চাঁদপুর। বৃহস্পতিবার ৯ আগস্ট ২০১৮। ২৫ শ্রাবণ ১৪২৫। ২৬ জিলকদ ১৪৩৯
redcricent
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৪০-সূরা আল মু’মিন

৮৫ আয়াত, ৯ রুকু, মক্কী

পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।

৩১। যেমন, কওমে নূহ, আদ, মাসুদ ও তাদের পরবর্তীদের অবস্থা হয়েছিল। আল্লাহ বান্দাদের প্রতি কোন যুলুম করার ইচ্ছা করেন না।

৩২। হে আমার কওম, আমি তোমাদের জন্যে প্রচ- হাঁক-ডাকের দিনের আশঙ্কা করি।

৩৩। যেদিন তোমরা পেছনে ফিরে পলায়ন করবে; কিন্তু আল্লাহ থেকে তোমাদেরকে রক্ষাকারী কেউ থাকবে না। আল্লাহ যাকে পথভ্রষ্ট করেন, তার কোন পথপ্রদর্শক নেই।

দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


দুঃখীদের মনের জোর কম থাকে।

-রবার্ট হেরিক।


যে শিক্ষা গ্রহণ করে তার মৃত্যু নেই ।



 


ফটো গ্যালারি
চাঁদপুর পৌর ১৩নং ওয়ার্ডের রাস্তাগুলোর বেহাল দশা
অমরেশ দত্ত জয়
০৯ আগস্ট, ২০১৮ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


চাঁদপুর পৌরসভার ১৩নং ওয়ার্ডের যাতায়াতের রাস্তাগুলো চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়ছে। বারবার জনপ্রতিনিধি বদল হলেও বদলায়নি রাস্তার পরিবেশ। ছোট-বড় গর্ত, রাস্তার দু' পাশ ধসে পড়া, পিচ ঢালাইয়ের কংক্রীট উঠে যাওয়া, নিম্নমানের বাঁধ নির্মাণসহ নানাবিধ সমস্যায় রাস্তগুলোর এখন বেহাল দশা। বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর পৌর এলাকার বিভিন্ন অঞ্চলের রাস্তাঘাটের ব্যাপক উন্নয়ন ঘটলেও পাল্টায়নি এই এলাকার রাস্তাগুলো। অথচ আয়তনে পৌর এলাকার মধ্যে প্রায় এটিই সবচেয়ে বড় ওয়ার্ড।



সরেজমিনে গত ৪ আগস্ট শনিবার মঠখোলা টু শেখেরহাট রাস্তায় দেখা যায়, এ রাস্তাটি বিভিন্ন অংশে ভেঙ্গে খালে পড়ে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে। এখনি পদক্ষেপ না নিলে এ রাস্তা হয়তো টিকিয়ে রাখা অসম্ভব হয়ে পড়বে। রাস্তার বেশিরভাগ অংশেরই পিচ ঢালাই উঠে গেছে। অন্যদিকে বাহের খলিশাডুলী হয়ে ইব্রাহীমপুর স্কুল সংলগ্ন মৈশাদীর দিকে যাওয়া রাস্তাটি যেনো তার সৌন্দর্যের অস্তিত্ব হারিয়েছে। একটু সচেতনতার অভাবেই যেনো কেউ কেউ রাস্তার দু' পাশে ভবিষ্যতে রাস্তা প্রশস্তকরণের জায়গা না রাখার কথা ভেবেই ইটের দেয়াল ও টিনের বেড়া তুলে দিয়েছে, বিদ্যুতের খুঁটি বসিয়েছে। এছাড়াও রাস্তার ওপরে গর্ত আর ইটের খনাখন্দে ভরে গেছে। রাস্তা চিকন করে বসতবাড়ি নির্মাণসহ নানা ক্ষতি করে চলেছে। এই রাস্তায় এমন কিছু মোড় রয়েছে যেখানে রাস্তার একপাশ হতে আসা অন্যদিক থেকে আসা যানবাহন দেখার উপায় নেই। তাই যে কোনো সময় ঘটতে পারে প্রাণহানিসহ বড় ধরনের দুর্ঘটনাও। অথচ রাস্তাগুলো দিয়ে রিঙ্া-ভ্যানে করে নানা কৃষিজ পণ্য, ইট-বালুর ট্রাক, দৈনন্দিন ব্যবসায়িক নানা পণ্যও আনা-নেয়া করা হয়। যা চাঁদপুর তথা দেশের অর্থনীতির উন্নয়নেও গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে চলেছে। কিন্তু রাস্তার এমন দুর্দশার জন্যে রাস্তাগুলো যেনো প্রায় অকেজো হয়ে পড়েছে। অসুস্থ মানুষজনকে শহরের উদ্দেশ্যে এ রাস্তা দিয়ে নেয়ার সময় তাদের ভোগান্তি যেনো চরম পর্যায় পেঁৗছে। ভুক্তভোগী অনেক পথচারী জানিয়েছেন, রাস্তা অত্যন্ত নিচু ও চিকন। এজন্যে প্রায় প্রতি বছরের বর্ষাতেই এ রাস্তায় পানি উঠে যায়। আর বিগত সময়ে যখন এ রাস্তায় পিচ ঢালাই হয়েছিলো তা অত্যন্ত নিম্নমানের। সামান্য বৃষ্টিতেই ওইসব ঢালাই তখনি উঠে গেছে। সেই থেকে এখন পর্যন্ত কেউ যেনো রাস্তার এসব বিষয় দেখেও দেখছে না। তাই এই রাস্তা নতুন রূপে উঁচু ও প্রশস্ত করে ভালো মানের পিচ ঢালাইয়ের জন্যে প্রশাসনের জরুরি হস্তক্ষেপ অত্যাবশ্যকীয় হয়ে পড়েছে বলে দাবি করেছেন ভুক্তভোগীরা।



১৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোঃ আলমগীর গাজী জানান, আমি ওয়ার্ডের অনেক উন্নয়নমূলক কাজ করেছি। অনেক নতুন রাস্তা করে দেয়ারও চেষ্টা করেছি। ওই রাস্তাটির উন্নয়নের ব্যাপারে আলোচনা চলছে। আমরা রাস্তাটি কয়েকবার মেরামতও করেছিলাম। কিন্তু তবুও রাস্তাটি ভাঙ্গন রোধ করা সম্ভব হচ্ছে না। দীর্ঘ পরিকল্পনা আর পর্যাপ্ত বাজেট পেলে রাস্তাটির দীর্ঘমেয়াদী উন্নয়ন সম্ভব হতে পারে। আর বাহের খলিশাডুলী-মৈশাদীগামী সড়কটির কাজ আরম্ভের ব্যাপারেও আমি পৌর মেয়র মহোদয়সহ ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা করছি।



বর্তমান সরকারের ব্যাপক উন্নয়নের সাথে পৌর ১৩নং ওয়ার্ডের রাস্তার বেহাল সমস্যারও সমাধান হবে ও দ্রুত এ বিষয়ে সংশ্লিষ্টগণ তদারকি করে রাস্তার উন্নয়নে কাজ আরম্ভ করবে_এমন প্রত্যাশা অঞ্চলের স্থানীয়দের।



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৬৪৫৯৪৭
পুরোন সংখ্যা