চাঁদপুর, শনবিার ২৫ জানুয়ারি ২০২০, ১১ মাঘ ১৪২৬, ২৮ জমাদউিল আউয়াল ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৬২-সূরা জুমু 'আ


১১ আয়াত, ২ রুকু, মাদানী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


৫। যাহাদিগকে তাওরাতের দায়িত্বভার অর্পন করা হইয়াছিল, কিন্তু তাহারা উহা বহন করে নাই, তাহাদের দৃষ্টান্ত পুস্তক বহনকারী গর্দভ। কত নিকৃষ্ট সে সম্প্রদায়ের দৃষ্টান্ত যাহারা আল্লাহর আয়াতসমূহকে অস্বীকার করে। আল্লাহ যালিম সম্প্রদায়কে সৎপথে পরিচালিত করেন না।


 


 


মানুষের মধ্যে ঈশ্বরের উপস্থিতিটাই হল বিবেক। -সুইডেন বোর্গ।


 


 


নফস্কে দমন করাই সর্বপ্রথম জেহাদ।


ফটো গ্যালারি
প্রবাস ও মা
জমির হোসেন
২৫ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


মা এমন একজন মানুষ যাকে ছাড়া একদম চলে না। জীবনের শুরু থেকে শেষ নিশ্বাস পর্যন্ত তার পাশে থাকা চাই। সেই মা যদি কোনক্রমে পাশে না থাকে তখন কেমন লাগে? এ আর বলার অবকাশ নেই। শূন্য মন, শূন্য হৃদয় জগৎ সংসার পার্থিব এই পৃথিবী হয়ে যায় অন্ধকার। সেই মাকে ছাড়া ষোলটি বছর কেটে গেল দেশ-বিদেশে। শুধু তাই নয়। মহাখুশির দিন, মহানন্দের দিন পবিত্র ঈদসহ অন্যান্য সময় কাটে তাকে ছাড়া। জীবন থেকে ষোল বছর অতিবাহিত হলো আমার জন্মধাত্রী সেই মায়ের সানি্নধ্যবিহীন। প্রতিটি আনন্দক্ষণে ভেসে ওঠে আমার মায়ের প্রতিচ্ছবি। বিষণ্নতায় আমার মন বোবা কান্না করে নিভৃতে। কিন্তু প্রকৃতির কি নির্মম পরিহাস জন্মালে মৃত্যুবরণ করতে হয়। তাইতো আমাকে ছেড়ে মা না ফেরার দেশে চলে গেছেন। আর কখনো আসবেন না, বলবেন না খোকা আছিস্ কেমন?



 



কিছু সুখ যেনো সুখই থেকে যায়। যা কাউকে স্পর্শ করে না। শুধু স্মৃতির পরতে পরতে দুঃখগুলো ভাসমান থাকে। এ পৃথিবীতে মায়ের স্নেহ-মমতা ছাড়া বেড়েওঠা আমার ছোট দৃষ্টিতে শুধু বেকার এবং ব্যর্থতা। যেখানে মায়ের আদর নেই সেখানে হাহাকার ছাড়া আর কী থাকতে পারে? যন্ত্রণার এক সাগর অতিক্রম ছাড়া আর কিছুই না। তাইতো কিছু আনন্দের মুহূর্ত আমাকে দারুণভাবে পীড়া দেয়। যেন এই সুখ আমার জন্য নয়। আমার কিশোরকালে মায়ের অকালমৃত্যু ঘটে। লিভার সিরোসিস নামক মারাত্মক ব্যধি আমার প্রিয় মাকে না ফেরার দেশে নিয়ে যায়। আমাকে একা করে, শূন্য করে। মায়ের অপূর্ণতা যেন আমাকে প্রতিনিয়ত শাস্তি দেয়। জননীর ভালোবাসা ত্রিভুবনে আর কারো কাছে মিলবে না। কারণ মায়ের ভালোবাসা কারো কাছ থেকে পেতে স্বার্থের বলি হতে হয়। তাই নিঃস্বার্থ ভালোবাসা একমাত্র মা ব্যতীত এই দুনিয়ায় পাওয়া যায় না। স্বার্থের শেষ চূড়ায় থাকে গভীর ভালোবাসা। কিন্তু মায়ের বেলায় থাকে সীমাহীন নিঃস্বার্থ। জন্মের পর বেশ কয়েক বছর মাকে ডাকতে পেরেছি বটে, কিন্তু সে ডাকে মায়ের প্রতি যতটুকু ভালোবাসা থাকা দরকার সেটা হয়ে ওঠেনি শুধু বয়স কম থাকার কারণে। আর যখন বয়স বাড়লো, বুঝতে শিখলাম ঠিক তখন মৃত্যুদূত এসে হাজির হল আমার প্রিয় মায়ের কাছে। মাকে আর তৃপ্তি ভরে ডাকার সৌভাগ্য আমার হয়নি। এটি ভাগ্য নাকি মায়ের ভালোবাসার সাথে জন্ম-জন্মান্তরের দেয়াল। যা ভেদ করে সেই ভালোবাসাকে অনন্তকালেও পাওয়া সম্ভব নয়। স্বার্থহীন শুভাকাঙ্ক্ষী অন্ধকার জগৎ থেকে আলোতে এনেছেন সেই প্রিয় মাকে স্রষ্টা কেন দূরে নিয়ে গেলেন? যেখানে আমার মন মতো প্রবেশ করতে পারি না। বন্দী না হয়েও জনম জনম বন্দী সেখানে দেখার কোনো সুযোগ নেই। এ জীবনের জন্য এটি অপরিসীম অপূর্ণতা। এ বিষয়ে লেখার শুরু থাকলেও সমাপ্তি নেই।



 



প্রবাসে এমনিতেই একা সময় কাটাতে হয়। বিষণ্নতার ছোঁয়া প্রতিটি মুহূর্তে হৃদয়ে আঘাত হানে নীরবে। কাউকে বোঝাবার মত ভাষা নেই। একি এক যন্ত্রণা মনে, যা হৃৎপি-কে মাঝে মাঝেই স্পর্শ করে। তবু নীরবে সহ্য করতে হয়। সৃষ্টির কাছে বড়ই অসহায় আমরা সবাই। তবু তিনি আমার সৃষ্টিকর্তা, পরম করুণাময়। একটি সংসার স্বাবলম্বী থাকে মাতা-পিতার সমন্বয়ে। কিন্তু এর মধ্যে একজন যদি অন্যত্র চলে যান তবে সেই সংসার অর্ধমেরুদ-হীন হয়ে পড়ে। সময়ের পথচলা যত বেশি দৃঢ় হয় ততই সংসারে নানা তিক্ততা বাড়তে থাকে। আর ঝরেপড়া মানুষটি যদি হয় প্রিয় মা, তবে ওই সংসার সম্পূর্ণ মেরুদ-হীন হয়ে পড়ে। সময় যত যায় বৈরী বাতাসের প্রভাব বৃদ্ধি হতে থাকে। ছিন্নমূল করে দেয় পরিবারের সুখ। এমনিতেই প্রবাসে থাকা কষ্টকর, তারপরে আবার মা-বিহীন। তাও না ফেরার দেশে চলে যাওয়া মা!



 



প্রবাস মানেই একাকী জীবন। সব থেকেও যেন কেউ নেই। আর যদি একেবারেই না থাকে সেটা কিভাবে মেনে নেয়া সম্ভব। আমি ভাবতে পারি না। ভীষণ কান্না পায়। আমি কাঁদি। লেখক : প্রবাসী।



 



 



 


করোনা পরিস্থিতি
বাংলাদেশ বিশ্ব
আক্রান্ত ৩,৩৯,৩৩২ ২,৯২,০১,৬৮৫
সুস্থ ২,৪৩,১৫৫ ২,১০,৩৫,৯২৬
মৃত্যু ৪,৭৫৯ ৯,২৮,৬৮৬
দেশ ২১৩
সূত্র: আইইডিসিআর ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।
আজকের পাঠকসংখ্যা
৫৬৫৪০৭
পুরোন সংখ্যা