চাঁদপুর। সোমবার ৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮। ১৯ ভাদ্র ১৪২৫। ২২ জিলহজ ১৪৩৯
redcricent
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • --
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৪০-সূরা আল মু’মিন

৮৫ আয়াত, ৯ রুকু, মক্কী

পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।

৮৪। অতঃপর যখন তারা আমার শাস্তি প্রত্যক্ষ করলো, তখন বললো : আমরা এক আল্লাহতেই ঈমান আনলাম এবং আমরা তাঁর সাথে যাদেরকে শরীক করতাম তাদেরকে প্রত্যাখ্যান করলাম।

৮৫। তারা যখন আমার শাস্তি প্রত্যক্ষ করলো তখন তাদের ঈমান তাদের কোনো উপকারে আসলো না। আল্লাহর এই বিধান পূর্ব হতেই তাঁর বান্দাদের মধ্যে চলে আসছে এবং সে ক্ষেত্রে কাফিররা ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


এমন প্রাসাদ তৈরি করো না, যা তুমি বাসযোগ্য করতে পারবে না।           


-আল-ফকরি।


নফস্কে দমন করাই সর্বপ্রথম জেহাদ।



 


ফটো গ্যালারি
ইকবাল পারভেজের কবিতা
০৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+

আগস্টেই শুরু

অতঃপর তাঁর আত্মা থেকে বেরিয়ে গেলো বাংলাদেশ

দেহ থেকে বেরিয়ে গেলো দুইশ' ত্রিশটি নদী

সবুজ মাঠ মিলিয়ে গেলো বুক থেকে

বিশাল সমুদ্র বেরিয়ে গেলো হৃদয় থেকে

তাঁর চোখ থেকে বেরিয়ে গেলো আকাশ, স্বপ্ন

তিনি মেঝে পড়ে রইলেন

সিঁড়ি বেয়ে রক্ত নামছিলো রাস্তায়

তাঁর আত্মার নাম বাংলাদেশ।

তারপর তাঁর নিথর দেহ তোলা হলো সামরিক হেলিকপ্টারে

তাঁকে গোসল দেয়া হলো, তিব্বত পাঁচশ' সত্তর সাবান দিয়ে।

তাঁর দেহ থেকে স্বাধীনতার সুবাস বইছে।

সাক্ষী থাকুন তিব্বতের দালাইলামা

আপনি তিব্বতের মানুষকে কতো ভালোবাসেন

সাক্ষী আছেন ইন্দিরা গান্ধী, ফিদেল কাস্ত্রো, আরাফাত

সাদ্দাম হোসেন, গাদ্দাফি মুয়াম্মার

এবং স্বাধীনতাকামী বিশ্বের সকল মানুষ,

তার একটি অন্যায় ছিলো বটে

তিনি মানুষকে ভালোবাসতেন, মানুষের মুক্তি চাইতেন।

তিনি বাঙালি, মোটা ভাত, মোটা কাপড়ের কথা বলতেন,

তিনি ধমক দিতেন_কালোবাজারি, দুর্নীতিবাজদের

তিনি ছাত্রদের স্নেহ করতেন

তিনি শোষণের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতেন।

তাঁর পক্ষে ছিলো অর্ধেক পৃথিবী

তাঁর বিপক্ষে ছিলো অর্ধেক পৃথিবী

পিতার লাশ দাফন হয়ে গেলো।

তারপর স্বীকৃতি আসতে শুরু করলো

চীন, সৌদি আরবসহ বিশ্বের অর্ধেক দেশ থেকে

যারা বাংলাদেশের বিপক্ষে ছিলো।

তাঁর মৃত্যুর আগে অর্ধেক

তাঁর মৃত্যুর পর অর্ধেক।

এভাবে সারাবিশ্বের সমর্থন আমাদের ভাগ্যে জুটলো।

সেদিন থেকে বাংলাদেশ হয়ে গেলো একটি দ্বৈত দেশ

আর সেদিন থেকে মানুষ দুই ভাগ হয়ে গেলো

জয় বাংলা আর জিন্দাবাদে কেঁপে উঠলো বাংলাদেশ।

পাপ

ভালোবাসা যদি পাপ হয়

চলো, পাপাচারে লিপ্ত হই।

চলো, জোড়া হই

ভ্রূক্ষেপ চোখে তাকাই, বাকি সব মানুষের দিকে

চলো দৌড়ে পালাই পথঘাট-পাহাড় মাড়িয়ে

আকাশে উড়ে উড়ে চলি

পাখি হয়ে যাই

মানুষ থাকতে ভালো লাগে না আর

যারা প্রেমিক-প্রেমিকা

তারা খুঁজে পায় পথ

ভালোবাসার রথ

চলো, গন্ধম খাই

বের হয়ে যাই পৃথিবীর বাইরে

আনন্দে গাই গাই

আকাশে ভেসে বেড়াই

নৃত্য করি শূন্যে

ভালোবাসা যদি পাপ হয়

চলো পাপের সমুদ্রে ডুবে মরি।

দোকানি

দোকানি আমাকে দেখে অাঁতকে উঠে

আমি নৈমিত্তিক বাকি খরিদ্দার

চা চাইলে বলে চিনি নাই

সিগারেটের বদলে বিড়ি পাই

প্রতিদিন সকাল-বিকাল

সেও দোকানির মতো

সকালে দেখতে চাইলে বলে বিকালে এসো

সঙ্গমের আহ্বানে বলে, দূরে বসো

বাকি চেয়ে চেয়ে ছেঁচড় হয়ে গেছি

চা, সিগারেট, চুমু, সঙ্গম

আমার লোভ, দোকানির বাড়ে ক্ষোভ

প্রিয়া আমার বড়ো দোকানি।

আজকের পাঠকসংখ্যা
৮১৮০০
পুরোন সংখ্যা