চাঁদপুর, মঙ্গলবার ১১ জুন ২০১৯, ২৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ৭ শাওয়াল ১৪৪০
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৫১-সূরা যারিয়াত


৬০ আয়াত, ৩ রুকু, মক্কী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


৩৯। তখন সে ক্ষমতার দম্ভে মুখ ফিরাইয়া লইলো এবং বলিলো, 'এই ব্যক্তি হয় এক জাদুকর, না হয় এক উন্মাদ।'


৪০। সুতরাং আমি তাহাকে ও তাহার দলবলকে শাস্তি দিলাম এবং উহাদের সমুদ্রে নিক্ষেপ করিলাম, সে তো ছিলো তিরস্কারযোগ্য।


 


 


 


assets/data_files/web

বাণিজ্যই হলো বিভিন্ন জাতির সাম্য সংস্থাপক। -গ্লাডস্টোন।


 


 


সেই ব্যক্তি শ্রেষ্ঠ মর্যাদার অধিকারী যে স্বল্পাহারে সন্তুষ্ট থাকে, অল্প হাসে এবং লজ্জাস্থান ঢাকিবার উপযোগী বস্ত্রে পরিতুষ্ট।


 


 


ফটো গ্যালারি
বিশ্বকাপ ক্রিকেট নিয়ে নেই পতাকা উড্ডয়ন এবং তেমন কোনো উচ্ছ্বাস
ক্রীড়াকণ্ঠ প্রতিবেদক
১১ জুন, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


বিশ্বকাপ ফুটবল শুরুর অনেক আগে থেকেই বাংলাদেশের সর্বত্র বিভিন্ন দলের সমর্থকরা পতাকা উড্ডয়নের প্রতিযোগিতায় নামে। এছাড়া খেলোয়াড়দের পোশাক পরিধান, বিভিন্ন স্থাপনায় পতাকা অাঁকাসহ বহুবিধ উন্মাদনায় ভক্তরা অনেক বাড়াবাড়ি করে। একসময় বাংলাদেশের ফুটবল সমর্থকরা আবাহনী ও মোহামেডান নামে দু শিবিরে বিভক্ত ছিলো। কিন্তু নূতন শতাব্দীতে এসে সেই বিভক্তি নেই বললেই চলে। এখন ক্রিকেটকে নিয়েই যতো উত্তেজনা। আইপিএল, বিপিএলে টি-টুয়েন্টি ধাঁচের টুর্নামেন্টে বিভিন্ন দলের খেলা দেখার জন্যে অনেকের মাঝে দেখা যায় বিপুল উৎসাহ। তবে পতাকা উড়ানোর মতো মানসিকতা দেখা যায় না।



ক্রিকেটের জনপ্রিয়তার মাঝে বাংলাদেশে ফুটবলের জনপ্রিয়তা একেবারে হারিয়ে যায়নি। বাংলাদেশ বিশ্বকাপ ফুটবলে খেলতে পারছে না কিংবা খেলার যোগ্যতা অর্জনের পথে হাঁটছে না দেখে ফুটবল সমর্থকরা বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনসহ সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি ভীষণ বিরক্ত ও নাখোশ। কিন্তু ফুটবলের প্রতি আদৌ বিরক্ত নয়। সেজন্যে বিশ্বকাপ ফুটবল আসলেই যে দলকে তারা সমর্থন করে সে দলের পতাকা তাদের বাসা-বাড়ি-কর্মস্থল, সড়কসহ বিভিন্ন স্থানে উড্ডয়ন করে, ব্যানার, ফেস্টুন, বিলবোর্ড সাঁটায় ও খেলোয়াড়দের পোশাক পরিধান করে। বিশ্বকাপ ফুটবল উপলক্ষে বাংলাদেশে সবচে' বেশি পতাকা উড়ে ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনার। সমর্থকরা সর্বাধিক পোশাক পরে এ দুটি দলের। মনে হয় পুরো দেশ ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনা শিবিরে বিভক্ত হয়ে পড়ে।



দুঃখজনক হলেও সত্য, ইংল্যান্ডে গত ৩০ মে থেকে বিশ্বকাপ ক্রিকেটের জমজমাট আসর চললেও এবং এই আসরে বাংলাদেশ অংশ নিলেও আমাদের জাতীয় পতাকা ওড়ানোর মানসিকতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে না ভক্ত-সমর্থকদের মাঝে। তবে বাংলাদেশ দলের পোশাক পরিধানের প্রবণতা সীমিতভাবে লক্ষ্য করা যাচ্ছে। প্রত্যাশিত মাত্রার উচ্ছ্বাসও দৃষ্টিগোচর হচ্ছে না তেমন।



একসময় বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও ভারত ক্রিকেট দলের ভক্ত ছিলো অনেক। বাংলাদেশ বিশ্বকাপ ক্রিকেটসহ আন্তর্জাতিক মানের সব ম্যাচে খেলছে বলে এখন সেই ভক্তদের সংখ্যা অনেক কমে গেছে। অন্যথায় লজ্জাজনকভাবে ভক্ত-সমর্থকরা পাকিস্তান ও ভারত শিবিরে বিভক্ত থাকতো।



বিগত বিশ্বকাপ ক্রিকেট চলাকালে সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগে বড় পর্দায় খেলাগুলো দেখানোর ব্যাপক আয়োজন লক্ষ্য করা যায়। এবার সেই আয়োজন নেই বললেই চলে। বাংলাদেশ দল তিনটি খেলার প্রথমটিতে জয়ী হলেও পর পর দুটিতে হেরে যাওয়ায় ভক্ত-সমর্থকরা ভীষণ হতাশ। বাকি ছয়টি খেলায় একের পর পর জয়ী হলে কিংবা অন্তত চারটিতে জয়ী হয়ে সেমি-ফাইনালের পথে হাঁটলে হয়তো উচ্ছ্বাস বাড়বে, প্রত্যাশার বাড়তি চাপে নানা উন্মাদনাও লক্ষ্য করা যাবে। দেশবাসীর চাওয়া কিন্তু সেটাই।



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৫৮৯৮২৯
পুরোন সংখ্যা