চাঁদপুর, শনিবার ৬ জুন ২০২০, ২৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ১৩ শাওয়াল ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৬৯-সূরা হাক্কা :


৫২ আয়াত, ২ রুকু, মক্কী


৩৪। এবং অভাবগ্রস্তকে অন্নদানে উৎসাহিত করিত না,


৩৫। অতএব এইদিন সেথায় তাহার কোন সুহৃদ থাকিবে না,


৩৬। এবং কোন খাদ্য থাকিবে না ক্ষত নিঃসৃত স্রাব ব্যতীত,


 


 


 


অতিরিক্ত চাহিদাই মানুষের পতনকে ডেকে আনে।


-জন অলকৃট।


 


 


 


মানবতাই মানুষের শ্রেষ্ঠতম গুণ।


 


 


 


 


ফটো গ্যালারি
করোনায় মৃত্যুই কি বেশি শোকের?
হাসান আলী
০৬ জুন, ২০২০ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


হুজুগে-গুজবে আমাদের তুলনা হয় না। ব্যথা দেয়া এবং পাওয়া আমাদের জাতীয় উৎসবের অংশ। শিক্ষক কান ধরেছে তাই সবাই কান ধরে ছবি পোস্ট দিয়েছে। যখন শিক্ষকের মাথায় গু ঢেলেছে এবং পানিতে ফেলেছে তখন আর প্রতিবাদকারীরা গু মাখার কিংবা পানিতে পড়ার নিজেদের ছবি পোস্ট দেয়নি। আমাদের বিশ্বাসের মাত্রা এতো তীব্র থাকে যে, আমরা চাঁদে পর্যন্ত মানুষ দেখতে পাই। যদিও বর্ষায় মেঘনা নদীর এপার-ওপার দেখা যায় না।



করোনায় মানুষ মরছে এটা তো সত্যি। মানুষ আর কি কোনো রোগে মরছে না? করোনায় মৃত্যু হলেই কি বেশি শোকের? অন্য রোগে মৃত্যুতে কি শোক হালকা? দৈনিক গড়ে আড়াই হাজারের অধিক মানুষ মরছে। প্রতিরোধযোগ্য হৃদরোগ, স্ট্রোক, ক্যানসার, ডায়াবেটিস রোগে হরদম লোক মরছে। করোনা ছাড়া বাকি রোগের চিকিৎসা পাওয়া এতো কঠিন হল কেনো? পৃথিবীর কোন্ কাজে ঝুঁকি নাই? মানুষ কি ঝুঁকি নেয়নি?



স্বাস্থ্যখাতে বাজেটে বরাদ্দ থাকে পঁচিশ হাজার কোটি টাকার বেশি। বিদ্যমান সুযোগ-সুবিধা সাধারণ মানুষ পায় কিনা খোঁজ খবর নেই। হাসপাতালে যন্ত্রপাতি কেনার নামে কী হয় তা আমরা শুনি। পর্দা কিনতে লাখ লাখ টাকা খরচকারীরা পর্দার আড়ালে আছে। মূল্যবান যন্ত্রপাতি বেশি দামে কিনে স্টোরের বারান্দায় ফেলে রাখছে। রোগীর ওষুধ নিয়ে অভিযোগ-নালিশ চলছে। কেরানি সাহেবও কোটি টাকার মালিক। এ হরিলুট তো আমরা মেনে নিয়েছি। হাসপাতালে রোগ নির্ণয়ের যন্ত্রপাতি বিকল থাকার ঘটনা নতুন কিছু নয়। ডাক্তার-নার্স অন্যান্য কর্মীদের আচরণ আমাদের সাধারণ মানুষের কষ্ট লাঘবে কতখানি কার্যকর সেটাও প্রশ্নের মুখে পড়েছে। আপনার পেশা মানুষের মধ্যে আকাঙ্ক্ষা তৈরি করে। সেটাও কি অন্যায়? আপনি পেশাদারিত্ব বাদ দিয়ে আবেগপ্রবণ পোস্ট দিবেন কেনো? আপনি তো এ দেশের আলো-বাতাসে বড় হয়েছেন।



এতোদিন মানুষ যতখানি স্বাস্থ্যসেবা পেতো এখন তা তলানিতে এসে ঠেকেছে। কোভিড-১৯ নেগেটিভ না হলে কোনো হাসপাতালে চিকিৎসা পাওয়া যাচ্ছে না। এ টেস্ট কতখানি সহজলভ্য তা ভুক্তভোগী মাত্রই জানেন। জরুরি চিকিৎসা পাওয়া কঠিন। বিশেষজ্ঞ ডাক্তার হাসপাতালে যান কি না এটা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। স্বাস্থ্য বুলেটিনে হাসপাতালগুলোতে কত শয্যা আছে এবং বর্তমানে কতজন ভর্তি আছে এ সংবাদ প্রচার হলে সঠিক চিত্র ফুটে উঠবে।



রোগী হাসপাতালের দ্বারে দ্বারে ঘুরে চিকিৎসা না পেয়ে মৃত্যুবরণ করা কতটা কষ্টের তা পরিবারের সদস্যরা জানেন।



অঙ্েিজন ভেন্টিলেটার কেনার মতো ধনী মানুষের অভাব? মুনাফা ছাড়া বিনিয়োগ হবে কেনো? করোনায় ধনী আক্রান্ত হচ্ছে, সেজন্যে তাদের প্রায় সবারই বাসায় আইসিইউর সুবিধা রেখে মেডিকেল বেড থাকবে, যাতে বাসায় সর্বোচ্চ সেবা পায়।



উন্নত স্বাস্থ্যসেবার ওয়াজ-নসিহতকারীরা উন্নত দেশের দুরবস্থা দেখে নতুন থিওরি নিয়ে কাজ করছে। 'এই দুনিয়া কিছু না' বলে যারা আমাদের শান্ত রাখতো তাঁরা বিশ্রামে আছেন। প্রয়োজনে বুকের রক্ত দেবার ঘোষণাকারীরা পর্দার আড়ালে প্রস্তুতি নিচ্ছেন। যারা বলেছে 'গরম আসলে, রোজার পরে, বৃষ্টি হলে, থানকুনি পাতা খেলে, তিন টোকা দিলে, গরুর মুত খেলে ঠিক হয়ে যাবে' তারা কিছুটা হতাশ।



পরিবেশ পরিস্থিতির কারণে কোনো কোনো মৃত্যু শোকের কিংবা সুখের। শত্রুপক্ষের লোকের মৃত্যুতে আমাদের যেমন ভালো লাগে, তেমনি মিত্রপক্ষের লোকের মৃত্যুতে কষ্ট লাগে। এখন যদি আমাদের অপছেন্দর কোনো দেশের রাষ্ট্রপতি (ডোনাল্ড ট্রাম্প নয়) মারা যান তবে উল্লাস করবো, যদি ঝুঁকি থাকে ভেতরে ভেতরে উল্লাস করবো।



চীনের নেতা মাওসেতুং বলেছেন, জনগণের কাছে শিখো। জনগণ সকল সতর্কতা উপেক্ষা করে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসতে চাইছে। আমাদের দেশের সাধারণ মানুষ ঘরের বাইরে চলে এসেছে, আর আতঙ্কবাদীরা ঘরে বসে লকডাউনের উপকারিতার বর্ণনা দিচ্ছে।



ফ্লয়েডের হত্যাকা-ের প্রতিবাদে আমেরিকায় লাখ লাখ মানুষ রাস্তায় বেরিয়ে এসে বিক্ষোভ করছে। তারা সামাজিক দূরত্ব মানেনি, এমনকি অনেকেই মাস্ক পরেনি।



প্লিজ করোনা আতঙ্ক বাদ দিন। প্রাণঘাতী অন্যান্য রোগের চিকিৎসায় এগিয়ে আসুন প্লিজ। দয়া করে মানুষের ধৈর্যের পরীক্ষা নিবেন না।



লেখক : প্রবীণ বিশেষজ্ঞ।



 



 



 


এই পাতার আরো খবর -
    আজকের পাঠকসংখ্যা
    ৫৩২৬৯৪
    পুরোন সংখ্যা