চাঁদপুর, বুধবার ৪ ডিসেম্বর ২০১৯, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ৬ রবিউস সানি ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৫৮-সূরা মুজাদালা


২২ আয়াত, ৩ রুকু, মাদানী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


১৯। শয়তান উহাদের উপর প্রভাব বিস্তার করিয়াছে; ফলে উহাদিগকে ভুলাইয়া দিয়াছে আল্লাহর স্মরণ। উহারা শয়তানেরই দল। সাবধান! শয়তানের দল অবশ্যই ক্ষতিগ্রস্ত।


 


 


 


জনগণ যদি নেতা নির্বাচনে ভুল করে তাতে জনগণেরই দুর্গতি বাড়ে।


-প্লেটো।


 


 


যাবতীয় পাপ থেকে বেঁচে থাকার উপায় হলো রসনাকে বিরত রাখা।


 


 


 


ফটো গ্যালারি
আজ মতলব মুক্ত দিবস
রেদওয়ান আহমেদ জাকির
০৪ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


আজ ৪ ডিসেম্বর মতলব মুক্ত দিবস। ১৯৭১ সালের এদিনে দখলদার পাকিস্তানী বাহিনী মতলবের মাটি থেকে বিতাড়িত হয় এবং মতলব স্বাধীন হয়।



১৯৭১ সালের ৮ এপ্রিল ঢাকা থেকে সড়কযোগে পাকবাহিনী মতলবে আসে এবং থানা দখল করে তাদের ক্যাম্প স্থাপন করে। তারা মতলবের বিভিন্ন এলাকায় নির্বিচারে মানুষ হত্যা করে এবং ব্যাপক ধ্বংসযজ্ঞ চালায়। পাকিস্তানী সৈন্য ও তার এদেশীয় দোসররা এনায়েতনগর গ্রামে ৫ হাজার ঘরবাড়ি জ্বালিয়ে দেয় এবং বহু নারীর সম্ভ্রম কেড়ে নেয়। তখন মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার কবির আহমদের নেতৃত্বে মুক্তিযোদ্ধারা মতলবের খিদিরপুর, বহরী, বাগানবাড়ি, মোহন ও এনায়েতনগর এলাকায় ৫টি ঘাঁটি তৈরি করে হানাদার বাহিনী মোকাবেলা করে। স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধারা দখলদার পাকবাহিনীর বিরুদ্ধে লালারহাট, বোয়ালমারি এবং নাগদাসহ আরো কটি স্থানে সম্মুখযুদ্ধে লিপ্ত হয়। মুক্তিযোদ্ধা এবং সর্বস্তরের জনগণের প্রবল প্রতিরোধের মুখে অবশেষে ৪ ডিসেম্বর পাকদখলদার বাহিনী নদীপথে মতলব ছাড়তে বাধ্য হয়। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন মতলবের ১৮ জন মু্িক্তযোদ্ধা শহীদ হন।



মতলব মুক্ত দিবস পালন উপলক্ষে প্রতি বছরের মতো এবারও মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ব্যাপক কর্মসূচি হাতে নিয়েছে বলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফাহমিদা হক জানান।



 



 



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
১২৩৫৯
পুরোন সংখ্যা