মারামারির ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে মডেল থানার ইন্সপেক্টর মনির আহমেদ, এসআই অরূপ কর্মকার, পলাশ বড়ুয়া ও আমি এসআই হাবিব সঙ্গীয় ফোর্সসহ সেখানে গিয়ে উভয় পক্ষকে নিবৃত করি।



২৫০ শয্যাবিশিষ্ট চাঁদপুর জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, হরিণা এলাকার মারামারির ঘটনায় পুলিশের এসআই হাবিবসহ ৬ জন আহত হয়ে চিকিৎসা নিয়েছে। অন্য আহতরা হলেন আলমগীর (৩১), আবুল হাসেম (৬০), মুসলিম গাজী (১৮), শরিফ (১৯) ও সবুজ (২৮)।



 


এই পাতার আরো খবর -
আজকের পাঠকসংখ্যা
৪৭০২৭৪
পুরোন সংখ্যা