চাঁদপুর, রোববার ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১৫ ফাল্গুন ১৪২৭, ১৫ রজব ১৪৪২
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
যাপিত জীবনের লুকোচুরি
মোখলেছুর রহমান ভূঁইয়া
২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


দিন বদলের সাথে সাথে বদলাচ্ছে মানুষের মন। বদলাচ্ছে পরিবেশ, প্রকৃতি। এভাবে বদলাতে থাকবে আগামী অনন্ত দিনলিপি। ফুরাবে না মানুষের আকুতি, প্রেম, ভালোবাসা, লোভ, অহমিকা, দাম্ভিকতা, একচ্ছত্র আধিপত্যের গভীর স্বপ্ন। মানুষ পুনঃ পুনঃ জন্মাবে। আসবে বৈচিত্র। শুধু কথামালায় উঠে আসবে মননশীলতা, মানবিকতা, সহনশীলতা, সহমত পোষণে একাগ্রতা। বর্ণমালায় উঠে আসবে মানুষে মানুষে বৈরীতা, কলুষিত মনোভাবে দিনক্ষণ সময়ের-নিষ্ফলা গল্প। সৃষ্টির সৃষ্টি হতে অদ্য পর্যন্ত মানুষের বিকশিত যতো রূপ, যত আবির্ভাব ঘটেছে, তার চেয়ে বেশি দ্রুতগতিতে মানুষের মাঝে মানুষ, সমাজের সাথে সমাজ, রাষ্ট্রের সাথে রাষ্ট্রের মেলবন্ধন হয়েছে বিগত সংখ্যায় মাত্র দুটি যুগ। আগামী একটি যুগের শেষান্তে পৃথিবীর রূপ-রস-যশ-খ্যাতি-দুঃখ-কষ্ট-যন্ত্রণা-অন্যায়-অনাচার-আধিপত্য-সাম্রাজ্য বিস্তার, একে অন্যের নিষ্পেষিত করার মহড়া চরম পর্যায়ে দেখার সম্ভাবনা অতি বেশি আশঙ্কা করছি।



 



বর্তমান প্রেক্ষাপটে বিজ্ঞানের আশীর্বাদ আলিঙ্গন করে দ্রুততম সময়ে উন্নয়নে হাতছানির সুযোগ যেমন আমরা পাচ্ছি। বিপরীতভাবে বিজ্ঞানের বিকৃতরূপে বিবেক-বিবর্জিত, কলুষিত মনমানসিকতায় ধাবিত হচ্ছে ব্যক্তি সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে। শুভ লক্ষণে যেমন মন-প্রাণ-চোখ জুড়ে যায়। অনুরূপভাবে অশুভ পাঁয়তারার পায়চারী দেখে হতাশায় নিমজ্জিত বিবেকের কোষগুলো। সমাজ বদলায় না। বদলায় ব্যক্তি। সমষ্টিগত আচার-আচরণে সমাজ বদলায়। সর্বাগ্রে ব্যক্তি-ব্যক্তি-ব্যক্তি। একজন একটি ভালো কাজে, ভালো পরামর্শে, ভালোর সাথে ভালোর সম্পর্কে সমাজ পরিবর্তন হয়। একজন নেতার বক্তব্যে সমাজ সাজানো-গোছানো থাকে। একজন চিন্তাশীল স্বপ্ন নায়কের পঙ্ক্তিমালায় একটি মানচিত্র রচিত হয়। যার প্রকৃষ্ট উদাহরণ বাংলাদেশের জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। বিশ্বের প্রত্যেকটি রাষ্ট্রের রূপরেখার অস্তিত্বে এক একজন 'জনক' আখ্যায়িত। শিল্পসাহিত্য চর্চায় সমাজে অভিব্যক্তিগুলো কবিতা, গান, গল্পে বিভিন্ন মাধ্যমে তুলে ধরে মানুষের মনমানসিকতা বিকশিত উজ্জীবিতও করে। রাজনৈতিক ধ্যান-ধারণায় কর্মকৌশল নির্ধারণে অনগ্রসর জাতিকে উন্নয়নের মাইলফলকে পেঁৗছে দেয়। ধর্ম মানুষকে সহনশীল, মহত্ত্ব করে তোলে। সহজ-সরল ভাষায় বলা যায়, রাজনীতি, অর্থনীতি, শিল্প, সাহিত্য, সংস্কৃতি, ধর্ম-কর্মের সমষ্টি যোগফল মানবসভ্যতার 'শান্তির নীড়'।



শান্তিকে অশান্তির করালগ্রাসে নিমজ্জিত করে সেই বিজ্ঞানের আশীর্বাদের ন্যায়, বিজ্ঞানের বিকৃত রূপের ব্যবহার। অর্থাৎ শান্তির পায়রা, অশান্তির ঘুটঘুটে অন্ধকারে ধাবিত করে রাজনীতিক, শিল্পী, ধর্মগুরু, সাহিত্যিক, অর্থনৈতিক তথাকথিত কলাকৌশলীরা। তথাকথিত জ্ঞানপাপীরা নিজেদের সমাজ দর্পণের নিয়ামক হিসেবে চলনে-বলনে-বধনে-সাধারণ্যে-অসাধারণ নিজ নিজ কর্মভুবনে আসীন হয়ে সময়ের সাথে যোগফল নির্ণয় করে নিজেদের হিস্যাটা ষোলআনা লুটে নিয়ে যায়।



 



সময়ের ব্যবধানে সঙ্গবরণে এদের মুখোশ কাছে থেকে দেখা যায়। রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক কলাকৌশলীদের অযাচিত নিষ্পেষিত কর্মকার সহ্য করা গেলেও (অসহায় হয়ে) শিল্প, সাহিত্য, ধর্মগুরুদের (নামকাওয়াস্তে) মনের ভেতর লুকিয়ে রাখা কলুষিত মনোভাবাপন্ন মনমানসিকতার রূপ দেখে হতাশায় হৃদয় ক্ষরণ হয়। সমাজে যাদের সর্বোচ্চ শ্রদ্ধা-সম্মাান করে, যাদের বড় মনের, বড় জ্ঞানের, অধিক গুণের প্রতিচ্ছবি ভাবে তাদের সাথে মেলামেলা করে আকাঙ্ক্ষানুযায়ী-আশানুরূপ ফল পাওয়া দেখা বা ব্যক্তির সাথে দীর্ঘকালের চলাফেরার যোগফলের সমষ্টিগত ফলাফল একেবারে বিপরীত। বিশেষ করে সাহিত্যের ভিন্ন ভিন্ন আয়োজনে মুগ্ধ হলেও বিভাজনের রূপরেখা মাঝে মাঝে মুমূর্ষু রোগীর দেহের ন্যায় মনের ভেতরে সাহিত্যের নিস্তেজতা ভর করে। সাহিত্যে সুহৃদ অর্থাৎ সহমত, সহযাত্রা, সহযোদ্ধা, সহনশীলতা, সহযোগিতা, প্রতিযোগিতা, সত্য-সুন্দর শুভাষিত, সানি্নধ্যে জড়িয়ে থাকবে একে-অপরের কথামালায় শব্দমালায়। অক্ষরে অক্ষরে তুলে ধরবে প্রেম, ভালোববাসা, শ্রদ্ধা-স্নেহশীষ, সংগতি-অসংগতি। আমার ক্ষুদ্র জ্ঞানে সাহিত্যবোদ্ধাদের আমি এভাবে হৃদয়ে লালন করি।



 



ফুটবলের দর্শক অযাচিতভাবে 'ফাউল' করে খেলায় বিঘ্ন অথবা জয়ী পছন্দ করে না। সাহিত্যের কাগজে এগিয়ে থাকা সাহিত্যরুদেরও অনাকাঙ্ক্ষিত-অযাচিত কর্ম, বাক্যচয়ন সাধারণ্যে ভালো চোখে দেখে না। চলার পথে কর্মের মাঝে ভুল-ত্রুটি হলে শোধরানো ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়ে সম্মিলিত পথচলায় আছে স্নেহ-ভালোবাসা-শ্রদ্ধার অফুরন্ত সম্ভাবনা। নিজের ঘরের ঘুনেধরা খুঁটি টেকসই হয় না। সাহিত্যের সুভাষিত জৌলুস একটি সমাজ-রাষ্ট্রকে প্রস্ফূটিত করে দ্রুত। সাহিত্যই-আদি হতে অদ্য পর্যন্ত আমাদের সামাজিক বন্ধনে আষ্টেপৃষ্টে জড়িয়ে রাখছে। পংকিল কলুষিত মনের লুকোচুরি-প্রাকৃতিকভাবে সাময়িক ভূমিকম্পের ন্যায় অপূরণীয় ক্ষতি ব্যক্তি, সমাজ, রাষ্ট্রে অমানিশার অমাবস্যায় ঘুরপাক খাবে। একজন সাহিত্যিকের একটি সুন্দর মনের বিনির্মাণে সভ্যতার উচ্চ শিখরে নিয়ে যাবে মানবসভ্যতা। প্রাণখুলে হাসবে প্রাণ। নীল আকাশে পাখি উড়বে ডানা মেলে। বাতাসে দোলনা নাচন দেখবে গাছে গাছে ঝর ঝরে পাতায়। আগুনে পুড়বে অপশক্তি। জোছনার জলে মিতালী করে সাজাবে দেহ-মন প্রাকৃতিক অপরূপ সৌন্দর্যের স্বর্গীয় ভুবন। শব্দের গাঁথুনির ন্যায় সম্মিলিত প্রয়াস যুগপৎ শোভনীয় চাহিদা।



 



 


হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৯৮-সূরা বায়্যিনাঃ


০৮ আয়াত, ১ রুকু, মাদানী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


 


৩। যাহাতে আছে সঠিক বিধান।


৪। যাহাদিগকে কিতাব দেওয়া হইয়াছিল তাহারা তো বিভক্ত হইল তাহাদের নিকট সুস্পষ্ট প্রমান আসার পর।


 


 


মাত্রাধিক নম্রতার অর্থই হল কর্কশতা।


_জাপানি প্রবাদ।


 


 


 


 


নফস্কে দমন করাই সর্বপ্রথম জেহাদ।


 


 


ফটো গ্যালারি
করোনা পরিস্থিতি
বাংলাদেশ বিশ্ব
আক্রান্ত ৬,৪৪,৪৩৯ ১৩,২১,৯৪,৪৪৭
সুস্থ ৫,৫৫,৪১৪ ১০,৬৪,২৬,৮২২
মৃত্যু ৯,৩১৮ ২৮,৬৯,৩৬৯
দেশ ২১৩
সূত্র: আইইডিসিআর ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।
আজকের পাঠকসংখ্যা
১৩৩০৭২৯
পুরোন সংখ্যা