চাঁদপুর, বুধবার ৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ২২ মাঘ ১৪২৬, ১০ জমাদিউস সানি ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • --
প্রবাস ও ভাগ্য উন্নয়ন
জমির হোসেন
০৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


স্বচ্ছল জীবন গড়ার আশায় মা, মাটির মায়া ছেড়ে দেশ হতে আজ দেশান্তরে। কর্মের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে উন্নত এক জীবনের লক্ষ্য নিয়ে প্রবাস-জীবনের সূচনা। এ ত্যাগের বিনিময়ে কেউ হয় সমাজের একজন সম্মানিত ব্যক্তি আবার কারো হয়তো ভাগ্য পরিবর্তন হয় না। প্রবাসে কেউ যখন পথচলতে ভুল করে তবে সেই ভুলের খেসারত তাকে অন্তিম সময় পর্যন্ত দিতে হয়। প্রবাস মানে কর্ম, প্রবাস মানেই অর্থ উর্পাজনের রাস্তা খুঁজে বের করা, সেই সাথে প্রতিটি সময়ের মূল্য দেয়া। তাই সময়ের সঠিক পরিচর্যা হবে ইউরোপে বাংলা রাজনীতি সরকার কর্তৃক নিষিদ্ধ করা। আর তা না হলে অর্থের খোঁজে আসা প্রবাসী বাংলাদেশিরা আর্থিকভাবে নিজেরা যেমন শক্তিশালী হতে সক্ষম হবে না, তেমনি করে দেশের রত্নগর্ভাকে শক্তিশালী করতে ব্যর্থ হবে। তাই ইতালিতে প্রবাসী রাজনীতি অতি শীঘ্রই বন্ধ করে দেয়া উচিত দেশের অর্থনীতির স্বার্থে। নয়তো আমাদের কলুষিত রাজনীতি ইউরোপের মাটিতে স্থায়ী হলে অদূর ভবিষ্যতে ইউরোপে থাকা মুশকিল হয়ে যাবে। ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ বর্তমান সরকারের কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী ইফাদ-এর একজন সদস্য হিসেবে গভর্নিং কাউন্সিল অধিবেশনে যোগ দিতে ১৬ তারিখ সকালে ইতালি রোমে আসেন। এরপর দলীয় নেতা-কর্মীরা মন্ত্রীকে সংবধর্না দেয়ার জন্যে আয়োজন করেন ৬নং মিউনিচিপল হলরুমে। কিন্তু মন্ত্রী আসার কারণে বিএনপি নেতারা প্রতিবাদ ও মানববন্ধন করেন। একপর্যায়ে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে। এতে ইতালিয়ান প্রশাসন খুব রেগে যান। বিএনপি রাস্তার একপাশে শ্লোগান দেয়। রাস্তার অপর পাশে মন্ত্রীকে সংর্বধনা দেয়ার সকল কাজ আওয়ামী লীগ সম্পন্ন করে। যার ফলে উভয়ের মাঝে একটা উত্তেজনা ভাব বিরাজ করে। প্রশাসন ব্যাপারটা কঠিনভাবে আমলে নিয়ে মন্ত্রীর সংবর্ধনার হলের কাছে আগের তুলনায় পুলিশ দ্বিগুণ মোতায়েন করে। এ নোংরামির ফলে আমাদের ভবিষ্যতের জন্যে সম্ভাবনাময় রাস্তাগুলো চিরতরে বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছে ইউরোপের দেশ ইতালিতে। should us understand that italy is not our mother land and we can&_t do everything. তাই ইতালিতে বাংলা রাজনীতি করার পূর্বে ভাবা উচিত আমরা এখানে টাকা উর্পাজন করতে এসেছি। কোনো রাজনীতি করতে নয়। কারো বাবার যদি অঢেল সম্পদ থাকে তবে তার চলে যাওয়াটাই সমীচীন নয় কি? রাজনীতি করতে চাইলে ইতালির মূল ধারার রাজনীতিতে নাম লেখানো উচিত। নয়তো ইউরোপে একটা সময় আমরা সকল সুবিধা থেকে বঞ্চিত হবো। হারাতে হতে পারে স্টে পারমিট। শেষ পর্যন্ত এর প্রভাব বাংলাদেশের অর্থনীতিতে গিয়ে পড়বে। তাই দেশের মান ক্ষুণ্ন হয় এ ধরনের কোনো আচরণ করা আদবশিষ্ট নয়। স্বজ্ঞানে এ ধরনের আচরণ বর্জন, পরিহার করা শোভনীয়। কারণ ইতালি সরকার যে কোনো মুহূর্তে তার বৈধতা বাদ করে নিজ দেশে প্রেরণের ক্ষমতা রাখেন। স্টে পারমিট দেয়ার অর্থ এ নয় এ দেশের নিয়মবর্হিভূত কাজ করতে পারবেন। যেখানে ইতালীয় নাগরিক সারাবছর একজন অন্যজনের সাথে মারামারি করে না। একে-অপরের সাথে অতি সহজে কটুবাক্য বিনিময় করে না। সেখানে একজন আশ্রয়প্রার্থী হিসেবে অতিরঞ্জিত কোনো কিছুই নিজ মাতৃভূমির জন্যে অন্তত ভালো কিছু বয়ে আনবে না। সুতরাং আমাদের উচিত তাদের সভ্যতাকে অনুসরণ করা। অন্তত যতোদিন তাদের দেশে আমাদের থাকা সম্ভব হয়। ওই সময়টুকু তাদের বিনম্র সংস্কৃতি মেনে চলা উচিত। এতে আর যাই হোক দেশের মান ক্ষুণ্ন হবে না। ইতোমধ্যে সিজনাল ভিসায় শ্রমিক আনা বন্ধ করে দিয়েছে বাংলাদেশিদের জন্যে। শুধুমাত্র দেশের আইন মেনে না চলার কারণে। তাই যে দেশে থাকার আশা-আকাঙ্ক্ষা সেই দেশের আইন মেনে চলা আমাদের জন্যে শ্রেয়। কোনো সরকারের আমলেই প্রবাসে রাজনীতির অনুমতি না দেয়া দেশের অর্থনীতির জন্যে মঙ্গল মনে হয়।



 



লেখক : প্রবাসী সাংবাদিক, মানবাধিকার কর্মী,



রোম, ইতালি।



 


হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৬৩-সূরা মুনাফিকূন


১১ আয়াত, ২ রুকু, মাদানী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


৬। তুমি উহাদের জন্য ক্ষমা প্রার্থনা কর অথবা না কর, উভয়ই উহাদের জন্য সমান। আল্লাহ উহাদিগকে কখন ও ক্ষমা করিবেন না। আল্লাহ পাপাচারী সম্প্রদায়কে সৎপথে পরিচালিত করেন না।


সফলতা কখনো অন্ধ হয় না।


-টমাস হার্ডি।


 


 


বিদ্যালাভ করা প্রত্যেক মুসলিম নর-নারীর জন্য অবশ্য কর্তব্য।


ফটো গ্যালারি
করোনা পরিস্থিতি
বাংলাদেশ বিশ্ব
আক্রান্ত ৪,৬৪,৯৩২ ৬,৩১,৩৫,৯৭৩
সুস্থ ৩,৮০,৭১১ ৪,৩৬,১২,৩৫৩
মৃত্যু ৬,৬৪৪ ১৪,৬৬,২৮৯
দেশ ২১৩
সূত্র: আইইডিসিআর ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।
আজকের পাঠকসংখ্যা
১৬৬৫৪৯
পুরোন সংখ্যা