চাঁদপুর। শুক্রবার ২১ এপ্রিল ২০১৭। ৮ বৈশাখ ১৪২৪। ২৩ রজব ১৪৩৮

বিজ্ঞাপন দিন

বিজ্ঞাপন দিন

সর্বশেষ খবর :

  • --
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

২৭-সূরা নাম্ল 


৯৩ আয়াত, ৭ রুকু, ‘মক্কী’


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


৯২। আমি আরও আদিষ্ট হইয়াছি, কুরআন তিলাওয়াত করিতে; অতএব যে ব্যক্তি সৎপথ অনুসরণ করে, সে সৎপথ অনুসুরণ করে নিজেরই কল্যাণের জন্যে। আর কেহ ভ্রান্ত পথ অবলম্বন করিলে তুমি বলিও, ‘আমি তো কেবল সতর্ককারীদের মধ্যে একজন।   


দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


 

একজন ভালো প্রশাসকই একজন ভালো রাজা হতে পারে।                      -মিচেল জিন। 


ধন দৌলত ফিরিয়া আসে এবং একটি শুধু কর্মই সঙ্গে থাকে।  


ফটো গ্যালারি
স্কুল ছাত্রীর আত্মহত্যা ॥ মাঝির লাশ উদ্ধার
মিজানুর রহমান ॥
২১ এপ্রিল, ২০১৭ ০১:১১:২৯
প্রিন্টঅ-অ+


 গতকাল ২০ এপ্রিল বৃহস্পতিবার দু’টি অপমৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। ফরিদগঞ্জ মূলপাড়া গ্রামের শাহিদা আকতার (১৫) নামে এক স্কুল ছাত্রী বিষপানে আত্মহত্যা করেছে এবং চাঁদপুর মডেল থানা পুলিশ সদর উপজেলার রাজরাজেশ্বর চর থেকে হাবিবুল্লাহ কাজী (৪০) নামে এক ট্রলার মাঝির লাশ উদ্ধার করেছে। মৃতদেহ দুটির আজ শুক্রবার ময়নাতদন্ত হবে বলে জানিয়েছে পুলিশ।  

    ফরিদগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক মমিন জানান, ২নং বালিথুবা ইউনিয়নের মূলপাড়া দর্জি বাড়ির শাহজাহান মিয়ার মেয়ে শাহিদা আক্তার গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে পাশের মজুমদার বাড়ির কাছে কীটনাশক সেবন করে বিষের যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছিল। তখন আশপাশের লোকজন মেয়েটিকে উদ্ধার করে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্মরত চিকিৎসক তাকে মৃত বলে জানান। পরে খবর পেয়ে এসআই মমিন ফরিদগঞ্জ থেকে চাঁদপুর হাসপাতালে আসেন এবং পোস্টমর্টেমের জন্য লাশ মর্গে প্রেরণের ব্যবস্থা করেন। মেয়েটি মূলপাড়া হাইস্কুলের নবম শ্রেণীতে পড়তো। গতকাল সে স্কুলে পরীক্ষায়ও অংশ নেয়। মেয়েটি কী কারণে আত্মহত্যা করেছে বাবা-মা পুলিশকে কিছুই জানাতে পারেনি।

    অপর ঘটনায় চাঁদপুর মডেল থানার উপ-পরির্দশক সিরাজুল ইসলাম জানান, নিজের ট্রলারে মৃত অবস্থায় হাবিবুল্লাহ নামে এক ব্যক্তির লাশ গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় চেয়ারম্যানের স্টেশনের পূর্ব পাশের বলিয়ার চর থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। তার বাড়ি চাঁদপুর শহরের যমুনা রোডের শেষ মাথায়। বাবার নাম মৃত মনজিল কাজী।

    নিহত হাবিবুল্লাহর খালাতো ভাই জানান, বুধবার ট্রলার ভাড়া নিয়ে চাঁদপুর লঞ্চঘাট থেকে শরীয়তপুরে যায় তার ভাই। ফেরত আসার সময় ঝড়ের কবলে পড়েন। ওইদিন রাত সাড়ে আটটা পর্যন্ত তার সাথে মোবাইলে কথা হয়। তখন তিনি চেয়ারম্যান স্টেশনের কাছে চরে ট্রলার নিয়ে আছেন বলে জানান। ঝড় বৃষ্টি কমলে রওনা দিবেন বলে তিনি জানান। পরের দিন গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল থেকে তার মোবাইলে অনবরত কল করা হলেও রিং ধরছে না। বিকেল পাঁচটার দিকে চরের এক কৃষক ক্ষেতে কাজ শেষে বাড়ি ফেরার সময় দেখেন একটা ট্রলার চরে আটকা পড়ে আছে। আর একজন লোক থাকলেও কোনো সাড়া শব্দ নেই। ঘটনাটি রাজরাজেশ্বর ইউপি চেয়ারম্যান হাজী হযরত আলী বেপারীকে জানালে তিনি গ্রাম পুলিশ পাঠিয়ে নিশ্চিত হন ট্রলারে মাঝি হাবিবুল্লাহর লাশ পড়ে আছে। এরপর চেয়ারম্যান থানায় খবর দিলে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্যে মর্গে প্রেরণ করেন। দুটি ঘটনায় সংশ্লিষ্ট থানায় পৃথক দু’টি অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে।

 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৩৬২৮৩৫
পুরোন সংখ্যা