চাঁদপুর। সোমবার ১৩ নভেম্বর ২০১৭। ২৯ কার্তিক ১৪২৪। ২৩ সফর ১৪৩৯

বিজ্ঞাপন দিন

বিজ্ঞাপন দিন

সর্বশেষ খবর :

  • ---------
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৩১-সূরা লোকমান


৩৪ আয়াত, ৪ রুকু, ‘মক্কী’


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


৩৩। হে মানবজাতি!  তোমরা তোমাদের পালনকর্তাকে ভয় করো এবং ভয় করো এমন এক দিবসকে, যখন পিতা পুত্রের কোনো কাজে আসবে না এবং  পুত্রও তার পিতার কোনো উপকার করতে পারবে না, নিঃসন্দেহে আল্লাহর ওয়াদা সত্য। অতএব, পার্থিব জীবন যেন তোমাদেরকে ধোঁকা না দেয় এবং আল্লাহ সম্পর্কে প্রতারক শয়তানও যেন তোমাদেরকে প্রতারিত না করে।


দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


 


 


 


দুপুরের খাবার গ্রহণের পর সামান্য বিশ্রাম নিও এবং রাতের খাবারের পর পূর্ণ বিশ্রাম নিও।                                         


                        -ডাব্লিউ টি হেলমুর্থ।


যে ব্যক্তি (অভাবগ্রস্ত না হয়ে) ভিক্ষা করে, কেয়ামতের দিন তার কাপালে একটি প্রকাশ্য ঘা হবে ।


 

কর্মজীবনে মেজ সন্তানরাই বেশি সফল!
১৩ নভেম্বর, ২০১৭ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


 



পরিবারে বড় বা ছোট সন্তানের চেয়ে মেজ সন্তানরা বুদ্ধিমান, বন্ধুবৎসল, ধৈর্যশীল, সহনশীল, ডিপ্লোম্যাটিক ও ব্যক্তিগত এবং কর্মজীবনে বেশি সফল হয়। সমপ্রতি এক গবেষণায় এই তথ্য উঠে এসেছে। ইউনিভার্সিটি অব অ্যাডিনবার্গের একটি অ্যানালাইসিস গ্রুপ এবং ইউনিভার্সিটি অব সিডনির সামপ্রতিক একটি গবেষণা জানিয়েছে এমন তথ্য। পাঁচ হাজার মানুষের ওপর জরিপ চালিয়ে পাওয়া তথ্য মতে, মেজ সন্তানরা ব্যক্তিগত এবং কর্মজীবনে বেশি সফলতা লাভ করেন।



প্রতিবেদনটি বলছে, পরিবারে বড় বা ছোট সন্তানের চেয়ে মেজ সন্তানরা নিজেদের অবহেলিত মনে করে। কারণ বড় সন্তান অনেক বেশি মনোযোগ পায় বাবা-মায়ের। আর ছোট সন্তান পায় সহানুভূতি।



টিমে মিলেমিশে কাজ করার ক্ষেত্রেও অন্য সন্তানদের চেয়ে মেজ সন্তানরা ভালো করে। কারণ মেজ সন্তান জন্মের পরে একটি টিম পায়। পরিবারের মেজ সন্তানকে জন্মের পর বড় সন্তানের সঙ্গে সবই ভাগাভাগি করে নিতে হয়। মিলেমিশে থাকার গুণটা তাই মেজ সন্তানের মাঝেই বেশি থাকে, যা পরবর্তীতে কর্মক্ষেত্রে সফলতা নিয়ে আসে।



এছাড়া মেজ সন্তানের মাঝে ইগো'র সমস্যা কম থাকে। তারা অনেক বন্ধুবৎসল হয়।



সূত্র : টাইমস্ অব ইন্ডিয়া।



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৪৮৯০৪
পুরোন সংখ্যা