চাঁদপুর, শনিবার ১৮ জানুয়ারি ২০২০, ৪ মাঘ ১৪২৬, ২১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • --
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৬১-সূরা সাফ্ফ


১৪ আয়াত, ২ রুকু, মাদানী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


১১। উহা এই যে, তোমরা আল্লাহ ও তাঁহার রাসূলে বিশ্বাস স্থাপন করিবে এবং তোমাদের ধন-সম্পদ ও জীবন দ্বারা আল্লাহর পথে জিহাদ করিবে। ইহাই তোমাদের জন্য শ্রেয় যদি তোমরা জানিতে!


 


 


দুঃখীদের মনের জোর কম থাকে।


-রবার্ট হেরিক।


 


 


যে ব্যক্তি বিদ্যার জন্য জীবন উৎসর্গ করেছেন, তিনি মৃত্যুঞ্জয়ী।


 


 


ফটো গ্যালারি
ফরিদগঞ্জে এ প্রথম শুরু হয়েছে ফুলের চাষ
ফুল বিক্রি করে স্বাবলম্বী হতে চায় দুই বন্ধু
এমকে মানিক পাঠান
১৮ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


ধান চাষের চেয়ে ফুলের চাষ লাভজনক, তা ভেবে দুই বন্ধু মিলে প্রায় ৩০ শতাংশ জায়গায় প্রায় দুই লাখ টাকা পুঁজি খাটিয়ে ফুলের চাষ শুরু করেছে। প্রতিদিনই ফুলের বাগান সাজানো নিয়ে এখন ব্যস্ত সময় পার করছে দু বন্ধু মোঃ রিপন ও আনোয়ার। এ ফুলের চাষ হচ্ছে ফরিদগঞ্জ পৌরসভার পূর্ব বড়ালী গ্রামে।



এদিকে ফরিদগঞ্জে এ প্রথম ফুলের চাষের খবর পেয়ে প্রতিদিনই ওই দুই বন্ধুর সাজানো ফুলের বাগানে ফুলের চাষ দেখতে উৎসুক জনতা ভিড় করছে। এ বাগানের নাম দেয়া হয়েছে আনোয়ার নার্সারী। গত বুধবার উপজেলা নির্বাহী অফিসার শিউলী হরি সরজমিনে আনোয়ারের নার্সারী পরিদর্শন করে তিনি এখান থেকে বেশ কটি ফুলের চারা ক্রয় করে নেন।



বৃহস্পতিবার সরজমিনে এ ফুলের বাগানের পাশে গেলে বিভিন্ন ফুলের সুবাস ভেসে আসতে থাকে নাকে। ফুলের গন্ধে মৌ মৌ করছে পুরো এলাকা। দূর থেকে এ ফুলের বাগানের অপরূপ সৌন্দর্য অনেককেই আকৃষ্ট করছে। বাগানটির চারিদিকে জালের বেষ্টনী দিয়ে রাখা হয়েছে।



ফুল চাষ করা দুই বন্ধুর একজন মোঃ রিপনের সাথে কথা বলে জানা যায়, এ জায়গায় একসময়ে ধানের আবাদ হতো। কিন্তু লাভ না হওয়ায় এ জায়গায় ধান চাষ আর করছে না। আমরা দুই বন্ধু মিলে প্রায় ৩০ শতাংশ জায়গা ইজারা নিয়ে তাতে ফুলের চাষ করি। গত ৬ মাস পূর্বে শুরু করি ফুলের চাষ। বগুড়া জেলা থেকে বিভিন্ন প্রজাতির ফুলের চারা এনে এ বাগানে রোপণ করা হয়েছে।



বর্তমানে ওই ফুলের বাগানে গোলাপ, রজনীগন্ধা, হাসনাহেনা, গাঁদা, অ্যানকোর, জবা, দোপাট্টা, কচমচ, ডালিয়া, ক্যালেন ভূনা, নয়নতারা , মোরগফুল, ড্যালটার্স, অ্যালোবেরাসহ আরো নাম জানা-অজানা হরেক রকম ফুলের চাষ হচ্ছে এ বাগানে। এ বাগান থেকে ফুলপ্রেমী নারী-পুরুষরা প্রতিদিনই যার যার পছন্দের ফুল ক্রয় করে নিয়ে যায়।



ফুলের বাগানের মালিক রিপন ও আনোয়ার বলেন, এ জায়গায় ফুলের চাষ করে স্বাবলম্বী হওয়ার আশায় প্রায় দুই লাখ টাকা পুঁজি নিয়ে শুরু হয় ফুলের চারা রোপণ। গত ৬ মাসে প্রায় ৮০ হাজার টাকার ফুলের চারা এ বাগান থেকে বিক্রি করা হয়েছে।



তারা জানায়, বৈরী আবহাওয়া না থাকলে এ ফুলের চাষ করা বাগান থেকে চারা বিক্রি করে লাভবান হবেন।



ফরিদগঞ্জে এ প্রথম ফুলের চাষ প্রসঙ্গে উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা নূরুল আলম ভুট্টো বলেন, ফুলের চাষ লাভজনক। তাই পূর্ব বড়ালী গ্রামে এখন ফুলের চাষে আগ্রহী হয়েছে রিপন ও আনোয়ার। যার ফলে নিজেকে স্বাবলম্বী করে নতুন কর্মসংস্থানের এক নূতন সুযোগ তৈরি হয়েছে। গত বুধবার উপজেলা নির্বাহী অফিসার মহোদয় বাগানটি পরিদর্শন করে মুগ্ধ হয়েছেন।



ফরিদগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার শিউলী হরি এ প্রতিনিধিকে বলেন, আমি সরজমিনে ওই ফুলের চাষের বাগান দেখে তা থেকে নিজে বেশ কিছু ফুলের চারাও ক্রয় করে এনেছি। ফুলের চাষ এখন লাভজনক। এটাকে সবাই ইতিবাচক হিসেবে দেখে সবার উচিত এ ফুল চাষকে উদ্বুদ্ধ করা।



 



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৭৫০৭৬২
পুরোন সংখ্যা