চাঁদপুর, সোমবার ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ১ পৌষ ১৪২৬, ১৮ রবিউস সানি ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৫৯-সূরা হাশ্‌র


২৪ আয়াত, ৩ রুকু, মাদানী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


১০। যাহারা উহাদের পরে আসিয়াছে, তাহারা বলে, 'হে আমাদের প্রতিপালক! আমাদিগকে এবং ঈমানে অগ্রণী আমাদের ভ্রাতাগণকে ক্ষমা কর এবং মুমিনদের বিরুদ্ধে আমাদের অন্তরে বিদ্বেষ রাখিও না। হে আমাদের প্রতিপালক! তুমি তো দয়ার্দ্র, পরম দয়ালু।'


 


 


 


কারো অতীত জেনো না তার বর্তমানকে জানো এবং সে জানাই যথার্থ। -এডিসন।


 


 


যারা অতি অভাবগ্রস্ত, দীন-দরিদ্র কেবল তারা ভিক্ষা করতে পারে।


 


ফটো গ্যালারি
বালিয়া ওয়ার্ড কমিউনিটি পুলিশিংয়ের সেক্রেটারী হত্যা মামলার আসামী
স্টাফ রির্পোটার
১৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


হত্যা মামলার প্রধান আসামী হয়েও বালিয়া ২নং ওয়ার্ড কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বে আছেন হাজী মোঃ বিল্লাল হোসেন খান। এ নিয়ে জনমনে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।



স্থানীয় একাধিক ব্যক্তি জানান, বিল্লাল হোসেন খান একজন জুলুমবাজ, নারী কেলেঙ্কারীতে জড়িত ও একটি হত্যা মামলার ১ নম্বর আসামী। অথচ এমন একজন লোকই ওয়ার্ড কমিউনিটি পুলিশিংয়ের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দীর্ঘদিন ধরে দায়িত্ব পালন করছেন। যা আইনগতভাবে নিয়মবহির্ভূত। যেখানে কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির সাংগঠনিক কার্যক্রম চালানোর ক্ষেত্রে একজন ব্যক্তিকে অবশ্যই সৎ এবং আদর্শবান হতে হবে। সেখানে এমন খারাপ প্রকৃতির লোক এবং একজন হত্যা মামলার প্রধান আসামী হয়ে কী করে কমিউনিটি পুলিশিংয়ের দায়িত্বে থাকে? এমন নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।



এ ব্যাপারে ২নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ হেলাল গাজী বলেন, বিল্লাল খানের বিরুদ্ধে আপনারা যেসব তথ্য পেয়েছেন তা সঠিক। কয়েক বছর পূর্বে উনি নারী কেলেঙ্কারীতে ধরা খেয়ে দ্বিতীয় বিয়ে করেছেন এবং একটি হত্যা মামলার আসামী হয়েছেন।



২নং ওয়ার্ডের মেম্বার মোঃ জাহিদ হোসেন খান বলেন, মূলত উনি আমার জেঠাতো ভাই। ওনার দু'টি ঘটনা আমি জানি। এর মধ্যে প্রথমটি হলো প্রায় ১০ বছর আগে ফরিদগঞ্জের ধানুয়ায় ঝিলে মাছ শিকারের অপরাধে নাইটগার্ড নারু ত্রিপুরাকে দিয়ে শাহ জামালকে খুন করায়। ওই মামলায় তিনি ১ নাম্বার আসামী। এছাড়া তিনি পরকীয়ার সাথে জড়িত ছিলেন। মিনু নামে এক মহিলার সাথে বিবাহ হয়। পরে মিনুর সাবেক স্বামীর চেষ্টায় মিনুর সাথে বিবাহ বিচ্ছেদ হয়। এ ঘটনায় এলাকায় স্থানীয়ভাবে সালিস হয়। কিছুদিন আগে সাজানো চুরির ঘটনায় এক যুবককের উপর নির্যাতন করেন।



চাঁদপুর মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক (অপারেশ) ও সিপিআই মোঃ আব্দুর রব জানান, আমাদের কাছে এমন কোনো অভিযোগ আসেনি। এসব অভিযোগ যদি আসে এবং তা সত্য প্রমাণিত হয় তাহলে সে তার পদ হারাবে।



এ বিষয়ে অভিযুক্ত বালিয়া ২নং ওয়ার্ড কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির সাধারণ সম্পাদক হাজী মোঃ বিল্লাল হোসেন বলেন, আমার এলাকায় গিয়ে খবর নিয়ে দেখেন আমার কোনো দুর্নাম আছে কিনা। আমার নামে যে মামলা হয়েছে তাতো অনেক বছর আগেই মীমাংসা হয়ে গেছে। যারা আমার বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ দিয়েছে তা সঠিক নয়।



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৮৩১০২২
পুরোন সংখ্যা