চাঁদপুর। মঙ্গলবার ৬ জুন ২০১৭। ২৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৪। ১০ রমজান ১৪৩৮

বিজ্ঞাপন দিন

বিজ্ঞাপন দিন

সর্বশেষ খবর :

  • --
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

২৮-সূরা কাসাস 


৮৮ আয়াত, ৯ রুকু, ‘মক্কী’


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


৪৬। মূসাকে যখন আমি আহ্বান করিয়াছিলাম তখন তুমি তূর পর্বতপার্শ্বে উপস্থিত ছিলে না। বস্তুত ইহা তোমার প্রতিপালকের নিকট হইতে দয়াস্বরূপ, যাহাতে তুমি এমন এক সম্প্রদায়কে সতর্ক করিতে পার, যাহাদের নিকট তোমার পূর্বে কোন সতর্ককারী আসে নাই, যেন উহারা উপদেশ গ্রহণ করে;


দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


 


যে স্বল্প পরিমাণে সুগন্ধ পায় সে সুগন্ধের মাধুর্য বুঝে।                      


-মিনেকো।

মৃত্যুই অনন্ত পদযাত্রার প্রারম্ভ।


ক্রীড়াকণ্ঠের সাথে সাক্ষাৎকারে দেশসেরা সাঁতারু নূরুল ইসলাম
প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে সনদ নেয়াটাই আমার কাছে অনেক আনন্দ ও উৎসাহের
চৌধুরী ইয়াসিন ইকরাম
০৬ জুন, ২০১৭ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


বাড়ির পাশেই ডাকাতিয়া নদী। আর নদীর পাড়ে বাড়ি হওয়ায় এলাকার ছেলেদের ও বন্ধুদের সাথে নিয়মিত পানিতে নেমে সাঁতার কাটাটা ছিলো তার নিত্যদিনের কাজের একটি অংশ। আর সেই নদীতে সাঁতার কাটা চাঁদপুর শহরের দক্ষিণ গুণরাজদী এলাকার মোঃ নূরুল ইসলাম স্বপ্ন দেখছেন চাঁদপুরের ছেলে হিসেবে দেশকে সাঁতারে কিছু এনে দেয়া। বাবা শ্রমিক হলেও তার সন্তানদের ঠিকই পরিশ্রমের বিনিময়ে পড়াশোনা করাসহ সকল কিছুরই আবদার মিটিয়ে যাচ্ছেন। মোঃ নূরুল ইসলাম পড়াশোনা করছেন চাঁদপুর আহমদিয়া মাদ্রাসার আলিম (মানবিক ) বিভাগে। তার বাবার নাম মোঃ আব্দুল হামিদ, মায়ের নাম খুরশিদা বেগম। ৪ ভাই ও ৪ বোনের মধ্যে তার অবস্থান পঞ্চম। বাংলদেশ সুইমিং ফেডারেশন ও বাংলাদেশ নৌবাহিনীর তত্ত্বাবধানে ৪ মাস নিবিড় অনুশীলনের পর তার মন এখন আগের তুলনায় অনেক চাঙ্গা হয়ে গেছে। তার স্বপ্ন এখন নিজ জেলা চাঁদপুরকে সাঁতারের মাধ্যমে সারা দেশে পরিচয় করিয়ে দেয়া। যে ছেলে কিনা পড়াশোনা করা ও পারিবারিক কারণে ঠিকমতো রাজধানী ঢাকাতে যেতেন না, আর সেই নূরুল ইসলাম চার মাস ঢাকায় নৌবাহিনীর তত্ত্বাবধানে সাঁতার প্রশিক্ষণ দিয়ে দেশরত্ন ও জননেত্রী শেখ হাসিনার কাছ থেকে প্রশিক্ষণের ফলাফল স্বরূপ সনদ নেয়ার পর এখন আনন্দ ও উৎসাহের মধ্যে নতুন নতুন স্বপ্ন দেখছেন। আন্তঃস্কুল সাঁতার প্রতিযোগিতায় আনোয়ারা ইসলাম দাখিল মাদ্রাসা থেকে অংশ নিয়ে দেশের ক'টি জেলায় সাঁতারে অংশ নিয়েছেন। এরপর চাঁদপুর অরুণ নন্দী সুইমিং পুলে দীর্ঘদিন অনুশীলন করে যাচ্ছেন। জেলা ক্রীড়া সংস্থার পক্ষ থেকেও বেশ কয়েকটি সাঁতার টুর্নামেন্টে অংশ নিয়েছিলেন।



নৌবাহিনী ও বাংলাদেশ সুইমিং ফেডারেশনের যৌথ আয়োজনে গত বছর সারা বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলা থেকে সেরা সাঁতারুর খোঁজে সাঁতারু বাছাই করা হয়। চাঁদপুর অরুণ নন্দী সুইমিং পুলে জেলা ক্রীড়া সংস্থা ও চাঁদপুর সাঁতার পরিষদের ব্যবস্থাপনায় নৌবাহিনীর সেই 'সেরা সাঁতারুর খোঁজে বাংলাদেশ'-এর বাছাই কার্যক্রমে নূরুল ইসলাম অংশ নেন। আর সেই অংশ নেয়াতেই সুযোগ পান মিরপুর সুইমিং পুলে প্রশিক্ষণ নেয়ার এবং প্রশিক্ষণ শেষে নৌবাহিনীর সদর দপ্তরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছ থেকে প্রশিক্ষণের সনদ ও পদক গ্রহণ করার। গত ২৫ মে ঢাকার বনানীতে নৌবাহিনীর সুইমিং কমপ্লেঙ্ েউপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ নৌবাহিনীর প্রধান অ্যাডমিরাল নিজামউদ্দিন ওএসপি, বিসিজিএম, এনডিসি, পিএসসি, অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত, বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন, বাংলাদেশ সুইমিং ফেডারেশনের কর্মকর্তা ও চাঁদপুরের জেলা প্রশাসক মোঃ আব্দুস সবুর মন্ডলসহ ২৫ জেলার জেলা প্রশাসকগণ।



বাংলাদেশ নৌবাহিনী ও বাংলাদেশ সুইমিং ফেডারেশনের আয়োজনে সেরা 'সাঁতারুর খোঁজে'



সারা বাংলাদেশ থেকে ৬শ' সাঁতারু নির্বাচিত করা হয়। আর এসব সাঁতারুকে স্ব স্ব জেলা থেকে নির্বাচিত করেন আয়োজকরা । চাঁদপুর থেকে ২৫ জন সাঁতারু নির্বাচিত করা হয়েছিলো প্রথম পর্যায়ে। সেই বাছাইয়ে দলে ছিলেন মোঃ নূরুল ইসলাম। আর সারা বাংলাদেশ থেকে সর্বমোট ১শ' ৬০ জন সাঁতারু নির্বাচিত করে তাদেরকে ৪ মাসের প্রশিক্ষণ দেয়া হয়।



ক্রীড়াকণ্ঠের পক্ষ থেকে সাঁতারু মোঃ নূরুল ইসলামের সাথে আলাপকালে তিনি জানান, আমি চাঁদপুরবাসী, আমার পরিবারের বাবা-মা ও সকলের দোয়া নিয়ে নৌ-বাহিনীর তত্ত্ববধানে যে প্রশিক্ষণ নিয়েছি এটা আমার ভবিষ্যতের জন্য খুব কাজে লাগবে। এ ধরনের ট্রেনিং পেয়ে আমার কাছে খুব ভালো লাগছে। চাঁদপুরে তো সুইমিং পুল আছে, কিন্তু নিয়মিত সাঁতার প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা নেই। এ জেলা হচ্ছে সাঁতারু মালেক, অরুণ নন্দী স্যারসহ অনেক সাঁতারুর শহর। আর এ শহর থেকে আমি ঢাকাতে সাঁতার দেয়ার সুযোগ পেয়ে অনেক আনন্দিত । চাঁদপুরের জেলা প্রশাসক সহ প্রশাসনের অন্যরা এবং যারা সাঁতারের বিভিন্ন কমিটির সাথে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে রয়েছেন তারা যেনো চাঁদপুরের সাঁতারের ঐতিহ্যটাকে ধরে রাখার জন্য সুইমিংপুলটির প্রতি যেনো নজর দেন। সুইমিং পুলটির পানি পরিষ্কার থাকলে নিয়মিতভাবে সাঁতার প্রশিক্ষণ দেয়া যাবে। আমরা চাই নিয়মিতভাবে সাঁতার প্রশিক্ষণ দিয়ে যেতে, যাতে করে আগামীতে সাঁতারে আরো ভালো কিছু করতে পারি।



মোঃ নূরুল ইসলামের সাথে আলাপকালে তিনি আরো জানান, ২০১৩ সালে অষ্টম শ্রেণীতে পড়া অবস্থায় আনোয়ারা ইসলাম দাখিল মাদ্রাসা থেকে প্রথমে আন্তঃস্কুল সাঁতার প্রতিযোগিতায় অংশ নেন। ওইখান থেকে কুমিল্লা, চট্টগ্রাম ও খুলনায় পর্যন্ত ফাইনাল রাউন্ডে খেলেন। সাঁতারে তাকে তার কোচ সায়মন, ফাতেমা, সেলিম, ছানাউল্লাহ, তপন চন্দসহ অনেকে সহযোগিতা করেছেন। সবসময় সায়মন স্যারের পরামর্শে তিনি সাঁতার দিয়েছেন। ক্রীড়ামাসে চাঁদপুর মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব থেকে তিনি সাঁতারে অংশ নেন। তিনি জানান, সেরা সাঁতারুর খোঁজে সারা বাংলাদেশ থেকে প্রথম পর্যায়ে মোট ১২শ' ৬০ জন সাঁতারু বাচাই করা হয়। পরবর্তীতে সর্বশেষ ১শ' ৬০ জনকে ৪ মাসের প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। তাকে সাঁতারের ব্যাপারে তার বাবা-মাসহ পরিবারের অন্য সদস্যরা উৎসাহ দেন। তিনি যেনো সাঁতারে চাঁদপুরসহ বাংলাদেশের সুনাম অর্জন করতে পারে এ জন্য সকলের দোয়া ও আশীর্বাদ কামনা ও সহযোগিতা চেয়েছেন। ঢাকা থেকে আসার পর তাকে জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা বাবু বিভিন্ন বিষয়ে পরামর্শ দিয়েছেন এবং তাকে সাঁতার চালিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন।



মোঃ নূরুল ইসলাম চাঁদপুর এসে জেলা ক্রীড়া সংস্থার সভাপতি ও জেলা প্রশাসক মোঃ আব্দুস সবুর মন্ডলের সাথে দেখা করতে গেলে তিনি তাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান এবং এ সময় জেলা ক্রীড়া সংস্থার পক্ষ থেকে নূরুল ইসলামের প্রশিক্ষণের জন্যে ১০ হাজার টাকা অনুদান দেয়া হয়। উপস্থিত ছিলেন জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা বাবু, জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাঁতার কোচ ও বাংলাদেশ সুইমিং ফেডারেশনের সদস্য তপন চন্দসহ প্রশাসনিক কর্মকর্তাগণ।



 



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৭১৩৩০
পুরোন সংখ্যা