চাঁদপুর, বুধবার ৩ এপ্রিল ২০১৯, ২০ চৈত্র ১৪২৫, ২৬ রজব ১৪৪০
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • এক কিংবদন্তীর প্রস্থান চাঁদপুরবাসী শোকাহত
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৪৮-সূরা ফাত্হ্

২৯ আয়াত, ৪ রুকু, ‘মাদানী

১২। না, তোমরা ধারণা করিয়াছিলে যে, রাসূল ও মু’মিনগণ তাহাদের পরিবার-পরিজনের নিকট কখনই ফিরিয়া আসিতে পারিবে না এবং এই ধারণা তোমাদের অন্তরে প্রীতিকর মনে হইয়াছিল; তোমরা মন্দ ধারণা করিয়াছিলে, তোমরা তো ধ্বংসমুখী এক সম্প্রদায়।





 


মৃত্যু আরেক জীবন, সম্মানের সঙ্গে আমরা তার কাছে মাথা নত করি।              

-আলেকজান্ডার।


কাউকে অভিশাপ দেওয়া সত্যপরায়ণ ব্যক্তির উচিত নয়।





 


ফটো গ্যালারি
ল্যাপটপ ব্যাটারির স্বল্পায়ু
তামজীদ রহমান লিও
০৩ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


আয়ু বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ল্যাপটপের ব্যাটারি দুর্বল হয়ে যাওয়া খুব সাধারণ একটি সমস্যা। তবে কয়েকটি পরামর্শ মেনে চললে ল্যাপটপের ব্যাটারির আয়ু বেশ খানিকটা বাড়ানো সম্ভব।



 



ব্যাটারি সেভার মুড : প্রতিটি ল্যাপটপেই ব্যাটারি সেভার মুড থাকে। এই মুড চালু করলে ল্যাপটপের সেটিংসে ব্যাপক পরিবর্তন সাধিত হয়। স্ক্রিনের ব্রাইটনেস কমিয়ে ব্যাকআপ প্রোগ্রামসহ অপ্রয়োজনীয় আরো অনেক কিছু স্বয়ংক্রিয়ভাবে বন্ধ করে দেয় এই মুড। ফলে ব্যাটারির ওপর চাপ অনেক কমে যায়।



 



অব্যবহৃত ডিভাইস এবং পোর্ট ডিজেবল : ব্যাটারির অতিরিক্ত চার্জক্ষয় রোধের সবচেয়ে ভালো উপায় হলো ল্যাপটপের অব্যবহৃত ডিভাইস ও পোর্টগুলো ডিজেবল রাখা। যে পোর্ট বা যে ডিভাইসটি যখন প্রয়োজন পড়বে, শুধু তখনই তা ল্যাপটপের সঙ্গে সংযুক্ত করুন। অযথা সব সময় সংযুক্ত করে রাখলে ব্যাটারির চার্জ দ্রুত ক্ষয়, আয়ু কমে যায়।



 



সেটিংস পরিবর্তন : একটি নির্দিষ্ট সেটিংস ব্যবহার না করে সময় অনুযায়ী আলাদা সেটিংস ব্যবহার করুন; যেমন, দিনের বেলা ল্যাপটপের কি-বোর্ডের ব্যাকলাইট চালু রাখার কোনো প্রয়োজন পড়ে না। সে ক্ষেত্রে দিনে তা বন্ধ রাখাই শ্রেয়। পাশাপাশি ল্যাপটপের রেজল্যুশন সাধারণ রাখুন। অযথা সব সময় হাই রেজল্যুশন মুড ব্যবহার না করাই উত্তম। এতে ব্যাটারি দীর্ঘস্থায়ী হবে।



 



একসঙ্গে অনেক সফটওয়্যার ব্যবহার : শুধু হার্ডওয়্যারই নয়, সফটওয়্যারও ব্যাটারির চার্জ শেষ করার ক্ষেত্রে বড় ভূমিকা পালন করে। ল্যাপটপে যখন একসঙ্গে অনেকগুলো প্রোগ্রাম বা সফটওয়্যার চালু থাকে, ব্যাটারির ওপর বেশ চাপ পড়ে। সে ক্ষেত্রে ল্যাপটপ ও ব্যাটারি দুটিই ক্ষতিগ্রস্ত হয়।



ব্যাটারির যত্ন : ব্যাটারির আয়ু বাড়াতে চাইলে এটির ব্যবহারে যত্নশীল হতে হবে। ল্যাপটপ পুরো চার্জ হয়ে গেলে চার্জে লাগানো অবস্থায় ল্যাপটপ ব্যবহার না করে কানেকশন খুলে ব্যবহার করলে ব্যাটারি ভালো থাকবে। প্রয়োজনের অতিরিক্ত চার্জ দিলে বা সর্বদাই চার্জে লাগিয়ে ল্যাপটপ ব্যবহার করলে অতি দ্রুত ব্যাটারির আয়ু কমে যাবে।



 



টিউন-আপ : ল্যাপটপে সি ড্রাইভে এটা-ওটা রেখে ভরিয়ে না ফেলে নির্দিষ্ট ড্রাইভে রাখলে সুন্দর পারফরম্যান্স পাওয়া যায়, ফলে ব্যাটারির ওপরও চাপ কমে।



 



একইভাবে ডেস্কটপও যতটা সম্ভব খালি রাখা উচিত। ল্যাপটপের ডিফ্র্যাগমেন্ট অপশন ব্যবহার করলে সি ড্রাইভের এলোমেলো ডাটাগুলো গোছানো অবস্থায় আসে। উইন্ডোজ ৭, ৮ বা ১০-এ এটি আগে থেকেই দেওয়া থাকে। অন্য সংস্করণের ক্ষেত্রে ডিফ্র্যাগমেন্ট সফটওয়্যার ব্যবহার করতে হয়।



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৮৪৪২৬৮
পুরোন সংখ্যা