চাঁদপুর। বুধবার ২৬ ডিসেম্বর ২০১৮। ১২ পৌষ ১৪২৫। ১৮ রবিউস সানি ১৪৪০
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৪৫-সূরা জাছিয়া :

৩৭ আয়াত, ৪ রুকু, ‘মক্কী

১০। উহাদের পশ্চাতে রহিয়াছে জাহান্নাম; উহাদের কৃতকর্ম উহাদের কোন কাজে আসিবে না, উহারা আল্লাহর পরিবর্তে যাহাদিগকে অভিভাবক স্থির করিয়াছে উহারাও নহে। উহাদের জন্য রহিয়াছে মহাশাস্তি।


assets/data_files/web

বাণিজ্যই হলো বিভিন্ন জাতির সাম্য সংস্থাপক। -গ্লাডস্টোন।


 


 


যখন কোনো দলের ইমামতি কর, তখন তাদের নামাজকে সহজ কর।


 


 


 


ফটো গ্যালারি
সাহিত্য আসরে প্রথম দিন
এইচএম জাকির
২৬ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


চাঁদপুর সাহিত্য একাডেমী ২০১৪ সাল থেকে 'মাসিক সাহিত্য আসর' নামে প্রতি মাসে যে আসর করে আসছে তার ৫২তম আসরে একজন আড্ডারু হিসেবে আমার প্রথম অংশ নেয়া। মাধ্যমিকে পড়াকালে অণুকাব্য, অণুগল্প, ছড়া, কবিতা লেখার প্রতি আগ্রহ ছিলো। মাঝে মাঝে এসব লিখতামও। দৈনিক চাঁদপুর কণ্ঠে কয়েকবার আমার লেখা প্রকাশিত হয়েছে। ২০১৭ সালে দৈনিক চাঁদপুর কণ্ঠের বৈশাখী সংখ্যায় লিখে সেরা ছড়াকারের পুরস্কার ও সনদ পাই। সাহিত্য একাডেমীর মাসিক সাহিত্য আড্ডার খবর দৈনিক চাঁদপুর কণ্ঠ এবং ফেসবুকের মাধ্যমে জানতে পারি। তারপর থেকেই আড্ডায় যোগ দেওয়ার আগ্রহ জমে। কিন্তু কিভাবে যোগ দিবো, যোগ দিতে কী নিয়ম ইত্যাদি নিয়ে চিন্তায় পড়ে যাই। মনে সংকোচ থাকা সত্ত্বেও সাহিত্যকর্মী মুহাম্মদ ফরিদ হাসানের সহযোগিতা চাই। তিনি জানালেন, প্রতি মাসের শেষ বুধবার সাহিত্য একাডেমী মিলনায়তনে বিকালে মাসিক সাহিত্য আসর বসে। আসরে সাহিত্যানুরাগী যে কেউ অংশগ্রহণ করতে পারেন। আপনিও আগামী আসরে চলে আসুন।



আমি যে আসরে যাই সেটি ছিলো ৫২তম আসর। দুদিন আগেই মুহাম্মদ ফরিদ হাসান ফেসবুক ম্যাসেঞ্জারে বার্তা দিয়ে আসরের কথা স্মরণ করিয়ে দিলেন। বুধবার ঠিক ৪টার আগেই চলে গেলাম সাহিত্য একাডেমীতে। নতুন গেলাম, তাই প্রথমে একটু সংকোচ লেগেছিলো। পরবর্তীতে সব পরিচিত মুখের আগমন দেখে সংকোচ কেটে গেলো। নতুন আড্ডারু হিসেবে অভিনন্দনও পেলাম। সবাই নিজের কোনো না কোনো লেখা নিয়ে আসছে এবং নিজেই তা পড়ে শোনাচ্ছে। আবার সেই লেখায় উপস্থিত লেখকদের উৎসাহবর্ধক আলোকপাতও রয়েছে। খুব ভালোই লাগলো। প্রথম দিন আসছি তো, তাই লেখা নিয়ে আসতে হয় জানতাম না বলে লেখা নিতে পারিনি। সবার লেখা পাঠ শুনছি আর মনে মনে ভাবছি, ৫২তম আসরে আমার আগমন নিশ্চয়ই শুভ হবে। কারণ ৫২ সংখ্যাটি বাঙালির ইতিহাসের সাথে সম্পৃক্ত। ৫২তম সাহিত্য আড্ডায় অংশ নিতে পেরেছি বলে নিজেকে গর্বিত মনে হচ্ছে। এই আত্মতৃপ্তি এবং সাহিত্যের প্রতি প্রবল আগ্রহ থেকেই প্রতি মাসে সাহিত্য আসরে আমি চলে আসি।



আজ মাসিক সাহিত্য আসরটি ৬০তম আসরের মধ্য দিয়ে ৫ বছর পূর্ণ করলো। মাত্র ৯টি আসরে অংশগ্রহণ করে আমিও ৫ বছরের মাইলফলক স্পর্শ করলাম। চাঁদপুর সাহিত্যের চারণভূমি হিসেবে আরো এগিয়ে যাবে এবং ইলিশের বাড়ির মতো সাহিত্যের বাড়ি নামেও চাঁদপুর দেশ-বিদেশে খ্যাতি বয়ে আনবে_এই প্রত্যাশা রাখি।



জয় হোক সাহিত্যের।



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৪২৪৯৪৬
পুরোন সংখ্যা