চাঁদপুর। সোমবার ১০ এপ্রিল ২০১৭। ২৭ চৈত্র ১৪২৩। ১২ রজব ১৪৩৮
ckdf

বিজ্ঞাপন দিন

সর্বশেষ খবর :

  • ***
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

২৭-সূরা নাম্ল 


৯৩ আয়াত, ৭ রুকু, ‘মক্কী’


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


৮২। যখন ঘোষিত শাস্তি উহাদের নিকট আসিবে তখন আমি মৃত্তিকাগর্ভ হইতে বাহির করিব এক জীব, যাহা উহাদের সহিত কথা বলিবে, এই জন্যে যে, মানুষ আমার নিদর্শনে অবিশ্বাসী। 


দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন

assets/data_files/web

সঙ্গ দোষেই মানুষ খারাপ হয়।       -প্রবাদ।


যার হৃদয়ে বিন্দু পরিমাণ অহঙ্কার আছে সে কখনো বেহেস্তে প্রবেশ করতে পারবে না।  


ফটো গ্যালারি
সফল অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে
চাঁদপুর ডায়াবেটিক হাসপাতালে পূর্ণাঙ্গ সেবা কার্যক্রম শুরু
উজ্জ্বল হোসাইন
১০ এপ্রিল, ২০১৭ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


 চাঁদপুর ও পার্শ্ববর্তী জেলার মানুষের চিকিৎসাসেবার জন্যে ১৯৮৭ সালে চাঁদপুর ডায়াবেটিক সমিতি প্রতিষ্ঠিত হয়। চাঁদপুর ডায়াবেটিক হাসপাতাল প্রতিষ্ঠার মূল উদ্যোক্তাদের মধ্যে আলহাজ্ব ডাঃ এম এ গফুর ও আলহাজ্ব জাহাঙ্গীর আখন্দ সেলিমসহ অনেকেই বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ আন্তর্জাতিক সেবামূলক সংস্থা রোটারী ইন্টারন্যাশনালের সাথে জড়িত। এই রোটারীর মূলমন্ত্রই হচ্ছে 'সেবা স্বার্থের ঊধর্ে্ব' (Service  Above Self)। সেজন্যে বাংলাদেশের হাতে গোণা অল্প ক'জন প্রবীণ রোটারিয়ানের অন্যতম, চাঁদপুর রোটারী ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সহ-সভাপতি, চাঁদপুর ডায়াবেটিক সমিতির প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব ডাঃ এম এ গফুর ও তাঁর স্ত্রী বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ প্রফেসর মাহমুদা খাতুন নিজেদের মালিকানাধীন মূল্যবান জায়গা চাঁদপুর ডায়াবেটিক হাসপাতালের সুন্দর ভবন নির্মাণের জন্যে দান করেছেন। একই ভূমিকা বর্তমান সাধারণ সম্পাদক রোটারিয়ান আলহাজ্ব মোঃ জাহাঙ্গীর আখন্দ সেলিমসহ চাঁদপুর ডায়াবেটিক সমিতি ও হাসপাতালের সাথে সংশ্লিষ্ট আরো অনেকেই। প্রতিষ্ঠাকালীন সময় থেকে চাঁদপুর ডায়াবেটিক সমিতি পরিচালিত চাঁদপুর ডায়াবেটিক হাসপাতালটি ডায়াবেটিক রোগীদের চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাচ্ছে। এক সমীক্ষায় দেখা যায়, ২০১৫-১৬ অর্থ বছরে ৫০ হাজার ৫শ' ১১ জন ডায়াবেটিক রোগীর চিকিৎসা সেবা দেয়া হয়েছে। ৩ হাজার ৮শ' ১ জন নন ডায়াবেটিক রোগীর পরীক্ষা নিরীক্ষা ও চিকিৎসা সেবাও দেয়া হয়েছে। এখানে নিবন্ধিত রোগীদের প্রয়োজনীয় প্যাথলজিক্যাল ও অন্যান্য পরীক্ষা মেডিকেল অফিসারদের ব্যবস্থায় ২৫% মওকুফ করা হয়। আলোচিত বছরে বিশেষ হ্রাসকৃত মূল্যে বাডাস, ঢাকা হতে প্রদত্ত ইনসুলিন এ হাসপাতালের সমাজকল্যাণ বিভাগের মাধ্যমে ৪৬৪ জন নিবন্ধিত গরিব ডায়াবেটিক রোগীর মাঝে বিতরণ করা হয়েছে। ক্রমবর্ধমান গরিব রোগীরা যেন বিনামূল্যে প্রদত্ত ইনসুলিন ও চিকিৎসা সেবা হতে বঞ্চিত না হয় সেজন্য হাসপাতালে যাকাত/অন্য কোন উৎস হতে প্রাপ্ত অর্থ দ্বারা বিনামূল্যে ইনসুলিন বা চিকিৎসা সেবা দেয়ার জন্য তহবিল গঠন করা হয়েছে।



চাঁদপুর ডায়াবেটিক সমিতি পরিচালিত হাসপাতালে ৮ জন মেডিকেল অফিসার, ১ জন দন্ত চিকিৎসক, ১ হেলথ এডুকেটর, ১ ফিজিওথেরাপিস্ট, ৩ জন ডিপ্লোমাধারী সিনিয়র নার্স, ৪ জন ডিপ্লোমাধারী টেকনোলজিস্টসহ প্রায় ৭০জন কর্মকর্তা-কর্মচারী কর্মরত আছেন। সকল ডাক্তার বাডাস-এর ডিএলপি কোর্স সম্পন্ন করেছেন। ডাক্তারদের জ্ঞানবৃদ্ধির জন্য সেমিনার, ওয়ার্কশপে পাঠানো হয়ে থাকে। প্রত্যহ আগত রোগীদের ডায়াবেটিস রোগ সম্পর্কে সম্যক ধারণা দান, নিয়ন্ত্রণের প্রয়োজনীয় পরামর্শসহ রোগ প্রতিরোধকল্পে কার্যকর ভূমিকা পালনের জন্য উদ্বুদ্ধকরণ এবং খাদ্য ও পুষ্টি বিষয়ে জ্ঞান দানের জন্য প্রতিদিন স্বাস্থ্য প্রশিক্ষক দ্বারা স্বাস্থ্য বিষয়ক ক্লাসের ব্যবস্থা আছে। গত ১ জানুয়ারি ২০১৭ গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের স্বাস্থ্য পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব সিরাজুল ইসলাম অনাড়ম্বর এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ইনডোর কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন। বর্তমানে হাসপাতালটিতে সব ধরনের অপারেশনসহ সকল রোগের চিকিৎসা সেবা দেয়া হচ্ছে। বিগত ১৬ মার্চ বৃহস্পতিবার সফল অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে অপারেশন কার্যক্রমও শুরু হয়। হাসপাতালে বর্তমানে যে সব সেবা কার্যক্রম চালু আছে তার মধ্যে অন্যতম হলো :



১) আউটডোর বিভাগে বারডেম থেকে প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত চিকিৎসকের মাধ্যমে ডায়াবেটিক রোগীদের চিকিৎসা সেবা



২) অত্যাধুনিক বায়ো-কেমিস্ট্রি এনালাইজার সমৃদ্ধ ল্যাবরেটরীতে রক্তের সকল ধরনের পরীক্ষা নীরিক্ষার ব্যবস্থা



৩) রেডিওলজি বিভাগে অত্যাধুনিক ৫০০ এমএ এঙ্-রে ও ইসিজি মেশিনে রোগ নির্ণয়



৪) সর্বাধুনিক আলট্রাসনোগ্রাম কালার ডপলার



৫) আধুনিক ডেন্টাল বিভাগে দাঁতের সব ধরনের চিকিৎসা সেবা



৬) সকল ধরনের বড় ছোট অপারেশনের ব্যবস্থা



৭) মহিলা রোগীদের নরমাল ও সিজারিয়ান ডেলিভারীর ব্যবস্থা



৮) বাত ব্যথা, প্যারালাইসিস ও যে কোনো জয়েন্টে ব্যথা রোগীদের আধুনিক যন্ত্রপাতির মাধ্যমে ফিজিওথেরাপীর ব্যবস্থা আছে।



৯) নবজাতক শিশুদের জন্য বেবি ওয়ার্মার, বেবি কেয়ার ইউনিট, ফটোথেরাপির ব্যবস্থা আছে।



হাসপাতালের সেবা কার্যক্রম বৃদ্ধির লক্ষ্যে প্রতিবছরই জেলার বিভিন্নস্থানে বিনামূল্যে ডায়াবেটিক ক্যাম্প, বিশ্ব ডায়াবেটিক দিবস, ডায়াবেটিক সেবা দিবস, স্বাস্থ্য দিবস ও তথ্য দিবসে বিনামূল্যে ডায়াবেটিক ক্যাম্প করা হয়।



এছাড়াও হাসপাতালে ডরভর ইন্টারনেট সংযোগ, ওয়েবসাইট, ইরড়সবঃৎরপ এটেনডেন্স পদ্ধতি চালু, সেবার মান আধুনিকায়নে সফটওয়্যার সিস্টেম চালু, পুরুষ ও মহিলা রোগীদের পৃথক নামাজের স্থান, নিরাপত্তার জন্যে সিসি টিভি ক্যামেরা, কেবিন সমূহে আলাদা বাথরুমের ব্যবস্থা, পুরুষ ও মহিলাদের পৃথক বাথরুমের ব্যবস্থা রয়েছে।



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৭১৮৬
পুরোন সংখ্যা