চাঁদপুর। মঙ্গলবার ১০ জানুয়ারি ২০১৭। ২৭ পৌষ ১৪২৩। ১১ রবিউস সানি ১৪৩৮

বিজ্ঞাপন দিন

বিজ্ঞাপন দিন

সর্বশেষ খবর :

  • উচ্চ মাধ্যমিকে পাস ৬৮.৯১ শতাংশ
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

২৬-সূরা শু’আরা


২২৭ আয়াত, ১১ রুকু, ‘মক্কী’


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


১৮০। ‘আমি তোমাদের নিকট ইহার জন্যে কোনো প্রতিদান চাহি না। আমার পুরস্কার তো জগতসমূহের প্রতিপালকের নিকটই আছে’।     


১৮১। ‘মাপে পূর্ণ মাত্রায় দিবে; যাহারা মাপে ঘাটতি করে তোমরা তাহাদের অন্তর্ভূক্ত হইওনা’।


দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


 


অসৎ আনন্দের চেয়ে পবিত্র বেদনা মহৎ।


                                 -হোমার। 

নামাজ বেহেশতের চাবি এবং অজু নামাজের চাবি।             


শতবর্ষ ও পুনর্মিলনীর খেলাধুলায় মেতেছিলো গণি মডেল স্কুলের প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা
রাসেল হাসান
১০ জানুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


চৌধুরী ইয়াসিন ইকরাম মাত্র ৩ দিন আগে শেষ হলো চাঁদপুর শহরের ঐতিহ্যবাহী বিদ্যালয় গণি মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের শতবর্ষ ও প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের পুনর্মিলনী অনুষ্ঠান। এ অনুষ্ঠানটিতে যোগ দিয়েছিলেন বিদ্যালয়ে পড়ুয়া সাবেক শিক্ষার্থীরা। পুনর্মিলনী উপলক্ষে বিদ্যালয়ের প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের নিয়ে ব্যাপক আয়োজন করা হয় উদ্যাপন পরিষদের পক্ষ থেকে। খেলাধুলা, আড্ডা, আতশবাজি, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানসহ সবকিছুই ছিলো এ অনুষ্ঠানটিতে। অন্যান্য অনুষ্ঠানের পাশাপাশি শতবর্ষ ও পুনর্মিলনীতে খেলাধুলায় মেতেছিলেন গণি মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।



উদ্যাপন পরিষদের ক্রীড়া উপ-কমিটির পক্ষ থেকে পুনর্মিলনীর একদিন আগ থেকেই প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের নিয়ে ক্রীড়া প্রতিযোগিতা শুরু করেন। শুক্রবার বিকেলে চাঁদপুর আউটার স্টেডিয়াম সংলগ্ন বাস্কেটবল মাঠে বাস্কেটবল খেলা দিয়ে গণি মডেলের প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের খেলাধুলার কার্যক্রম শুরু হয়। আর এ বাস্কেটবল প্রতিযোগিতার পৌর মেয়র নাছির উদ্দিন আহাম্মেদ ও অ্যাডঃ সেলিম আকবর একাদশের মধ্যে দু' দলের অংশ নেয় খেলোয়াড়রা। এক সময় চাঁদপুরসহ চট্টগ্রাম বিভাগে বাস্কেটবল খেলায় যারা মাঠের এ প্রান্ত থেকে ও প্রান্ত দাবড়িয়ে বেড়িয়েছেন, তারাই এবার মাঠে নেমেছিলেন। ক্রীড়া প্রতিযোগিতার বাস্কেটবল ও ক্রীড়া প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন বিদ্যালয়ের শতবর্ষ ও প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের পুনর্মিলনীর আহ্বায়ক বিদ্যালয়ের প্রাক্তন শিক্ষার্থী চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও চাঁদপুর পৌরসভার মেয়র নাছির উদ্দিন আহাম্মেদ। উদ্বোধনকালে তিনি তার ক্ষুদ্র প্রতিক্রিয়ায় বলেন, আসলে আমি আমার বিদ্যালয়ের শত বর্ষপূর্তি অনুষ্ঠান উপভোগ করতে পেরে অনেক আনন্দিত। এ জেলার ঐতিহ্যবাহী একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হলো আমাদের এ বিদ্যালয়। এ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা আজ দেশের বিভিন্ন স্থানে বিভিন্নভাবে প্রতিষ্ঠিত। আজ যে বাস্কেটবল খেলা হচ্ছে, যারাই খেলছেন তারা একসময় ছিলেন বাস্কেটবলের সেরা খেলোয়াড়। আমাদের এ বিদ্যালয়ের সাবেক বাস্কেটবল খেলোয়াড়দের খেলা দেখতে চাঁদপুর সরকারি কলেজ মাঠসহ বিভিন্ন স্থানে দর্শকদের থাকতো উপচেপড়া ভিড়। বিদ্যালয়ের পুনর্মিলনী মানে সকলের সাথে সকলের অনেক দিন পর দেখা, নিজেদের খোঁজখবর নেয়া। বর্তমানে এ খেলা দেখে বিদ্যালয়ে পড়ুয়া শিক্ষার্থীরা পড়ালেখার পাশাপাশি খেলাধুলার প্রতি অনেক উৎসাহিত হবে।



উদ্যাপন পরিষদের সদস্য সচিব ও চাঁদপুর জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডঃ সেলিম আকবর বলেন, খেলাধুলা মনকে অনেক আনন্দ দেয়। বিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থীরা মিলে ক্রীড়া উপ-কমিটির মাধ্যমে যে খেলাধুলার আয়োজন করা হয়েছে এ জন্যে তাদেরকে ধন্যবাদ জানাই। চাঁদপুরের এক সময়ের ঐতিহ্যবাহী খেলা বাস্কেটবল খেলাটি অনেক দিন পর হলো বাস্কেটবল মাঠে। যারা বাস্কেটবলে একসময় জেলার রাজত্ব করতেন তারা গণি মডেলের শিক্ষার্থী ছিলেন। আমাদের এ খেলা শুধুমাত্র সাবেক শিক্ষার্থীদের জন্যেই নয়, তাদের পরিবার-পরিজনদের জন্যেও আমরা খেলাধুলার আয়োজন করেছি।



গণি মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের শত বর্ষপূর্তি ও প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের পুনর্মিলনীর ক্রীড়া উপ-কমিটির আহ্বায়কের দায়িত্ব পালন করেন চাঁদপুর জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও ক্রীড়া সংগঠক বিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থী এবং চাঁদপুর পৌরসভার সাবেক কাউন্সিলর দেওয়ান আরশাদ আলী ও সদস্য সচিবের দায়িত্ব পালন করেন বিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থী ক্রীড়া সংগঠক ও চাঁদপুর পৌরসভার কাউন্সিলর ডিএম শাহজাহান।



ক্রীড়া উপ-কমিটির আহ্বায়ক চাঁদপুর জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাবেক সাধারণ সম্পাদক দেওয়ান আরশাদ আলী বলেন, এ বিদ্যালয়ের অনেক শিক্ষার্থীই বিভিন্ন খেলাধুলার সাথে জড়িত ছিলেন। সাবেক শিক্ষার্থীদের নিয়েই দু' দিনব্যাপী ক্রীড়া প্রতিযোগিতাসহ ক্রীড়া সংগঠকদের সংবর্ধনার ব্যবস্থা করা হয়েছে ক্রীড়া উপ-কমিটির পক্ষ থেকে। ক্রীড়া উপ-কমিটির পক্ষ থেকে প্রাক্তন শিক্ষার্থী ও তাদের পরিবারের সদস্যদের জন্যে বাস্কেটবল, ফুটবল, চেয়ার খেলা, চকলেট দৌড়, দড়িলাফ, অ্যাথলেটসহ বিভিন্ন প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। তবে আমাদের উপ-কমিটির পক্ষ থেকে আমরা সকল কিছুই সুন্দরভাবে শেষ করেছি।



শুক্রবার বিকেল বাস্কেটল খেলা হলেও শনিবার চাঁদপুর স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হয় শিশুদের চকলেট দৌড়সহ বিভিন্ন প্রতিযোগিতা, মহিলাদের চেয়ার খেলা ও ফুটবল খেলা। শনিবার সন্ধ্যায় ক্রীড়া উপ-কমিটির পক্ষ থেকে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে অংশ নেন সাবেক শিক্ষার্থীরা।



বাস্কেটবল খেলায় অংশ নেয়া খেলোয়াড়রা হলেন : হানিফ পাটওয়ারী, সাখওয়াত, সঞ্জয়, রতন, হুমা, আফসার, কামাল, দিপু, সায়মন, মাসুদ, খোরশেদ, আরশাদ আলী, অনিক, আজিজ, নজরুল, গোপাল-২, জসিম, সিয়াম, সাহালম ও ডিএম শাজাহান।



বিদ্যালয়ে পড়ুয়া সাবেক ১০ ক্রীড়া সংগঠক ও ক্রীড়াবিদদের (সাবেক শিক্ষার্থী)দের সংবর্ধনা দেয়া হয়। বিদ্যালয়ে পড়ুয়া যে সমস্ত ছাত্র বিভিন্ন ইভেন্টে দেশের হয়ে খেলেছেন তাদের এবং ব্যাক্তিগতভাবে ক্রীড়া সংগঠকের বিদ্যালয়ের উৎসব কমিটির পক্ষ থেকে এ সংবর্ধনা দেয়া হয়। সংবর্ধিতরা হলেন : বাস্কেটবলে হানিফ পাটওয়ারী, সাঁতারে নূরুল আফসার, ফুটবলে জসিম পাটওয়ারী, ক্রীড়া সংগঠক নাছির উদ্দিন আহাম্মেদ, অ্যাডঃ সেলিম আকবর, নূরুল ইসলাম নূরু, আমিনুর রহমান বাবুল ও খোরশেদসহ অনান্য খেলোয়াড়রা।



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৩৫৯১০১
পুরোন সংখ্যা