চাঁদপুর, বুধবার ৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২০ ভাদ্র ১৪২৬, ৪ মহররম ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৫৮-সূরা মুজাদালা


২২ আয়াত, ৩ রুকু, মাদানী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


০৫। যাহারা আল্লাহ ও তাহার রাসূলের বিরুদ্ধাচরণ করে, তাহাদিগকে অপদস্থ করা হইবে যেমন অপদস্থ করা হইয়াছে তাহাদের পূর্ববর্তীদিগকে; আমি সুস্পষ্ট আয়াত অবতীর্ণ করিয়াছি; কাফিরদের জন্যে রহিয়াছে লাঞ্চনাদায়ক শাস্তি।


 


 


 


 


assets/data_files/web

কোনো কোনো সময় প্রকৃতি বিদ্রোহ করলে মানুষ তার সুযোগ গ্রহণ করে। -ইয়ং।


 


 


দাতার হাত ভিক্ষুকের হাত অপেক্ষা উত্তম। যে ব্যক্তি স্বাবলম্বী ও তৃপ্ত হতে চায়, আল্লাহ তাকে স্বাবলম্বন ও তৃপ্তি দান করেন।


 


 


ফটো গ্যালারি
আমি ভালো উইকেটরক্ষক ও ব্যাটসম্যান হতে চাই
----------------------------সাঈদ আলম (মাহাজ)
চৌধুরী ইয়াসিন ইকরাম
০৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


ক্রিকেট অনেক আগে থেকেই তার প্রিয় খেলা। স্কুলে ভর্তি হওয়ার সাথে সাথেই বাবা-মাকে আবদার করে ক্রিকেট খেলার জন্যে। উদয়ন শিশু বিদ্যালয়ের প্রথম শ্রেণী পার হওয়ার পরই ভর্তি হয় চাঁদপুর ক্লেমন ক্রিকেট একাডেমিতে। গত ২ বছর ধরে এই একাডেমি সংলগ্ন আউটার স্টেডিয়াম মাঠে নিয়মিত অনুশীলন করে যাচ্ছে এ খুদে ক্রিকেটার। এ ক্রিকেটারের নাম সাঈদ আলম (মাহাজ)। সে বর্তমানে পড়াশোনা করছে চাঁদপুর শহরের কবি নজরুল সড়কস্থ উদয়ন শিশু বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণিতে। তার বাবা আলহাজ্ব মোঃ নূরুল আলম (লালু) ও মাতা রাবেয়া আলম। বাবা হলেন এলিট চাইনিজ রেস্টুরেন্ট এন্ড পার্টি সেন্টার ও এলিট ভোজনবিলাসের প্রোপ্রাইটর।



চাঁদপুর ক্লেমন ক্রিকেট একাডেমিতে তার মতো প্রাইমারি স্কুলে পড়া অনেক শিক্ষার্থীই একসাথে অনুশীলন করে যাচ্ছে। প্রতিদিন দুপুর ২টার পর থেকে একাডেমির সিডিউল অনুযায়ী খুদে ক্রিকেটার থেকে বিভিন্ন বয়সের ক্রিকেটারদের অনুশীলন চলে। ছোটদের জন্যে আলাদা আলাদা অনুশীলনের ব্যবস্থা রয়েছে এ একাডেমিতে।



আউটার স্টেডিয়াম সংলগ্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ডে গত সপ্তাহে অনুশীলন চলাকালে ক্রীড়াকণ্ঠের পক্ষ থেকে কথা হয় সাঈদ আলম (মাহাজ)-এর সাথে। তার কাছে জানতে চাওয়া হয় কবে থেকে এ একাডেমিতে অনুশীলন করছে। সে জানায় ক্লাস ওয়ানে পড়া অবস্থায়ই তার বাবা ও মা তাকে ওই একাডেমিতে ভর্তি করে দেয়। শুধুমাত্র স্কুলের পরীক্ষা, একাডেমির ছুটি এবং আবহাওয়া খারাপ থাকলে মাঠে আসে না। আর না হলে প্রতিদিনই স্কুল শেষে দুপুর হলে চলে আসে একাডেমিতে। তার কাছে ভালো লাগে উইকেটের পেছনে থাকতে আর ব্যাটিং করতে। সে জানায়, আমার ইচ্ছা আমি ভালো উইকেটরক্ষক ও ডানহাতি ব্যাটসম্যান হবো। সে জানায়, এ পর্যন্ত চাঁদপুর স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত খুদে ক্রিকেটারদের কার্নিভালে দুবার অংশ নিয়েছে। তাদের একাডেমির বড় স্যার (কোচ) হচ্ছেন শামিম ফারুকী। আর তাদের দায়িত্বে রয়েছেন একাডেমির কোচ রাজন দা। তার ভালো লাগে সাকিবের ব্যাটিং ও মুশফিকের উইকেট কিপিং। সে নিয়মিত খেলাধুলা করে এবং নিয়মিত টিভিতে ক্রিকেট খেলা দেখে। সে সকলের দোয়া চায় যেনো এ একাডেমীতে অনুশীলন করে বিকেএসপিতে ভর্তি হওয়ার সুযোগ পায় এবং ভালো ক্রিকেটার হতে পারে।



 



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
১৭৫৮৭
পুরোন সংখ্যা