চাঁদপুর। সোমবার ৫ জুন ২০১৭। ২২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৪। ৯ রমজান ১৪৩৮
ckdf

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

২৮-সূরা কাসাস 


৮৮ আয়াত, ৯ রুকু, ‘মক্কী’


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


৪৫। বস্তুত আমি অনেক মানবগোষ্ঠীর আবির্ভাব ঘটাইয়াছিলাম; অতঃপর উহাদের বহু যুগ অতিবাহিত হইয়া গিয়াছে। তুমি তো মাদইয়ানবাসীদের মধ্যে বিদ্যমান ছিলে না উহাদের নিকট আমার আয়াত আবৃত্তি করিবার জন্য। আমি তো ছিলাম রাসূল প্রেরণকারী। 


দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


 


যে কোনো দিন পরাজিত হয়নি সে কোনো দিন বিজয়ী হতে পারবে না।                      


-হেরনি ওয়ার্ড।


 

যে শিক্ষা গ্রহণ করে তার মৃত্যু নেই।


খাওয়ার প্রবণতা বৃদ্ধির কারণ সমূহ
ডাঃ পীযূষ কান্তি বড়ুয়া
০৫ জুন, ২০১৭ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


জীবন বাঁচাতে খাদ্য গ্রহণের আবশ্যকতা আছে। অ্যা ম্যান ইজ হোয়াট অ্যা ম্যান ইটস্। অর্থাৎ একজন মানুষ তার খাদ্যগুণেই অস্তিত্বশীল। রোগব্যাধি হলে অধিকাংশ মানুষেরই অতি সাধারণ একটি অভিযোগ শোনা যায়। খেতে রুচি নেই কিংবা আগের মতো খেতে পারছি না। চিকিৎসা বিজ্ঞানে ঠিক এর বিপরীত অবস্থা ও ব্যাখ্যাও আছে। কিছু কিছু শারীরবৃত্তীয় অবস্থায় এবং কিছু কিছু রোগে মানুষের খাবার গ্রহণের প্রবণতা বাড়ে। রমজানের পবিত্র এই সংযমের মাসে কি কি রোগে বা অবস্থায় মানুষের খাদ্য গ্রহণের প্রবণতা বাড়ে তা জেনে নেয়া উচিত। বয়সন্ধির শেষের দিকে এবং প্রাপ্ত বয়ষ্কতার প্রাথমিক পর্যায়ে অতি খাবার গ্রহণের প্রবণতা তৈরি হয়। ক্ষুধার্ত না হলেও এ সময় খেতে মন চায় এবং খাবার গ্রহণ হতে নিজেকে বিরত রাখা কঠিন হয়ে পড়ে।



লক্ষ্মণ:



* খাবার গ্রহণপ্রবণতা বন্ধ করতে পারে না এবং খাদ্য গ্রহণে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলে।



* খুব দ্রুত অধিক পরিমাণে খাবার গ্রহণ করে ফেলে।



* খিদে না লাগলেও এরা খায়।



* পরবর্তীতে খাওয়ার জন্যে খাদ্য লুকিয়ে রাখে।



* সবার সাথে থাকলে স্বাভাবিকপ্রবণতা দেখায় কিন্তু একা থাকলে গপাগপ খায়।



* সারাদিন কোনো পরিকল্পনা ছাড়াই খায়।



* এদের মানসিক চাপ, আবেগ, স্ট্রেস কেবলমাত্র খাদ্য গ্রহণে কমে।



* খাদ্য গ্রহণে তারা বিব্রত থাকে।



* যখনই খাবার গ্রহণের ইচ্ছে জাগে তখনই শরীর ঝিম ঝিম করতে থাকে।



* খাদ্য গ্রহণ শেষে কখনোই সন্তুষ্ট হয় না।



* অতিরিক্ত খাওয়ার পর অনুশোচনায় ভোগে।



* ওজন কমানো এবং খাদ্য গ্রহণের হার কমিয়ে আনতে এরা জানপ্রাণ চেষ্টা করে ও সদা তৎপর থাকে।



কারণ ও ফলাফল



* জীনগত কারণ



* আবেগীয় কারণ



* অভিজ্ঞতা



অতি খাদ্যগ্রহণ প্রবণতার পরিণতি



* স্ট্রোক বাড়ে



* অনিদ্রায় ভোগে



* আত্মহত্যার প্রবণতা বাড়ে



* বিষণ্নতা ও উদ্বেগ বাড়ে



* ওজন বাড়ে



 



যে সকল রোগে অতিরিক্ত খাদ্যগ্রহণ প্রবণতায় ভোগে



* গর্ভাবস্থা



* ডায়াবেটিস



* ডিজিটালিস টঙ্িিসটি



* নিকোটিন আসক্তি



* মারিজুয়ানা আসক্তি



* এইডস



* প্রসবোত্তর বিষণ্নত া



* গ্রেইভ্স ডিজিজ



* হাইপার থাইরয়েডিজম



* গ্লুকাগোনোমা



* গর্ভকালীন ডায়াবেটিস



* সাধারণ বিষণ্নতা



* উদ্বেগ



* সিজনাল অ্যাফেক্টিভ ডিজঅর্ডার



* বুলিমিয়া ইত্যাদি



প্রতিকার



* সুনিদ্রা



* ব্যায়াম



* পারিবারিক সাহচর্য



* অন্তর্নিহিত কারণের চিকিৎসা



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
১৫৯৮৬১৯
পুরোন সংখ্যা