চাঁদপুর। বৃহস্পতিবার ৯ আগস্ট ২০১৮। ২৫ শ্রাবণ ১৪২৫। ২৬ জিলকদ ১৪৩৯
redcricent
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • ফরিদগঞ্জের চান্দ্রার খাড়খাদিয়ায় ট্রাক চাপায় সাইফুল ইসলাম (১২) নামের ৭ম শ্রেনীর শিক্ষার্থী ও সদর উপজেলার দাসাদি এলাকায় পিকআপ ভ্যান চাপায় কৃষক ফেরদৌস খান নিহত,বিল্লাল নামে অপর এক কৃষক আহত হয়েছে।
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৪০-সূরা আল মু’মিন

৮৫ আয়াত, ৯ রুকু, মক্কী

পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।

৩১। যেমন, কওমে নূহ, আদ, মাসুদ ও তাদের পরবর্তীদের অবস্থা হয়েছিল। আল্লাহ বান্দাদের প্রতি কোন যুলুম করার ইচ্ছা করেন না।

৩২। হে আমার কওম, আমি তোমাদের জন্যে প্রচ- হাঁক-ডাকের দিনের আশঙ্কা করি।

৩৩। যেদিন তোমরা পেছনে ফিরে পলায়ন করবে; কিন্তু আল্লাহ থেকে তোমাদেরকে রক্ষাকারী কেউ থাকবে না। আল্লাহ যাকে পথভ্রষ্ট করেন, তার কোন পথপ্রদর্শক নেই।

দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


দুঃখীদের মনের জোর কম থাকে।

-রবার্ট হেরিক।


যে শিক্ষা গ্রহণ করে তার মৃত্যু নেই ।



 


ফটো গ্যালারি
ফরমালিনের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা প্রয়োজন
আবদুল গনি
০৯ আগস্ট, ২০১৮ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+

চাঁদপুরের সব উপজেলার প্রায় চার শতাধিক হাট-বাজারের দোকান ও জেলা-উপজেলা শহরের দোকানগুলোতে মাছ, ফল, শাক-সবজিসহ বিভিন্ন প্রকার তরকারিতে অসাধু ব্যবসায়ীরা যেন ফরমালিন মিশিয়ে প্রকাশ্যে বা গোপনে বিক্রি করতে না পারে_এ ব্যবস্থা গ্রহণ করা এখনই প্রয়োজন।

কেননা ফরমালিনযুক্ত খাবার খেয়ে সাধারণ মানুষ শারীরিকভাবে মারাত্মক অসুস্থ হয়ে যেতে পারে। তাই ফরমালিনের বিরুদ্ধে প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা নেয়া এখন সময়ের দাবিতে পরিণত হয়েছে। কোনো কোনো ব্যবসায়ী ফল, মাছ ও তরকারিতে ফরমালিন মিশিয়ে আমাদের জীবনকে ধ্বংসের পথে নিয়ে যাচ্ছে। একটি সভ্যসমাজে এসব অন্যায় কোনোমতেই চলতে দেয়া যেতে পারে না। যে ফল খেয়ে হাসপাতালের রোগীদের বাঁচিয়ে রাখা হয়, যে মাছ ও তরকারি খেয়ে আমরা বাঁচি; সে ফল, মাছ, তরকারিতে মুনাফাখোর কোনো কোনো ব্যবসায়ী ফরমালিন মিশিয়ে রোগী ও আমাদের জীবনকে বিপন্ন করে তুলছে। যে মাছ আমাদের আমিষের চাহিদা মিটায় এবং দেহকে সতেজ ও সুস্থ রাখে, সে মাছে তারা ফরমালিন মিশিয়ে মানবদেহকে শেষ করে দিচ্ছে। এর কি কোনো প্রতিকার হতে পারে না? বিষাক্ত ফরমালিনের যাচ্ছেতাই ব্যবহার জনস্বাস্থ্যের জন্যে এখন মারাত্মক হুমকি। চিকিৎসা ও মৎস্য বিজ্ঞানীদের মতে, ফরমালিন একটি বর্ণহীন মিথানল গ্যাসের জলীয় বাষ্প। এটি দাহ্য ও তীব্র গন্ধযুক্ত একটি রাসায়নিক পদার্থ। আমাদের দেশের অসাধু ব্যবসায়ীগণ খাদ্যদ্রব্যে ফরমালিন মিশিয়ে জনস্বাস্থ্যেকে হুমকির দিকে ঠেলে দিচ্ছে। ফরমালিনের সৃষ্টি মানবজাতির কল্যাণেই_এটি সত্য। কিন্তু এর অপব্যবহার করে একে অকল্যাণের দিকে ধাবিত করা হচ্ছে। সজ্ঞানে ও স্বচক্ষে প্রত্যক্ষ করে চুপচাপ বসে থাকা কারোরই উচিত নয়।

যতদূর জানা গেছে, ফরমালিনের সাহায্যে ঔষধ, এন্ট্রিবায়োটিক, ডিটারজেন্ট তৈরি, গবেষণাগারে পচনশীল নমুনা সংরক্ষণে, স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ল্যাবরেটরির জীবজন্তুতে মিশিয়ে সংরক্ষণের জন্যে, এক দেশ থেকে অন্য দেশে মৃত লাশ পরিবহন ইত্যাদিতে ফরমালিন ব্যবহারের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। অথচ মুনাফাখোর ব্যবসায়ীরা উৎপাদিত দেশীয় মাছ, ফল, দুধ, শাকসবজি ও তরিতরকারিকে দীর্ঘসময় পচনের হাত থেকে রক্ষা করার জন্যে পানির সাথে ফরমালিন মিশিয়ে কিংবা ইনজেকশন দিয়ে মাছ বা ফলের ভেতর প্রবেশ করিয়ে তা ব্যবহার করছে।

আমরা অনেকেই অজ্ঞাতবশত এসব ফরমালিন মেশানো খাবার কিনে খাচ্ছি। এসব খাবার খেয়ে মানুষ তাৎক্ষণিক কিছু বুঝতে পারছে না। এছাড়াও বাজারের মাছে, দুধে কিংবা ফলমূলে ফরমালিন মেশানোর ফলে কী ধরণের ক্ষতি হয়ে_তা সাধারণ মানুষ এখনো বুঝে উঠেনি।

২০১৩ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি চাঁদপুর মৎস্য গবেষণা কেন্দ্রের সম্মেলন কক্ষে মৎস্য সম্পদ সংরক্ষণে ফরমালিনের অপব্যবহার রোধে জেলায় প্রথম একটি কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে এর অপব্যবহার সম্পর্কে বেশ কজন মৎস্যবিজ্ঞানী ও গবেষক বক্তব্য উপস্থাপন করেন। ফরমালিনের অপব্যবহার সম্পর্কে একটি ভিডিও চিত্র প্রদর্শন করা হয়েছিল। যা আমি নিজেও উপস্থিত থেকে প্রত্যক্ষ করেছিলাম। ফরমালিনের অপব্যবহারে মানবদেহে কী ধরণের নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে এর চিত্র বিভিন্ন বক্তার আলোচনা ও কর্মপত্রের মাধ্যমে বিস্তারিত জানা সম্ভব হয়েছে।

মৎস্য বিজ্ঞানীদের মতে, শিল্প প্রতিষ্ঠান, হাসপাতালের ফ্লোর, গবেষণাগারে পচনশীল নমুনা সংরক্ষণ, গাম তৈরি, প্রাকৃতিক রং, নেলপালিশ, এন্টিবায়োটিক ওষুধ, বাতাস জীবাণুমুক্তকরণ, পোকামাকড় নিয়ন্ত্রণ, মুরগীর বাচ্চা উৎপাদন, মৎস্য ও চিংড়ি হ্যাচারিতে জীবাণুমুক্তকরণ এবং হাসপাতালের সংক্রামক এলাকা পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখতে, বিভিন্ন যানবাহনে মৃত লাশ পরিবহনের সময় কেবলমাত্র ফরমালিন ব্যবহার করা প্রয়োজন। ফরমালিনযুক্ত খাবার খেলে চোখের রেটিনা আক্রান্ত হয়ে রেটিনার কোষ ধ্বংস হয়, বদহজম, তাৎক্ষণিকভাবে পেটের পীড়া, হাঁচি-কাঁশি, শ্বাসকষ্ট, ডায়রিয়া, আলসার, চর্মরোগসহ বিভিন্ন রোগ হয়ে থাকে। ধীরে ধীরে লিভার, কিডনি, হার্ট, ব্রেন স্ট্রোকসহ সব কিছুকেই ধ্বংস করে দেয় ফরমালিন। এর কারণে পাকস্থলি, ফুসফুস ও শ্বাসনালিতে ক্যান্সার হতে পারে। অস্থিমজ্জা আক্রান্ত হওয়ার ফলে রক্তশূন্যতাসহ অন্যান্য রক্তের রোগ, এমনকি বস্নাড ক্ল্যান্সারও হতে পারে। এতে মৃত্যু অনিবার্য।

ফরমালিন ও অন্যান্য কেমিক্যালসামগ্রী সববয়সী মানুষের জন্যেই ঝুঁকিপূর্ণ। তবে সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিপূর্ণ শিশু ও বৃদ্ধদের ক্ষেত্রে। ফরমালিনযুক্ত দুধ, মাছ, ফলমূল এবং বিষাক্ত খাবার খেয়ে দিন দিন শিশু রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা হারিয়ে ফেলে। বিভিন্ন অঙ্গ-প্রতঙ্গ নষ্ট, বিকলাঙ্গতা, এমনকি মরণব্যাধি ক্যান্সারসহ নানা জটিল রোগ সৃষ্টি হয়। সন্তান প্রসবের সময় জটিলতা, বাচ্চার জন্মগত দোষত্রুটি ইত্যাদি দেখা দিতে পারে। প্রতিবন্ধী শিশুর জন্ম হতে পারে।

বিশেষজ্ঞদের মতে, মানুষের জন্যে সবচাইতে ক্ষতিকর যে সকল রাসায়নিক পদার্থ রয়েছে এর মধ্যে ফরমালিন একটি। সরকার ফরমালিনের অপব্যবহার বন্ধে সর্বোচ্চ ১০ বছরের কারাদ- ও ৫ লাখ টাকা জরিমানার বিধান রেখে আইন করার প্রস্তাবে মন্ত্রীসভার বৈঠকে 'ফরমালিন ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ আইন, ২০১৩' এর খসড়া অনুমোদন করে।

আইন নয়, আত্মসচেতনতা এখানে বড় ব্যাপার। চাঁদপুরে পলিথিন, বাল্যবিবাহ, জঙ্গি ও মাদকবিরোধী আন্দোলনের মতো ফরমালিনের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ ব্যবস্থা এখনই প্রয়োজন। মাদক যেমন আমাদের সমাজে বিস্তার লাভ করে চলছে তেমনি বিভিন্নরকম খাদ্যদ্রব্যে বিষাক্ত ফরমালিনের অপব্যবহার জনস্বাস্থ্যের জন্যে মারাত্মক হুমকি হিসেবে প্রতীয়মান হচ্ছে। এর বিরুদ্ধে এখনই রুখে দাঁড়াতে হবে। এর বিস্তার রোধে ব্যাপক হারে গণসচেতনতা বোধ সৃষ্টি করে অপব্যবহার বন্ধ করতে হবে। গণমাধ্যমগুলোতে এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় প্রচার প্রচারণা চালিয়ে সাধারণ মানুষকে সজাগ করার ভূমিকা নিতে হবে। পৃথিবীর সকল রাসায়নিক দ্রব্য মান নিয়ন্ত্রণকারী এজেন্সি ফরমালিনের অপব্যবহারকে মারাত্মক ক্ষতিকারক হিসেবে চিহ্নিত করেছে। তাই প্রত্যেক সচেতন মানুষকে নিজ নিজ উদ্যোগে ফরমালিনযুক্ত খাবার খেতে বা ক্রয় করা বর্জন ও পাশাপাশি ফরমালিনযুক্ত সকল প্রকার খাদ্যের লক্ষণসমূহ সম্পর্কে সম্যক জ্ঞান লাভ করা এখন অপরিহার্য। জেলার ক্যাব সংস্থাকে এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় সব রকম ব্যবস্থা নিতে হবে।

লেখক : সহকারী সম্পাদক,

চাঁদপুর টাইমস্।

আজকের পাঠকসংখ্যা
৮৩২০৩২
পুরোন সংখ্যা