চাঁদপুর, শনিবার ১৫ আগস্ট ২০২০, ৩১ শ্রাবণ ১৪২৭, ২৪ জিলহজ ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৭৪-সূরা মুদ্দাছ্ছির


৫৬ আয়াত, ২ রুকু, মক্কী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


৫। পৌত্তলিকতা পরিহার করিয়া চল,


৬। অধিক পাওয়ার প্রত্যাশায় দান করিও না।


৭। এবং তোমার প্রতিপালকের উদ্দেশ্যে ধৈর্য ধারণ কর।


৮। যেদিন শিংগায় ফুৎকার দেওয়া হইবে


 


মানুষের সর্বোৎকৃষ্ট শিক্ষকই হল মহৎ ব্যক্তিদের আত্মজীবনী।


-ওরসন স্কোয়ার ফাউলার।


 


 


যার দ্বারা মানবতা উপকৃত হয়, তিনিই মানুষের মধ্যে শ্রেষ্ঠ।


 


 


ফটো গ্যালারি
পুরাণবাজার শহর রক্ষাবাঁধের ভাঙ্গন কবলিত স্থানে বালু ভর্তি জিও ব্যাগ ফেলা অব্যাহত
শেষ রক্ষা হবে কিনা তা নিয়ে পুরাণবাজারবাসীর সংশয়
বিমল চৌধুরী
১৫ আগস্ট, ২০২০ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


চাঁদপুর শহরস্থ পুরাণবাজার হরিসভা এলাকার ভাঙ্গন কবলিত শহর রক্ষাবাঁধ রক্ষায় বালু ভর্তি জিও ট্যাঙ্রে ব্যাগ ফেলা অব্যাহত রয়েছে। তবে শেষ রক্ষা হবে কিনা তা নিয়ে রয়েছে পুরাণবাজারবাসীর মনে সংশয়। গতকাল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রধান প্রকৌশলী (ডিজাইনার) মোঃ হারুনুর রশিদ, পানি উন্নয়ন বোর্ড কুমিল্লা পূর্বাঞ্চলের প্রধান প্রকৌশলী জহির উদ্দিন আহম্মেদ, পানি উন্নয়ন বোর্ড কুমিল্লার তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মোঃ জহিরুল ইসলাম। তারা শহর রক্ষাবাঁধের বিভিন্ন অংশ ঘুরে ফিরে দেখেন এবং তা রক্ষায় প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাগ্রহণের আশ্বাস প্রদান করেন। তবে প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দ না পেলে বাঁধ রক্ষা কঠিন হবে বলে আকারে ইঙ্গিতে তা বুঝানোর চেষ্টা করেন। প্রকৌশলী মোঃ হারুনুর রশিদ বলেন, আপদকালীন সময় ভাঙ্গন প্রতিরোধে বালু ভর্তি জিও ট্যাঙ্ ব্যাগের বিকল্প নেই। তবে বাঁধ রক্ষায় স্থায়ী প্রকল্প গ্রহণ করতে হবে। এজন্যে আমরা প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দ চেয়ে মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছি। যদি তা পাস হয়ে আসে, তাহলে পরিকল্পিত ডিজাইন অনুযায়ী কাজ করা যাবে। ডিজাইনার মোঃ হারুনুর রশিদকে বাঁধের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে অবহিত করেন পানি উন্নয়ন বোর্ড চাঁদপুরের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ আক্তারুজ্জামান।



গতকাল সন্ধ্যা পর্যন্ত প্রায় ৬ হাজারের মত বালু ভর্তি জিও ব্যাগ ভাঙ্গন কবলিত স্থানে ফেলা হয়েছে। তবে গত ১৩ আগস্ট রাতে যে ভাঙ্গন প্রক্রিয়া দেখা দিয়েছিল তা বর্তমান সময় না থাকলেও ভাঙ্গন প্রক্রিয়া যে পুনরায় শুরু হবে না সে আশঙ্কা উড়িয়ে দিচ্ছেন না পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তাগণ। তাদের ধারণা নদীতে যে ভাবে ঘূর্ণাবর্তের সৃষ্টি হচ্ছে, আর উজানের পানি ধারাবাহিকভাবে এস্থান দিয়ে যেভাবে প্রবাহিত হচ্ছে, তাতে ভাঙ্গন সম্ভাবনা রয়ে গেছে। তবে তা প্রতিরোধে তাদের সার্বক্ষণিক প্রচেষ্টা রয়েছে বলেও তারা জানান।



যতই প্রতিরোধ ব্যবস্থা থাকুক না কেন, পুরানবাজারবাসীর মনে ভাঙ্গন আতঙ্ক কাটছে না। শেষ পর্যন্ত এলাকা টিকবে কিনা এ নিয়ে রয়েছে তাদের মনে বিরাট সংশয়। তারা মনে করেন গত ২০১৯ সালের আগস্ট মাসের ৩ তারিখ যখন হঠাৎ করেই রাতের অাঁধারে এস্থানের শহর রক্ষাবাঁধে ভাঙ্গন দেখা দেয়, তখন মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপুমনি এমপি, পানি সম্পদ উপমন্ত্রী এনামুল হক শামীম এমপি, সচিবসহ সরকারের উচ্চ পর্যায়ের বিভিন্ন কর্মকর্তাদের ত্বরিৎগতিতে ঘটনাস্থল পরিদর্শনপূর্বক ভাঙ্গন প্রতিরোধে প্রয়োজনীয় সকল ব্যবস্থাগ্রহণের আশ্বাস প্রদান করা হয়। কিন্তু এক বছর অতিবাহিত হলেও এ স্থানে ভাঙ্গন প্রতিরোধে বড় ধরনের কোনো প্রকল্প গ্রহণ করা হয়নি। সাময়িকভাবে ফেলা হচ্ছে বালু ভর্তি জিও ট্যাঙ্রে ব্যাগ। যা বড় ধরনের ভাঙ্গন প্রতিরোধে অনেকটাই অকার্যকর। দীর্ঘ এক বছরের মাথায় যদি পরিকল্পিতভাবে ভাঙ্গন প্রতিরোধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাগ্রহণ করা হতো তাহলে হয়তো শহর রক্ষাবাঁধ এভাবে ভেঙ্গে যেত না। রক্ষা পেত বসতবাড়িসহ নদীতে নিমজ্জিত মানুষের সহায় সম্পত্তি। তারা খুব আক্ষেপের সাথে বলেন, বাঁধ রক্ষাসহ ভাঙ্গনরোধে পানি উন্নয়ন বোর্ড ৪২০ কোটি টাকা চেয়ে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ে প্রকল্প পাঠালেও তা অনুমোদনের জন্যে কোনো কার্যকর ব্যবস্থা নাকি গ্রহণ করা হচ্ছে না। বিষয়টি দেখার জন্যে চাঁদপুরের এমপি শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপুমনির প্রতি পুরাণবাজারবাসী বিনীত অনুরোধ জানান। তারা মনে করেন হাইমচর রক্ষায় ডাঃ দীপুমনি এমপি যে ভূমিকা রেখেছেন জেলাবাসী তা চিরকাল মনে রাখবে। তেমনিভাবে চাঁদপুর শহর রক্ষায়ও তিনি সেই অবদান রাখবেন বলে তাদের বিশ্বাস।



 



 


করোনা পরিস্থিতি
বাংলাদেশ বিশ্ব
আক্রান্ত ৩,৩৯,৩৩২ ২,৯২,০১,৬৮৫
সুস্থ ২,৪৩,১৫৫ ২,১০,৩৫,৯২৬
মৃত্যু ৪,৭৫৯ ৯,২৮,৬৮৬
দেশ ২১৩
সূত্র: আইইডিসিআর ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।
আজকের পাঠকসংখ্যা
৫৯৯০৪৬
পুরোন সংখ্যা