চাঁদপুর, মঙ্গলবার ১২ নভেম্বর ২০১৯, ২৭ কার্তিক ১৪২৬, ১৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • --
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৫৭-সূরা হাদীদ


২৯ আয়াত, ৪ রুকু, মাদানী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


২৬। আমি নূহ এবং ইব্রাহিমকে রাসূলরূপে প্রেরণ করিয়াছিলাম এবং আমি তাহাদের বংশধরগণের জন্যে স্থির করিয়াছিলাম নুবূওয়াত ও কিতাব, কিন্তু উহাদের অল্পই সৎপথ অবলম্বন করিয়াছিল এবং অধিকাংশই ছিল সত্যত্যাগী।


 


 


অপ্রয়োজনে প্রকৃতি কিছুই সৃষ্টি করে না। -শংকর।


 


 


কবর এবং গোসলখানা ব্যতীত সমগ্র দুনিয়াই নামাজের স্থান।


 


 


 


 


ফটো গ্যালারি
২টি বসতঘর, বৈদ্যুতিক সঞ্চালন লাইন, বীজতলা ক্ষতিগ্রস্ত
বুলবুলের কবল থেকে রক্ষা পেয়েছে হাজীগঞ্জ
কামরুজ্জামান টুটুল
১২ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের কবল থেকে রক্ষা পেয়েছে হাজীগঞ্জ উপজেলা। উপজেলার দ্বাদশগ্রাম ইউনিয়নের একটি দো-চালা বসতঘর এবং পৌর এলাকায় ১টি ঘর ক্ষতিগ্রস্ত হওয়া ছাড়া বড় ধরনের কোনো ক্ষয়ক্ষতি হয়নি বুলবুলের আঘাতে। তবে আরো ৩টি ঘরের যৎসামান্য ক্ষতি হয়েছে বলে নির্ভরযোগ্য সূত্র নিশ্চিত করেছে। বৈদ্যুতিক সঞ্চালন লাইনের ৫টি পিলার ভেঙ্গে গেছে এবং বেশ কয়েকটি স্থানে বিদ্যুতের তার ছিঁড়ে গেছে বলে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি ১-এর সূত্রে জানা গেছে। অপরদিকে তৈরি করা বীজতলার বেশ ক্ষতি হয়েছে। বুলবুলের আঘাতে হাজীগঞ্জে কেউ হতাহত হয়নি।



শুক্রবার বিকেলে ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাবে বৃষ্টিপাত শুরু হয়। এর মধ্যে রোববার বুলবুলের প্রচ- রেশের আঘাত হাজীগঞ্জের উপর দিয়ে বয়ে যায়। এর মধ্যে পৌরসভাধীন ৯নং ওয়ার্ডের কংগাইশ গ্রামের আটিয়া বাড়ির ইসমাঈল হোসেনের বসতঘর ও উপজেলার দ্বাদশগ্রাম ইউনিয়নের নাসিরকোট গ্রামের শাহজাহানের বসতঘরটি সম্পূর্ণ বিধ্বস্ত হয়। এছাড়াও হাটিলা পূর্ব ইউনিয়নের জামাল হোসেন ও টিপু সুলতান এবং দ্বাদশগ্রাম ইউনিয়নের দেওদ্রোন গ্রামের জাহাঙ্গীরের বসতঘর আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়।



একই সময়ে ঝড়ো হাওয়ায় বিভিন্ন এলাকায় পল্লী বিদ্যুতের ৫টি পিলার ভেঙ্গে গেছে এবং বিভিন্ন স্থানে বিদ্যুতের তারের উপর গাছ পড়ে বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়েছে। এতে প্রায় ৫ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে চাঁদপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১-এর কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে। সোমবার বিকেলের মধ্যে উপজেলার সর্বত্র বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইন স্বাভাবিক হতে শুরু করে।



উপজেলার দ্বাদশগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান খোরশেদ আলম বকাউল জানান, আমার ইউনিয়নের একটি দো-চালা ঘর ভেঙ্গে পড়ে গেছে। তবে বেশ কিছু গাছপালা আর বৈদ্যুতিক লাইনের ক্ষতি হয়েছে।



উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা (ইউএইচও) ডাঃ আনোয়ারুল আজিম বলেন, আলহামদুলিল্লাহ, ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের আঘাতে হতাহতের খবর নেই। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সসহ ইউনিয়ন স্বাস্থ কেন্দ্রগুলোতে এ ঘটনায় কেউ চিকিৎসা নিতে আসেনি।



চাঁদপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১-এর জেনারেল ম্যানেজার (জিএম) মোঃ কেফায়েত উল্যাহ্ জানান, বুলবুলের আঘাতে ৫টি পিলার ভেঙ্গে গেছে এবং বেশ কটি স্থানে গাছ উপড়ে পড়ে বিদ্যুতের তার ছিঁড়ে গেছে। এতে প্রায় ৫ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। তিনি বলেন, ক্ষতিগ্রস্ত পিলার ও বিদ্যুৎ সংযোগ আজ (সোমবার) বিকেলের মধ্যেই মেরামত সম্পন্ন হয়ে যাবে।



উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) বৈশাখী বড়ুয়া বলেন, ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের আঘাতে দুটি কাঁচাঘর সম্পূর্ণ বিধ্বস্ত হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্তদের সহযোগিতার বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাগ্রহণ করা হবে।



 



 



 



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৫৪৯৮১৯
পুরোন সংখ্যা