চাঁদপুর। শুক্রবার ১০ আগস্ট ২০১৮। ২৬ শ্রাবণ ১৪২৫। ২৭ জিলকদ ১৪৩৯
redcricent
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৪০-সূরা আল মু’মিন

৮৫ আয়াত, ৯ রুকু, মক্কী

পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।

৩৪। ইতিপূর্বে তোমাদের কাছে ইউসুফ সুস্পষ্ট প্রমাণাদিসহ আগমন করেছিলো, অতঃপর তোমরা তার আনীত বিষয়ে সন্দেহই পোষণ করতে। অবশেষে যখন সে মারা গেলো, তখন তোমরা বলতে শুরু করলে, আল্লাহ ইউসুফের পরে আর কাউকে রসূলরূপে পাঠাবেন না। এমনিভাবে আল্লাহ সীমালঙ্গনকারী, সংশয়ী ব্যক্তিকে পথভ্রষ্ট করেন।

৩৫। যারা নিজেদের কাছে আগত কোনো দলিল ছাড়াই আল্লাহর আয়াত সম্পর্কে বিতর্ক করে, তাদের একজন আল্লাহ ও মুমিনদের কাছে খুবই অসন্তোষজনক। এমনিভাবে আল্লাহ প্রত্যেক অহঙ্কারী-স্বৈরাচারী ব্যক্তির অন্তরে মোহর এঁটে দেন।

দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


উপন্যাস মানুষকে জীবন সম্পর্কে সচেতন করে তোলে।

 -রবার্ট হেনরিক।


কাউকে অভিশাপ দেওয়া সত্যপরায়ণ ব্যক্তির উচিত নয়।



 


প্রথমদিন পুরাণবাজারস্থ ১নং ওয়ার্ডে প্রায় ৩ হাজার স্মার্টকার্ড বিতরণ
চাঁদপুর পৌর এলাকায় শুরু হলো স্মার্টকার্ড বিতরণ কার্যক্রম
মিজানুর রহমান
১০ আগস্ট, ২০১৮ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


চাঁদপুরে শুরু হয়েছে নাগরিকদের মাঝে বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র (স্মার্টকার্ড) বিতরণ কার্যক্রম। গতকাল ৯ আগস্ট চাঁদপুর পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের পুরাণবাজার মধুসূদন হাই স্কুল কেন্দ্র থেকে শুরু করা হয় পুরুষের স্মার্টকার্ড বিতরণ। আজ ১০ আগস্ট একই কেন্দ্রে দেয়া হবে মহিলাদের স্মার্টকার্ড।



সদর উপজেলা নির্বাচন অফিসার মোঃ দেলোয়ার হোসেন জানান, এ ওয়ার্ডের ৩ হাজার ২শ' ৬৫ জনের কার্ড দেয়ার প্রস্তুতি নিয়ে সকাল সাড়ে আটটা থেকে ২৮ জন টেকনিক্যাল পার্সন কাজ করছে। এ সময় উপস্থিত পুরাণবাজার পুলিশ ফাঁড়ির ইন্সপেক্টর আঃ রশিদ জানান, নাগরিকদের সুবিধার জন্যে আমরা মাইক সংযোজন করে দিয়েছি। পুলিশ সদস্যরা লোকজনের উপস্থিতি শেষ না হওয়া পর্যন্ত ডিউটি করেছেন। আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণ রাখতে এসআই জাহাঙ্গীরসহ আমাদের পুলিশ সদস্যদের অনেক হিমশিম খেতে হয়েছে।



এদিকে সরজমিনে দেখা যায়, সকাল থেকে মধুসূদন স্কুল কেন্দ্রে নির্বাচনের ভোটের ন্যায় দীর্ঘ লম্বা লাইনে ঘন্টার পর ঘন্টা দাঁড়িয়ে থেকে পুরুষ নাগরিকরা তাদের কাঙ্ক্ষিত স্মার্টকার্ডটি হাতে পেয়ে ভীষণ খুশি। এ জন্য প্রখর রৌদ্রের মধ্যে তাদের অনেক কষ্ট করতে হয়েছে। অনেকে আবার বিভিন্ন জটিলতার কারণে ভোগান্তি ও বিড়ম্বনার শিকার হয়েছেন এবং কার্ড নিতে না পারায় ফিরেও গেছেন। কার্ড পাবার আশায় রাত ১১টা পর্যন্ত স্কুলে মানুষের ভিড় লক্ষ্য করা গেছে।



 


এই পাতার আরো খবর -
আজকের পাঠকসংখ্যা
৮১০০৬
পুরোন সংখ্যা