চাঁদপুর। সোমবার ৬ আগস্ট ২০১৮। ২২ শ্রাবণ ১৪২৫। ২৩ জিলকদ ১৪৩৯
redcricent
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৪০-সূরা আল মু’মিন

৮৫ আয়াত, ৯ রুকু, মক্কী

পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।

২৬। ফেরাউন বললো, তোমরা আমাকে ছাড়, মূসাকে হত্যা করতে দাও, ডাকুক সে তার পালনকর্তাকে! আমি আশঙ্কা করি যে, সে তোমাদের ধর্ম পরিবর্তন করে দেবে অথবা সে দেশময় বিপর্যয় সৃষ্টি করবে।

২৭। মূসা বললো, যারা হিসাব দিবসে বিশ^াস করে না এমন প্রত্যেক অহংকারী থেকে আমি আমার ও তোমাদের পালনকর্তার আশ্রয় নিয়ে নিয়েছি।

দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন




মন যদি চোখকে শাসন করে তবে কখনো চোখ ভুল করবে না।    


-পাবলিয়াস সাইরাস।                    


রাসূলুল্লাহ (দঃ) বলেছেন, নামাজ আমার নয়নের মণি।    

     


ফটো গ্যালারি
বুকে ব্যথা : প্রাথমিকভাবে করণীয়
পীযূষ কান্তি বড়ুয়া
০৬ আগস্ট, ২০১৮ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


বুকে ব্যথা মানেই আতঙ্ক। যা না করে রোগে তা হয়ে যায় আতঙ্কে। কাজেই বুকে ব্যথায় প্রাথমিকভাবে করণীয় সম্পর্কে ওয়াকিবহাল থাকা সবার জন্যে জরুরি।



এক এক বয়সে বুকে ব্যথার এক এক পরিচয়। সবার বুকে ব্যথার ধরণ ও কারণ একই হয় না। ছোট শিশুর বুকে ব্যথা হলে বুঝতে হবে হয় পড়ে গিয়ে আঘাত পেয়েছে অথবা ফুসফুসে জীবাণুর সংক্রমণ বা নিউমোনিয়ার কারণে বুকে ব্যথা হচ্ছে। এক্ষেত্রে বুকে ভিঙ্ জাতীয় ঔষধ মেখে এবং প্যারাসিটামল সিরাপ খাইয়ে দেখা যেতে পারে। শ্বাসকষ্টসহ বুকে ব্যথায় দ্রুত চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে হবে।



একটু বড় শিশু যারা দৌড়-ঝাঁপ করে খেলাধুলা করে তাদের ক্ষেত্রে বুকে ব্যথার কারণ হতে পারে হৃদস্পন্দন অত্যধিক বেড়ে যাওয়া। বিশ্রামে এই ব্যথার উপশম হয়। কিছু কিছু শিশু আছে যার বুকে মাঝে মাঝে ব্যথা হয় ও দৌড়-ঝাঁপ করতে গেলেই কষ্ট হয়, মুখ নীল হয়ে যায় এবং শ্বাসকষ্ট হয়। এদের জন্মগত হৃৎপি-ের ত্রুটি থাকতে পারে। এসব শিশুর জন্যে ঘরের জানালা খোলা রাখতে হয় যাতে অঙ্েিজন ঘাটতি না হয়। ঘরে কোনো ধোঁয়া বা স্প্রে করা উচিত নয়। এতে শিশুর শ্বাসকষ্ট বেড়ে যাবে। পরবর্তীতে একজন শিশু হৃদরোগ বিশেষজ্ঞের নিকট নিয়ে যাওয়া উচিত।



যেসব শিশুর পায়খানা নিয়মিত হয় না এবং যাদের কোষ্ঠকাঠিন্য বেশি, তাদের ক্ষেত্রে মলগ্যাসের কারণে বুকে ব্যথা হতে পারে। এদের নিয়মিত মল নরম করার ঔষধ যেমন : মিল্ক অব ম্যাগনেসিয়া সেবন করানো উচিত। অনেক মেয়ে শিশু আছে যাদের রাস্তার খাবার পছন্দ কিংবা যারা কেবল আচার পছন্দ করে, অনেকেই খাবার গ্রহণে অনিয়ম করে। এদের বুকে ব্যথার মূল কারণ গ্যাস্ট্রিক অ্যাসিডিটি। এদের রেনিটিডিন ও ডমপেরিডন সেবন করিয়ে দেখা যেতে পারে এবং অবশ্যই রাস্তার অস্বাস্থ্যকর খাবার গ্রহণ পরিহার করতে হবে।



কিছু কিছু কিশোর-তরুণের বুকে-পিঠে ব্যথা হতে পারে। এই ব্যথা হতে পারে মেকানিক্যাল পেইন, যা পেইন কিলার সেবনে সেরে যায়। এই ব্যথার কারণ হচ্ছে খেলাধুলা বা পরিশ্রমের কারণে মাংসপেশীর সংকোচন।



বড়দের অ্যাসিডিটির জন্যে বুক জ্বলা ও বুকে ব্যথা হতে পারে। এক্ষেত্রে ওমিপ্রাজল ও ডমপেরিডন, সাথে এন্টাসিড তরল ঔষধ সেবনে ব্যথার উপশম হয়।



বয়স্কদের এবং ধূমপায়ীদের বুকে বেশ কয়েকদিন হতে ব্যথা, শ্বাসকষ্ট ও জ্বর জ্বর ভাব হতে পারে। এটা ফুসফুসে জীবাণুর সংক্রমণ বা নিউমোনিয়া হতে হতে পারে আবার লাঙ ক্যান্সারও হতে পারে। যক্ষ্মা রোগীরও কাশি, জ্বর ও বুকে ব্যথা হতে পারে। এসব ক্ষেত্রে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে হবে সময় ক্ষেপণ না করে।



বুকের কেন্দ্রে, বামে, বাম পাঁজরের নিচে, হাঁটতে গেলে ঘাড়ে বা হাতে ব্যথা হলে, এই ব্যথা বিশ্রামে কমলে, ব্যায়ামে বা হাঁটায় বাড়লে, বসা বা বিশ্রাম অবস্থায় চিকন ঘাম দিলে এবং শ্বাস নিতে কষ্ট হলে তবে এই ব্যথাকে আমলে নিতে হয়। রোগী বা আক্রান্তকে সোফায় বসান। ঘরে আলো-বাতাস আসতে দেন। প্রথমে ওমিপ্রাজল, ডমপেরিডন ও এন্টাসিড খাইয়ে দেখেন দশ মিনিট। এতে না কমলে, বরং বাড়তে থাকলে, শ্বাস কষ্ট হলে দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যান। কোনো ডাক্তারের চেম্বার নয় কিংবা কোনো ডাক্তার বাসায় কল দিয়ে আনা নয়, সরাসরি হাসপাতালের ইমার্জেন্সীতে নিয়ে যেতে হবে। তার সামনে কাঁদা বা ইমোশনাল হওয়ার দরকার নেই। এতে তার ইমোশনাল রিফ্লেঙ্ বাড়লে আরও ক্ষতি হবে। এর মধ্যে অ্যাস্পিরিন (ইকোস্পিরিন) ট্যাবলেট তিনশ' মিলিগ্রাম চিবিয়ে খাওয়াতে হবে ও গি্লসারিন ট্রাই নাইট্রেট স্প্রে (এনরিল স্প্রে) জিভের তলে দুই চাপ দিতে হবে।



নারীদের ক্ষেত্রে ব্রেস্ট টিউমার কিংবা ফাইব্রয়েডের কারণে বুকে ব্যথা হয়। দুগ্ধদানকারী মায়েদের মিল্ক কনজেসশনের কারণে বুকে ব্যথা হয়। এসব ক্ষেত্রে মিল্ক পাম্প আউট করলে ব্যথা কমে। ব্রেস্ট টিউমারে তাৎক্ষণিক পেইন কিলার গ্রহণ ও পরে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে হবে।



অ্যাঙ্েিডন্টাল ইনজুরিতে যদি হাড় না ভাঙ্গে তবে পেইন কিলার দিলেই ব্যথা কমে যায়। যদি হাড় ভাঙ্গে তবে বেশি নাড়াচাড়া না করে তাকে হাসপাতালে নিতে হবে।



 



লেখক : চিকিৎসক;



ছড়াকার, গল্পকার ও প্রবন্ধকার।



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৬৪৭১৬৪
পুরোন সংখ্যা