চাঁদপুর। সোমবার ১৩ নভেম্বর ২০১৭। ২৯ কার্তিক ১৪২৪। ২৩ সফর ১৪৩৯

বিজ্ঞাপন দিন

বিজ্ঞাপন দিন

সর্বশেষ খবর :

  • ---------
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৩১-সূরা লোকমান


৩৪ আয়াত, ৪ রুকু, ‘মক্কী’


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


৩৩। হে মানবজাতি!  তোমরা তোমাদের পালনকর্তাকে ভয় করো এবং ভয় করো এমন এক দিবসকে, যখন পিতা পুত্রের কোনো কাজে আসবে না এবং  পুত্রও তার পিতার কোনো উপকার করতে পারবে না, নিঃসন্দেহে আল্লাহর ওয়াদা সত্য। অতএব, পার্থিব জীবন যেন তোমাদেরকে ধোঁকা না দেয় এবং আল্লাহ সম্পর্কে প্রতারক শয়তানও যেন তোমাদেরকে প্রতারিত না করে।


দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


 


 


 


দুপুরের খাবার গ্রহণের পর সামান্য বিশ্রাম নিও এবং রাতের খাবারের পর পূর্ণ বিশ্রাম নিও।                                         


                        -ডাব্লিউ টি হেলমুর্থ।


যে ব্যক্তি (অভাবগ্রস্ত না হয়ে) ভিক্ষা করে, কেয়ামতের দিন তার কাপালে একটি প্রকাশ্য ঘা হবে ।


 

অনিদ্রা কমাতে মধু
১৩ নভেম্বর, ২০১৭ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


মধু এক ধরনের মিষ্টি ও ঘন তরল পদার্থ, যা মৌমাছি বিভিন্ন ফুলের নির্যাস থেকে তৈরি এবং মৌচাকে সংরক্ষণ করে। প্রাকৃতিক এ ভেষজ তরল উচ্চ ঔষধি গুণসম্পন্ন। মধুকে সর্ব রোগের প্রতিষেধক বলা হয়। তবে এর নিরাময় শক্তিও রয়েছে। মানবদেহের জন্যে অত্যন্ত উপকারী এ তরল পদার্থ নিয়মিত সেবনে অসংখ্য রোগবালাই থেকে পরিত্রাণ মেলে।



মধুর পুষ্টি উপাদান ফুলের পরাগে রয়েছে ২৫-৩৭ শতাংশ গ্লুকোজ, ৩৪-৪৩ শতাংশ ফ্রুক্টোজ, ০.৫-৩.০ শতাংশ সুক্রোজ এবং ৫-১২ শতাংশ মন্টোজ। আরও আছে ২২ শতাংশ অ্যামাইনো এসিড, ২৮ শতাংশ খনিজ লবণ, ১১ শতাংশ এনজাইন। ১০০ গ্রাম মধুতে থাকে ২২৮ ক্যালরি।



 



উপকারিতা :



মধুতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন, মিনারেল, এনজাইম, যা শরীরকে বিভিন্ন রোগবালাই থেকে রক্ষা করে এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। মধু জীবাণুবিরোধী, এতে চিনির পরিমাণ বেশি থাকে বলে রোগজীবাণু সহজেই আক্রমণ করতে পারে না।



মধু মানসিক শক্তি বাড়ায় :



মধু মানসিক শক্তি বৃদ্ধি করে। নিয়মিত মধু সেবনে মানসিক শক্তি ও উদ্যম বৃদ্ধি পায়।



অনিদ্রা :



যাদের অনিদ্রা হয় তাদের ক্ষেত্রে মধু বেশ উপকারী। এক গ্লাস দুধের মধ্যে এক টেবিল চামচ মধু মিশিয়ে পান করলে ভালো ঘুম হয়। এ ছাড়া মস্তিষ্কের দুর্বলতাও কমিয়ে দেয়।



ওজন :



ওজন কমাতে মধুর জুড়ি মেলা ভার। প্রতিদিন সকালে খালি পেটে লেবুর রস ও মধু হালকা গরম পানিতে মিশিয়ে পান করলে ওজন কমে। এ ছাড়া এভাবে নিয়মিত খেলে লিভার পরিষ্কার থাকে। শরীরের বিষাক্ত উপাদান বের হয়ে যায় এবং শরীরের মেদ কমে যায়।



হজমশক্তি :



মধু হজমশক্তি বৃদ্ধি করে। মধু পেটের অমস্নীয়ভাব দূর করে হজম প্রক্রিয়ায় সহায়তা করে।



মধুতে চিনির পরিমাণ :



মধুতে প্রাকৃতিক চিনির পরিমাণ ৮২.৪ শতাংশ। এ চিনি শরীরে শক্তি জোগায় এবং শরীরকে কার্যক্ষম রাখে।



ত্বকের যত্নে মধু :



মধুতে আছে অ্যান্টিব্যাক্টেরিয়াল ও অ্যান্টিফাঙ্গাস উপাদান। ফলে ত্বকের যত্নে মধুর জুড়ি নেই। নিয়মিত মধুর ব্যবহারে ত্বকের দাগ দূর হয়ে যায় এবং ত্বক আরও মসৃণ হয়।



দাঁতের জন্যে মধু



মধু দাঁতের জন্যেও উপকারী। দাঁতের ওপর ব্যবহার করলে দাঁতের ক্ষয়রোধ কমে। দাঁতের পাথর জমাটে বাধা দেয় এবং দাঁত পড়ে যাওয়া বিলম্বিত করে।



হার্টঅ্যাটাকের ঝুঁকি কমায় :



মধু রক্তের কোলেস্টরেলের মাত্রা কমাতে সহায়তা করে। মধুর সঙ্গে দারুচিনি গুঁড়া মিশিয়ে নিয়মিত পান করলে হার্টঅ্যাটাকের ঝুঁকি কমে।



সর্দি-কাশি :



মধু সর্দি-কাশিতে বেশ উপকারী। মধুর ফ্যাভোনয়েডস এবং অ্যান্টি-অঙ্েিডন্ট বিভিন্ন ক্যান্সার ও রোগ-প্রতিরোধ করে। নিয়মিত মধু পান করলে দীর্ঘদিনের আর্থ্রাইটিস রোগে উপকার পাওয়া যায়। ব্রণ দূর করতে মধু উপকারী। তা ছাড়া মধু খুশকি দূর করে।



সূত্র : যুগান্তর।



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৪৯১৫০
পুরোন সংখ্যা