চাঁদপুর, মঙ্গলবার ১৯ নভেম্বর ২০১৯, ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ২১ রবিউল আউয়াল ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৫৮-সূরা মুজাদালা


২২ আয়াত, ৩ রুকু, মাদানী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


০৪। কিন্তু যাহার এ সামর্থ্য থাকিবে না, একে অপরকে স্পর্শ করিবার পূর্বে তাহাকে একাদিক্রমে দুই মাস সিয়াম পালন করিতে হইবে; যে তাহাতেও অসমর্থ, সে ষাটজন অভাবগ্রস্তকে খাওয়াইবে; ইহা এইজন্য যে, তোমরা যেনো আল্লাহর ও তাহার রাসূলে বিশ্বাস স্থাপন করো। এইগুলি আল্লাহর নির্ধারিত বিধান; কাফিরদের জন্য রহিয়াছে মর্মন্তুদ শাস্তি।


 


 


 


খাদ্য খাওয়া ও খাওয়ানোর চেয়ে খাদ্য উৎপাদনই মহত্তর কাজ।


-তাবিব।


 


 


যার দ্বারা মানবতা উপকৃত হয়, মানুষের মধ্যে তিনি উত্তম পুরুষ।


 


 


 


 


ফটো গ্যালারি
চাঁদপুর শহরে একেবারেই তুচ্ছ ঘটনায়
দু গ্রুপের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে আহত ১৫
শওকত আলী
১৯ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


একেবারেই তুচ্ছ ঘটনায় চাঁদপুর শহরে দুই গ্রুপের মধ্যে ২ দফা রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে কমপক্ষে ১৫ জন আহত হয়েছে বলে এলাকাবাসী ও হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে। এদের মধ্যে ৬ জন দেশীয় ধারালো অস্ত্রের আঘাতে ও বাঁশের পিটুনিতে গুরুতর রক্তাক্ত জখম হলে তাদেরকে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। মারাত্মক আহত হাসপাতালে ভর্তিকৃতরা হচ্ছে : হৃদয় (২৪), মোঃ রাসেদ ভূঁইয়া (২০), আবির হোসেন (২১), জনি (২৫), রাজু (২৫), সাদ্দাম হোসেন (২৪) ও মোঃ দেলোয়ার হোসেন (৪৬)। এদের সকলের বাড়ি শহরের ১৫নং বিটি রোড, জিটি রোড, জামতলা ও ফরিদগঞ্জ চির্কা চাঁদপুর এলাকায়। এদের কয়েকজন ছাত্রলীগের কর্মী-সমর্থক বলে জানা গেছে। এদের মধ্যে হৃদয়কে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকা রেফার করা হয়।



ছুরিকাঘাতে রক্তাক্ত জখম হওয়া জিটিরোড এলাকার হৃদয় (২৪)কে ১৫টি সেলাই দিয়ে মুমূর্ষু অবস্থায় কর্মরত চিকিৎসক ডাঃ মোঃ আনিছুর রহমান ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করেন। ঘটনার পর পর চাঁদপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ নাছিম উদ্দিন ও জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মোঃ আতাউর রহমান পারভেজসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতারা আহতদের হাসপাতালে দেখতে ছুটে আসেন এবং খোঁজ খবর নেন। ঘটনাটি ঘটেছে রোববার সন্ধ্যায় ও রাত সাড়ে ৮টায় চাঁদপুর শহরের বড় স্টেশন ও রেলওয়ে মাদ্রাসা রোডস্থ রাস্তার উপরে। এ ঘটনার সাথে শহরের ব্যাংক কলোনীর অপু, নয়ন, নাজমুল ও রিয়াদ নামে ছাত্রলীগের সাথে কজন যুবক জড়িত রয়েছে বলে মডেল থানা পুলিশের একটি সূত্র থেকে জানা গেছে।



এ ঘটনায় চাঁদপুর মডেল থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলে জানা গেছে। চাঁদপুর মডেল থানা পুলিশ ওই যুবকদের উপর হামলাকারী ছাত্রলীগ নামধারী যুবকদের আটকের জন্যে ব্যাপক অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে বলে জানা গেছে। এছাড়া জেলা ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা তাদেরকে আটকের জন্যে খুঁজে বেড়াচ্ছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত এ ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক উত্তেজনা রিরাজ করছে।



প্রত্যক্ষদর্শী ও আহতদের সাথে আলাপ করা হলে তারা জানান, রোববার সন্ধ্যায় ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতা-কর্মী শহরের পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে খ্যাত বড় স্টেশন রেলওয়ে এলাকায় ঘুরতে যায়। সেখানে গিয়ে পূর্বপরিচিত ছাত্রলীগ নামধারী কয়েকজন যুবকের সাথে তাদের দেখা হয়। এ সময় জেলা ছাত্রলীগ নেতা হৃদয় তাদেরকে উদ্দেশ্য করে ঠাট্টার ছলে বলেন, সারাক্ষণ কি এখানে পড়ে থাকো নাকি। এ কথা নিয়েই উভয়ের মধ্যে কথা কাটাকাটি এবং এক পর্যায়ে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। পরে উপস্থিত এলাকাবাসী তাদেরকে ঘটনাস্থল থেকে চলে যাওয়ার জন্যে তাৎক্ষণিক ছাড়িয়ে দিয়ে ঘটনাস্থল ত্যাগ করায়। এরই মধ্যে ওই ঘটনার কয়েকজন যুবক শহরের নিশি বিল্ডিং, কাচ্চা কলোনী ও ৩নং কয়লা ঘাট এলাকার ১০/১২ জন স্থানীয় যুবকসহ পরিকল্পিতভাবে শহরের বড় স্টেশন এলাকার মাদ্রাসা রোডস্থ এলাকায় দল বেঁধে বসে থাকে। রাত অনুমান সাড়ে ৮টায় ছাত্রলীগের ৯ জন নেতা-কর্মী মাদ্রাসা রোড এলাকা দিয়ে মোটরসাইকেলযোগে যাওয়ার সময় ওঁৎপেতে থাকা ওই যুবকরা মোটরসাইকেলের উপর বাঁশের লাঠি ও দেশীয় অস্ত্র নিয়ে আক্রমণ চালায়। ছাত্রলীগ নামধারী বখাটে যুবকরা তাদের উপর এলোপাতাড়িভাবে আক্রমণ করে রক্তাক্ত জখম ও তাদের শরীরের বিভিন্ন স্থানে মারাত্মকভাবে আঘাত করে। ঘটনা ঘটিয়ে ওই বখাটে যুবকরা পালিয়ে যায়। পরে এলাকাবাসী গুরুতর আহত ওই যুবকদের উদ্ধার করে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসার জন্যে ভর্তি করে। আহতদের মধ্যে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ছাত্রলীগ নেতা হৃদয় (২৪)কে মুমূর্ষু অবস্থায় প্রায় ১৫টির মতো সেলাই দিয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ঢাকা মেডিকেলে রাত পৌনে ১০টায় রেফার করা হয়। ভর্তিকৃত বাকি আহতদের চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। বাকি আহতদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়।



এ ব্যাপারে কর্মরত চিকিৎসক ডাঃ আনিছুর রহমান জানান, আহত হৃদয়ের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করা হয়েছে। তার শরীরে কয়েকটি ছুরিকাঘাত করায় অনেকগুলো সেলাই দেয়া হয়।



এ ব্যাপারে সোমবার রাত সাড়ে ৬টায় চাঁদপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ নাছিম উদ্দিন জানান, কোনো কারণ ছাড়াই এ ঘটনা ঘটে। নিজেদের মধ্যে কথা কাটাকাটি নিয়ে এ ঘটনা হয়। আসামী চিহ্নিত হয়েছে। কাগজপত্র ঠিক করে আহতরা মামলা করবে। তবে মামলার প্রস্তুতি চলছে।



 



 



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
১০৭৬৩১৭
পুরোন সংখ্যা