চাঁদপুর, শনিবার ২০ এপ্রিল ২০১৯, ৭ বৈশাখ ১৪২৬, ১৩ শাবান ১৪৪০
jibon dip
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৪৮-সূরা ফাত্হ্


২৯ আয়াত, ৪ রুকু, মাদানী


১। হে মুমিনগণ! আল্লাহ ও তাঁহার রাসূলের সমক্ষে তোমরা কোন বিষয়ে অগ্রণী হইও না এবং আল্লাহকে ভয় কর আল্লাহ সর্বশ্রোতা, সর্বজ্ঞ।


২। হে মুমিনগণ। তোমরা নবীর কণ্ঠস্বরের উপর নিজেদের কণ্ঠস্বর উঁচু করিও না এবং নিজেদের মধ্যে যেভাবে উচ্চস্বরে কথা বল তাহার সহিত সেইরূপ উচ্চস্বরে কথা বলিও না; কারণ ইহাতে তোমাদের কর্ম নিষ্ফল হইয়া যাইবে তোমাদের অজ্ঞাতসারে।


 


 


 


assets/data_files/web

মনের যাতনা দেহের যাতনার চেয়ে বেশি। -উইলিয়াম হ্যাজলিট।


 


ঝগড়াটে ব্যক্তি আল্লাহর নিকট অধিক ক্রোধের পাত্র।


 


 


ফটো গ্যালারি
আমাদের ভালোবাসার গল্প
জমির হোসেন
২০ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


ভালোবাসা হৃদয়ের আবেগে ভরা মধুময় একটি শব্দ। যার গভীরতা এতো বেশি যে পরিমাপের কোনো একক নেই। ভালোবাসা বিস্তীর্ণ হয়ে পাখা মেলে আছে মানব-মানবীর উপর। এর কোন সীমাবদ্ধতাও নেই এবং এককভাবে কারো উপর নির্ভরও করে না রংহীন ভালোবাসা। নেই কোনো বিকৃত রূপ।



 



ভালোবাসা মূল্যহীন হলেও এর মুল্যবোধ এই প্রজন্মের কাছে খুবই কম। শিরি-ফরহাদ, লাইলী-মজনু ও শাহজাহান-মমতাজের ভালোবাসা এখন আর তেমন চোখে পড়ে না। বিনোদনের অতিমাত্রায় বর্তমান ভালোবাসা। অবাধ বিচরণই অবক্ষয়ের মূল কারণ_ এ যুগের ভালোবাসা যা এখন প্রতীয়মান। তবে সবার ভালোবাসা একরকম একই দৃষ্টিতে দেখা ঠিকও নয়। ভালো মানুষ, সত্যিকার মানুষ সত্য ভালোবাসা পৃথিবীতে এখনো বিদ্যমান।



 



প্রশ্ন থাকে এরকম ভালোবাসা খুবই নগণ্য যা মূল্যায়ন করার মত নয়। হাদিসের আলোকে যদি বলা হয়, ভালো মানুষ আছে বলেই এই পৃথিবী এখনো আছে। যতদিন সৎ ভালো মানুষ থাকবে ততদিন এই জগতে মানুষের বিচরণ অব্যাহত থাকবে। এখনো কিছু ভালোবাসা মানুষকে অমর করে রাখে।



 



মোগল সম্রাট শাহজাহান তাঁর স্ত্রী মমতাজ বেগমের জন্যে তাজমহল নির্মাণ করে ভালোবাসার বিশ্বরেকর্ড গড়ে। পৃথিবীতে এক অনন্য দৃষ্টান্ত তাজমহল যা নির্মাণ হয়েছিল ১৬৩২ সালে। এটি বর্তমান বিশ্ব পর্যটনের অন্তর্ভুক্ত অসাধারণ সুন্দর বলেই তাজমহল দেখতে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে পর্যটকরা এসে ভিড় করে। তাজমহল ভালোবাসার জন্যে বিরল এক দৃষ্টান্ত। এরকম স্বচ্ছতায় ভরা ছিল এক সময়কার ভালোবাসা। বর্তমানকালে সত্যিকার, বিশ্বাসযোগ্য ভালোবাসা পাওয়া বড়ই দুষ্কর। তবু ভালোবাসা টিকে আছে নিরুপায়ে নামে মাত্র।



 



প্রেমিক যুগলের জন্যে জনম-জনমের অবিশ্বাস্য দৃষ্টান্ত রোমিও-জুলিয়েটের ভালোবাসা। উইলিয়াম শেঙ্পীয়রের অমর সাহিত্যে রোমিও-জুলিয়েটের ভালোবাসাকে বেশ গুরুত্ব দেয়। শেঙ্পীয়রের রোমিও-জুলিয়েটের বইটি ওইসময় বিশ্বময় তোলপাড় সৃষ্টি করে। ভালোবাসার অমর কাহিনী লিখে শেঙ্পিয়র নিজেও ভীষণ খ্যাতি অর্জন করে প্রেমিক-প্রেমিকাদের মাঝে আলোড়ন সৃষ্টি করে এবং ভালোবাসার প্রতি অগাধ বিশ্বাস সমারোহ হয়। উইলিয়াম শেঙ্পীয়রের অমর সাহিত্যে জুলিয়েট এক অদ্ভুত সুন্দর প্রশ্ন করেন। কথাটি এমন এই স্থানে তুমি কিভাবে এলে। কে-ই বা দেখিয়েছে এই পথ। রোমিও অকপটে বললো, আমার প্রেম আমাকে এই পথ দেখিয়েছে। এই যে ভালোবাসার গভীর অনুভূতি, মমতাভরা কথার আদান-প্রদান_ মানবসমাজে প্রেমিক যুগলের জন্যে একটি বড় শিক্ষা। এই শিক্ষা সর্বক্ষেত্রে পৃথিবীর সকল শ্রেণির মানুষের বুকে লালন করা দরকার এখন থেকে অনন্তকাল পর্যন্ত।



লেখক : প্রবাসী লেখক ও সংবাদকর্মী, ইতালি।



 



 



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৯৫১০০৪
পুরোন সংখ্যা