চাঁদপুর। শুক্রবার ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮। ৩০ ভাদ্র ১৪২৫। ৩ মহররম ১৪৪০
redcricent
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৪১-সূরা হা-মীম আস্সাজদাহ,

৫৪ আয়াত, ৬ রুকু, মক্কী

পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।

২৬। কাফিররা বলে, তোমরা এই কোরআন শ্রবণ করো না এবং তা তিলাওয়াতকালে শোরগোল সৃষ্টি করো, যাতে তোমরা জয়ী হতে পারো।

২৭। আমি অবশ্যই কাফিরদেরকে কঠিন শাস্তি আস্বাদন করাবো এবং নিশ্চয়ই আমি তাদেরকে নিকৃষ্ট কার্যকলাপের বিনিময় দেবো।

২৮। জাহান্নাম, এটাই আল্লাহর শত্রুদের পরিণাম; সেখানে তাদের জন্যে রয়েছে স্থায়ী  আবাস আমার নিদর্শনাবলি অস্বীকৃতির প্রতিফলস্বরূপ।

দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


কাঁচা যে-কোনো জিনিসই পচনশীল

 -লুই পাস্তুর।


স্বদেশপ্রেম ঈমানের অঙ্গ।

 


ফটো গ্যালারি
আমরা সবসময় জনসাধারণকে হয়রানিমুক্ত সেবা প্রদান করতে চাই
অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মোহাম্মদ জামাল হোসেন * দালালদের খপ্পরে পড়ে যেন সাধারণ মানুষ ভোগান্তি ও হয়রানির শিকার না হয় সেদিকে প্রতিনিয়ত খেয়াল রাখছি : সহকারী কমিশনার (ভূমি) অমিত চক্রবর্ত্তী
১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


'ভূমিখাতে চাই স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা, সেবার সহজীকরণ ও জনভোগান্তি হ্রাস' এই শ্লোগান নিয়ে সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক), চাঁদপুর-এর আয়োজনে এবং উপজেলা ভূমি অফিস ও শাহতলী ইউনিয়ন ভূমি অফিসের সার্বিক সহযোগিতায় ভূমি অফিসের সেবা সম্পর্কিত তথ্য জনসাধারণকে জানানো ও ভূমি অফিসের সেবায় সুশাসন বৃদ্ধির লক্ষ্যে গতকাল ৬নং মৈশাদী ইউনিয়ন পরিষদ হলরুমে গণশুনানি অনুষ্ঠিত হয়। সনাক সভাপতি কাজী শাহাদাতের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মোহাম্মদ জামাল হোসেন। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সহকারী কমিশনার (ভূমি) অমিত চক্রবর্ত্তী এবং ৬নং মৈশাদী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ মনিরুজ্জমান মানিক।



্লপ্রধান অতিথির বক্তব্যে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মোহাম্মদ জামাল হোসেন বলেন, ভূমিসেবা নিতে সাধারণ জনগণ যেন কোনো হয়রানির শিকার না হয় সেদিকে আমাদের খেয়াল রাখতে হবে। আমরা সবসময় চাই জনসাধারণকে হয়রানিমুক্ত সেবা প্রদান করতে। ভূমি ব্যবস্থাপনা সত্যিই সহজ। কিন্তু আমরাই এটিকে জটিল করে তুলছি। দাতা এবং গ্রহীতার মধ্যে যদি আন্তরিকতার অভাব বা তথ্য বিষয়ে কোনো গ্যাপ থাকে তাহলেই জটিলতার সৃষ্টি হয়। এই জটিলতার অবসান আমাদেরকেই করতে হবে। ভূমি বিষয়ে আপনাদের জানার অভাব রয়েছে। তিনি আরও বলেন, আপনারা ভূমি সংক্রান্ত যদি কোন সমস্যায় পড়েন তাহলে ভূমি অফিস থেকে পরামর্শটা সঠিকভাবে নেয়ার চেষ্টা করবেন। ভূমি সংক্রান্ত বেশিরভাগ সমস্যার সহকারী কমিশনার (ভূমি) থেকেই সমাধান পেয়ে যাবেন। কোনো দালাল বা খারাপ লোকের খপ্পরে পড়ে প্রতারিত হবেন না। তিনি আরও বলেন, ভূমি সংক্রান্ত যে কোন সেবা পাওয়ার জন্য আমার দরজা সবসময় খোলা থাকবে। তিনি আরও বলেন, ভূমিসেবা খাতে আমরা স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে চাই। ইউনিয়নের তুলনায় ভূমি অফিসের সংখ্যা কম। তারপরও আমরা আন্তরিকতার সাথে সেবা প্রদান করে যাচ্ছি। তিনি সনাক-টিআইবি'র আয়োজনকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, ভূমি সেবাখাতে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা আনয়নের জন্য সনাক-টিআইবি'র এটি একটি ভালো উদ্যোগ। আমি বিগত তিন বছর টিআইবি'র সাথে কাজ করেছি। তারা অত্যন্ত স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার সাথে কাজ করে থাকে। তারা চায় সেবাখাতে স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা ও সুশাসন নিশ্চিত করতে। আমরাও তা-ই চাই। এছাড়াও তিনি জনগণের কাছ থেকে প্রাপ্ত লিখিত ও মৌখিক বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন। তিনি এ ধরনের একটি গণশুনানি আয়োজন করার জন্য সনাক-টিআইবিকে ধন্যবাদ জানান।



বিশেষ অতিথির বক্তব্যে সহকারী কমিশনার (ভূমি) অমিত চক্রবর্ত্তী বলেন, দালালদের খপ্পরে পড়ে যেন সাধারণ মানুষ ভোগান্তি ও হয়রানির শিকার না হয় সেদিকে প্রতিনিয়ত খেয়াল রাখছি। দালালরোধে ইতিমধ্যে আমি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাগ্রহণ করছি। তিনি আরও বলেন, সদর উপজেলা ভূমি অফিস থাকবে দুর্নীতিমুক্ত। সাধারণ জনগণের জন্য আমার দরজা সবসময় খোলা। সাধারণ মানুষের কাছে ভূমিসেবা সহজে পৌঁছে দেয়ার জন্যে কাজ করে যাচ্ছি। তিনি আরও বলেন, নামজারি-জমাখারিজ সংক্রান্ত কাজগুলো এখন অনলাইনের মাধ্যমে করা হয়। বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ার জন্য আমরা বদ্ধপরিকর। সহকারী কমিশনার (ভূমি) আপনাদের সেবা প্রদান করার জন্যে সবসময় প্রস্তুত আছে। তিনি বলেন, দুর্নীতি একতরফাভাবে বন্ধ করা সম্ভব না। তাই দুর্নীতি প্রতিরোধে সকলকে একযোগে কাজ করতে হবে। তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশের মানুষ আগের তুলনায় অনেক বেশি সচেতন। স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার মাধ্যমে সাধারণ জনগণের সেবা যাতে নিশ্চিত করতে পারি সেজন্যে দোয়া করবেন। এছাড়াও তিনি জনগণের কাছ থেকে প্রাপ্ত লিখিত ও মৌখিক বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন। তিনি এ ধরনের একটি গণশুনানি আয়োজন করার জন্য সনাক-টিআইবিকে ধন্যবাদ জানান।



বিশেষ অতিথির বক্তব্যে ৬নং মৈশাদী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ মনিরুজ্জমান মানিক বলেন, সনাক-টিআইবি'র কার্যক্রমের সুফল আমরা পেতে শুরু করেছি। কারণ, প্রথম গণশুনানিতে আমরা ভূমিসেবা বিষয়ে কয়েকটি অভিযোগ পেয়েছি। কিন্তু এই গণশুনানিতে একটি অভিযোগও পাইনি। এতে করে আমরা বুঝতে পারছি ইউনিয়নের ভূমিসেবা বিষয়ে জনগণ সন্তুষ্ট। তিনি বলেন, শাহতলী ইউনিয়ন ভূমি অফিসের সেবা সংক্রান্ত বিষয়ে দুর্নীতি বা অবৈধ লেনদেনের কোনো অভিযোগ আমার কাছে আসেনি। খুবই স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার মাধ্যমে ইউনিয়ন পরিষদ পরিচালনা করছি। আপনারা সেবা সংক্রান্ত বিষয়ে যেকোনো সমস্যা নিয়ে আসবেন তা সমাধান করার চেষ্টা করবো। তিনি এ ধরনের অনুষ্ঠান আয়োজন করার জন্য সনাক-টিআইবিকে ধন্যবাদ জানান।



সভাপতির বক্তব্যে সনাক সভাপতি কাজী শাহাদাত বলেন, শাহতলী ইউনিয়ন ভূমি অফিসের উপর এক বছরের মধ্যে আমরা দুটি গণশুনানির আয়োজন করেছি। তিনি আরও বলেন, এই ইউনিয়ন পরিষদের নারীরা বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে সরাসরি কথা বলেন। এই ইউনিয়নের নারীরা অনেক বেশি সচেতন। দেশ দিন দিন উন্নয়নের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। সরকারি কর্মকর্তারা এখন অনেক বেশি জনবান্ধব। আজকের অনুষ্ঠানের দু'জন সরকারি কর্মকর্তা স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার সাথে যেভাবে বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দিয়েছেন, আমি মনে করি এটি আমাদের মুক্তিযুদ্ধের ফসল। আমরা এমন একটি দেশ চেয়েছিলাম, যেদেশ থাকবে দুর্নীতিমুক্ত, স্বচ্ছ ও জবাবদিহিমূলক। আজ আমরা সরকারি কর্মকর্তাদের মাঝে সেই স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা খুঁজে পাচ্ছি। আজকের গণশুনানিতে অংশগ্রহণের জন্য তিনি সবাইকে ধন্যবাদ জানান।



টিআইবির রাজন চন্দ্র দের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সনাক সদস্য ও ভূমি বিষয়ক উপ-কমিটির আহ্বায়ক এবিএম নজরুল আমিন সাজু। ভূমিখাতে সুশাসন প্রতিষ্ঠায় স্থানীয় পর্যায়ে সনাক-টিআইবির লক্ষ্য এবং উদ্দেশ্য সম্পর্কে আলোচনা করেন টিআইবি'র এরিয়া ম্যানেজার মোঃ মানুদ রানা। ভূমি অফিসের সেবা সম্পর্কিত তথ্য উপস্থাপন ও জনসাধারণের কাছ থেকে উত্থাপিত বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা বিশ্বনাথ দাশ। সনাক-সভাপতি কাজী শাহাদাতের সঞ্চালনায় উপজেলা ভূমি অফিস ও শাহতলী ইউনিয়ন ভূমি অফিসের সেবা সম্পর্কিত মুক্ত আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন মোঃ আব্দুল ছাত্তার, মোঃ ইসমাইল গাজী, মোঃ মোশারফ হোসেন, মোঃ দেলোয়ার হোসেন, মর্জিনা বেগম, মোঃ হেলাল উদ্দিন, রাশিদা বেগম, সাজেদা বেগম, আঃ লতিফ পাটওয়ারী, মোঃ জাকির হোসেন, কামরুল আলম পাটওয়ারী, মাহমুদা খাতুন, সাহিদা আক্তার, মোঃ এনায়েত উল্যাহ খোকন প্রমুখ।



এছাড়াও গণশুনানিতে উপস্থিত ছিলেন সনাক সদস্য প্রফেসর মনোহর আলী, মোঃ আব্দুল মালেক ও অধ্যাপক সবিতা বিশ্বাস, পরিষদের সচিব মোঃ আবু বকর মানিক, পরিষদের বিভিন্ন ওয়ার্ডের সদস্যবৃন্দ ও নারী সদস্যবৃন্দ, পরিষদের কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ, বিভিন্ন পর্যায়ের রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ও এলাকার জনসাধারণ। সনাক-চাঁদপুরের ইয়েস ও ইয়েস ফ্রেন্ডস গ্রুপের সদস্যবৃন্দ সদর উপজেলা ভূমি অফিসের সেবা সম্পর্কিত বিষয়ে সুশাসন বৃদ্ধির লক্ষ্যে ৬নং মৈশাদী ইউনিয়নের বিভিন্ন স্থানে মাইকিং ও লিফলেট বিতরণের মাধ্যমে প্রচারণামূলক কার্যক্রম পরিচালনা করে।



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৫৮৭৭৫৪
পুরোন সংখ্যা