চাঁদপুর, শনিবার ১০ আগস্ট ২০১৯, ২৬ শ্রাবণ ১৪২৬, ৮ জিলহজ ১৪৪০
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • চাঁদপুরে স্কুল শিক্ষিকা জয়ন্তীর চাঞ্চল্যকর হত্যার রহস্য উদঘাটন * হত্যাকারী ডিস ব্যবসায়ী লাইনম্যান জামাল ও আনিসুর রহমান আটক
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৫৪-সূরা কামার


৬২ আয়াত, ৩ রুকু, মক্কী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


২৮। এবং উহাদিগকে জানাইয়া দাও যে, উহাদের মধ্যে পানি বন্টন নির্ধারিত এবং পানির অংশের জন্য প্রত্যেকে উপস্থিত হইবে পালাক্রমে।


২৯। অতঃপর উহারা উহাদের এক সংগীকে আহ্বান করিল, সে উহাকে ধরিয়া হত্যা করিল।


 


মা সবক্ষেত্রে সব পরিবেশেই মা।


-লেডি অ্যানি বার্নার্ড।


 


 


মায়ের পদতলে সন্তানদের বেহেশত।


 


 


ফটো গ্যালারি
কোনো এক কোরবানিতে
নীরব চন্দন
১০ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


দরজায় খটখট শব্দে ঘুম ভাঙল আমার। চোখ না খুলেই বললাম, 'কে?'



দরজার ওপাশ থেকে জবাব এলো, 'ভাইয়া আমি মিরা।'



আমি চোখ না খুলেই বললাম, 'এত সকালে? শুক্রবারও একটু ঘুমাতে দিবি না? দেখছিস না, মাত্র ১১টা বাজে।'



 



মিরা বলল, 'কোরবানির জন্য আব্বা ডাকছে।'



আমি এক লাফ দিয়ে বিছানা থেকে উঠে বললাম, 'কোরবানি?'



মিরা বলল, 'হুম, কোরবানি। তোর কোরবানি।'



 



আমি এবার সত্যিই ভয় পেয়ে গেলাম। মনে মনে ভাবলাম, তবে কি আব্বা সুমাইয়ার ব্যাপারে সব জেনে গেছে? তাহলে তো সত্যি-সত্যি আমাকে আজ কোরবানির পশু হতে হবে।



আমি ভয়ে ভয়ে আব্বার সামনে উপস্থিত হতে না হতেই আব্বা বললেন, 'ঘুম ভাঙতে এত দেরি হলো কেন?'



 



আমি কিছু না বলে চুপ করে থাকলাম। আব্বা আবার বললেন, 'আজ দুপুরের পর তুই তোর ছোট চাচার সাথে গরু কিনতে গরুর হাটে যাবি।'



আমি হ্যাঁ-সূচক মাথা নাড়লাম।



 



বিকেলে আমি ও ছোট চাচা গরু কিনে বাসায় ফিরতেই দেখলাম, আব্বা বাড়ির গেটের সামনে দাঁড়িয়ে আছেন। আব্বা গরু দেখে প্রচ- রেগে গেলেন। বললেন, 'এমন একটা রোগা গরু কিনে আনলি। তোদের কি চোখ নাই? যতসব অপদার্র্থের্র দল।'



ঠিক এমন সময় আমার মোবাইলে সুমাইয়ার ফোন। ফোনের রিং-টোন কয়েকবার বাজলেও আমি আব্বার ভয়ে ফোনটা রিসিভ করলাম না। আব্বা আরও রেগে বললেন, 'ফোন রিসিভ করছিস না কেন?' আমি তাড়াহুড়া করে ফোনটা রিসিভ করলাম।



কিন্তু ভুলবশত লাউড স্পিকারে চাপ পড়ল। ঠিক তখনই ওপার খেকে সুমাইয়া বলতে লাগল, 'কখন থেকে ফোন করে যাচ্ছি, ফোন ধরছ না কেন?'



আমি কিংকর্তব্যবিমূঢ় হয়ে ফোনের লাইনটা কেটে দিয়ে আব্বার দিকে তাকিয়ে দেখি, আব্বা হাতে একটা বড় লাঠি নিয়ে দাঁড়িয়ে আছেন।



 



এই দেখে আমি দিলাম এক ভোঁ-দৌড়। আব্বা আমার পিছনে ছুটলেন এবং আমার হাতে থাকা গরুটা ছুটল আমার আব্বার পিছু পিছু।



 



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৬৮৯১৬৮
পুরোন সংখ্যা