চাঁদপুর। বুধবার ২৮ নভেম্বর ২০১৮। ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৫। ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪০
redcricent
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৪৪-সূরা দুখান

৫৯ আয়াত, ৩ রুকু, মক্কী

পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।

০৫। আমার আদেশক্রমে, আমি তো রাসূল প্রেরণ করিয়া থাকি।

০৬। তোমার প্রতিপালকের অনুগ্রহস্বরূপ; তিনি তো সর্বশ্রোতা সর্বজ্ঞ-

৭। যিনি আকাশম-লী, পৃথিবী ও উহাদের মধ্যবর্তী সমস্ত কিছুর প্রতিপালক, যদি তোমরা নিশ্চিত বিশ^াসী হও।





 

 


সেই আনন্দই যথার্থ আনন্দ যা দুঃখকে অতিক্রম করে আমাদের কাছে আসে।

  -নিক্সন ওয়াটারম্যান।


আল্লাহ যদি তোমাদের অর্থ-সম্পদ দান করেন তবে তাহা নিজের ও পরিবারের পক্ষ হতে বণ্টন শুরু করো।





 


ফটো গ্যালারি
ভোট হোক আমার শ্রেষ্ঠ আমানত
সুধীর বরণ মাঝি
২৮ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


নির্বাচনী জ্বরে কাঁপছে পুরো দেশ। পত্রিকার পাতা খুললেই দেখি বড় বড় জ্ঞানী-গুণীদের নিখুঁত সব বড় বড় আর্টিকেল যার মাধ্যমে নিজের অজানা ও অজ্ঞানতা দূর করি। তাই দেখে নিজেরও লেখার খুব ইচ্ছে হয়। আমার তাই এই ক্ষুদ্র প্রয়াস। পাঠকের প্রত্যাশা পূরণ হলেই আমার সার্থকতা। চারিদিকে বইছে নির্বাচনী হাওয়া। পাড়ার টং দোকান থেকে রাজধানীর পাঁচ তারকা হোটেল, ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার টক-শো থেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক পর্যন্ত সর্বত্র নির্বাচনী উত্তাপ ছড়াচ্ছে। বিনোদনবঞ্চিত মানুষের জন্যে একটি বিশেষ বিনোদন এই নির্বাচনী হাওয়া। নির্বাচন, ভোট একটি দেশের চলমান রাজনৈতিক প্রক্রিয়া। রাষ্ট্র পরিচালনার জন্যে নির্বাচন ও ভোট অতি আবশ্যকীয় একটি উপাদান। নির্বাচনে ভোটপ্রদানের মাধ্যমে ভোটাররা নির্বাচন করেন তাদের সর্বোত্তম শাসনব্যবস্থা এবং শাসককে (সরকার), যাদের হাত ধরে দেশ উন্নতির কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে পেঁৗছবে। ভোট জনগণের পবিত্র আমানত। একে কোনোভাবেই কলুষিত করা যাবে না এবং আমানতের খিয়ানত করা যাবে না। আপনার ভোট আপনি দেবেন। দেখে-বুঝে সিদ্ধান্ত নেবেন। ভোট আপনার আমানতও আপনার। একে পরিচর্যা এবং রক্ষা করার দায়িত্বও আপনার। সহযোগিতা করবে রাষ্ট্র ও সরকার। আমানত রক্ষা করতে না পারলে এ ক্ষতি শুধু আপনার নয়, এর প্রভাব পড়বে ব্যক্তি, পরিবার, সমাজ, দেশ ও জাতির উপর। ভোটপ্রদানে একজন ভোটারকে সুনাগরিক হিসেবে ব্যক্তিস্বার্থের ঊধর্ে্ব দেশ ও জাতির কল্যাণে সিদ্ধান্ত নিতে হবে। ভোটাররা যদি তার ব্যক্তিস্বার্থে উৎসাহিত হয়ে তার আমানতের পবিত্রতা বিসর্জন দেয় তবে সে তার অধিকারের কথা বলার নৈতিকতা ও মূল্যবোধ হারিয়ে ফেলবে। যা দেশ ও জাতির স্বার্থে কোনোভাবেই কাম্য নয়। প্রতিনিধিরা আসবেন নির্বাচন পরবর্তী দেশ ও দশের সেবা করার জন্যে সর্বাধিক সমর্থন আদায়ের জন্যে (নির্বাচনে বিজয়ী হওয়ার জন্যে)। একজন ভোটার হিসেবে আপনি কোনোভাবেই যেনো তাদের কাছে বিক্রি হয়ে যান সেই বিষয়ে আপনাকে সর্বদা সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে। রাজনৈতিক অজ্ঞতা দূর করতে না পারলে এবং রাজনৈতিক সচেতনতা ও দূরদর্শিতা অর্জন করতে না পারলে ভোট আমানত রক্ষা করা সম্ভব হবে না। মার্কা দেখে নয়, ভোট দিতে হবে ব্যক্তির দেশপ্রেম ও প্রজ্ঞা দেখে। ভোট আমানতকে রক্ষা করতে হলে যেমন প্রয়োজন রাজনৈতিক সচেতনতা, পাশাপাশি প্রয়োজন রাষ্ট্রের নির্বাচনী আইনের সঠিক প্রয়োগ ও বাস্তবায়ন। নির্বাচনে কালো টাকার ব্যবহার বন্ধে রাষ্ট্রকে কঠোর হতে হবে, কেউ যাতে আইনের অপব্যবহার করতে না পারে এবং অতিরিক্ত সুবিধা ভোগ করতে না পারে নির্বাচন কমিশনকে সেই বিষয়ে নিশ্চয়তা প্রদান করতে হবে। কোন প্রার্থী ও তার সমর্থক নির্বাচনী আচরণ ভঙ্গ করলে তার বিরুদ্ধে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থাগ্রহণ করতে হবে। কোনো প্রার্থী যেনো নির্বাচনী ব্যয় নির্বাচন কমিশন কর্তৃক নির্ধারিত ব্যয়ের অধিক ব্যয় করতে না পারে নির্বাচন কমিশনকে সর্বদা সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। এতে করে নির্বাচন যেমন সুষ্ঠু হবে অন্যদিকে নির্বাচন কমিশনের গ্রহণযোগ্যতাও বৃদ্ধি পাবে। নির্বাচন ও ভোট হতে হবে দেশ ও জাতির কল্যাণের স্বার্থে। নির্বাচন এবং ভোট যেনো কিছু মানুষের আখের গোছানোর সুযোগ বা হাতিয়ার না হয়, সেদিক থেকে সকল ভোটারকে সজাগ ও সতর্ক ভূমিকা পালন করতে হবে। ভোট হোক দেশ ও অধিকার রক্ষার হাতিয়ার। নগদ প্রাপ্তির বিনিময়ে ভোটপ্রদানের মাধ্যমে ভোটের আমানতের খেয়ানত হয়। খেয়ানত গর্হিত অপরাধ। এর ক্ষতির প্রভাব দীর্ঘমেয়াদী। আর তাই সচেতন ও সুনাগরিক হিসেবে নিজেকে এ কাজ থেকে বিরত রাখতে হবে এন্তু এর ফলাফল দীর্ঘমেয়াদী দেশটা আমাদের সকলের। ত্রিশ লাখ শহীদের রক্তের বিনিময়ে এবং দুই লাখ মা-বোনের ইজ্জতের দামে কেনা এই দেশ। দেশটাকে সোনার বাংলা হিসেবে গড়ে তোলার দায়িত্ব শহীদের উত্তরসুরী হিসেবে আমাদেরই। তবেই নির্বাচন ও ভোট হবে দেশ ও জাতির কল্যাণে।



লেখক : শিক্ষক।



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৪০২৪১৯
পুরোন সংখ্যা