চাঁদপুর। সোমবার ২৯ অক্টোবর ২০১৮। ১৪ কার্তিক ১৪২৫। ১৮ সফর ১৪৪০
redcricent
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • --
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৪৩-সূরা যূখরুফ

৮৯ আয়াত, ৭ রুকু, মক্কী

পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।

২৭। সম্পর্ক আছে শুধু তাঁরই সাথে যিনি আমাকে সৃষ্টি করেছেন এবং তিনিই আমাকে হেদায়েত দিবেন।

২৮। এই (তাওহীদের) ঘোষণাকে যে স্থায়ী কালেমারূপে রেখে গেছে তার পরবর্তীদের জন্যে যাতে তারা (শিরক থেকে) প্রত্যাবর্তন করে।

২৯। বরং আমিই তাদেরকে এবং তাদের পূর্বপুরুষদেরকে সুযোগ দিয়েছিলাম ভোগের, অবশেষে তাদের নিকট সত্য ও স্পষ্ট (প্রচারক) রাসূল আগমন করা পর্যন্ত।

দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


যে ব্যক্তি সর্বদা পবিত্র (হালাল) দ্রব্য ভক্ষণ করে, আমার বিধি অনুসারে চলে এবং মানুষের কোন ক্ষতি করে না, সে বেহেশতবাসী হবে।



 


যে ব্যক্তি সর্বদা পবিত্র (হালাল) দ্রব্য ভক্ষণ করে, আমার বিধি অনুসারে চলে এবং মানুষের কোন ক্ষতি করে না, সে বেহেশতবাসী হবে।



 


ফটো গ্যালারি
শীতে চাই পুরো শরীরের যত্ন
শিবানী দে
২৯ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


ত্বকের যত্নে চিনির স্ক্রাব ও মুলতানি মাটির মাস্ক



শীতে ত্বকের উপরিভাগ কালো হয়ে যায়। এর কারণ হল ত্বকের মরা কোষ। এ মরা কোষ দূর করতে সপ্তাহে অন্তত তিন দিন স্ক্রাব করা উচিত।



এটি সহজ ও ঘরে তৈরি; কিন্তু বেশ কার্যকরী স্ক্রাব হচ্ছে চিনি ও লেবুর রস। এক চা চামচ চিনিতে এক চা চামচ লেবুর রস দিয়ে আধগলা চিনি মুখে, হাতে, গলায় এবং পায়ে ঘষে নিন। মুখে আলতো করে ঘষবেন। এতে ত্বকের উপরিভাগের মরা কোষ দূর হবে।



মুলতানি মাটি ত্বকের জন্য অনেক ভালো একটি উপাদান। এটা ত্বকের দাগ দূর করে ত্বককে মসৃণ করে তোলে। একটি বাটিতে ২ থেকে ৩ টেবিল চামচ মুলতানি মাটি নিয়ে ৪ থেকে ৫ টেবিল চামচ কাঁচা দুধ দিয়ে একটি মিশ্রণ তৈরি করুন। এ মিশ্রণটি মুখে, হাতে, গলায় ও পায়ে লাগিয়ে রাখুন। শুকিয়ে উঠলে কুসুম গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। মুখ ধোয়ার পর অবশ্যই ত্বকে ময়েশ্চারাইজার লাগাবেন। এভাবে সপ্তাহে ২ থেকে ৩ বার করুন। ত্বক ভালো থাকবে।



 



শরীরের যত্নে বাথ সল্ট ও মধু



মুখ, হাত, পা, মাথা, চুল সব কিছুরই যত্ন নেয়ার পাশাপাশি দেহের ত্বকের যত্ন নেয়া অনেক জরুরি। বাথ সল্ট শরীরের ত্বকের জন্য বেশ ভালো। বাথ সল্ট দেহের ত্বকের জন্য স্ক্রাবের কাজ করে। এতে শরীরের মরা কোষ দূর হয় এবং দেহের ত্বকের উপরিভাগ পরিষ্কার হয়। গোসলের সময় বাথ সল্ট ব্যবহার করুন।



স্ক্রাবিংয়ের পর দেহের ত্বকের কোমলতা রক্ষায় গোসলের পানিতে মিশিয়ে নিন মধু। ১ বালতি পানিতে ৩ থেকে ৪ টেবিল চামচ মধু ভালো করে মিশিয়ে সে পানি দিয়ে শরীর ধুয়ে ফেলুন। এতে দেহের ত্বক থাকবে কোমল ও মসৃণ। গোসল শেষে ত্বকে লোশন লাগাতে ভুলবেন না।



 



হাত ও পায়ের যত্নে লেবু ও লবণ গরম পানি



সারাদিন রোদ ও ধুলো-ময়লায় হাত এবং পায়ের অবস্থা বেশ খারাপ হয়ে যায়। কিন্তু খুব সহজেই দিন শেষে রাতের বেলা মাত্র ২০ মিনিট ব্যয় করে হাত ও পায়ে ফিরিয়ে আনতে পারেন হারিয়ে যাওয়া উজ্জ্বলতা এবং কোমলতা।



একটি তাজা লেবু কেটে হাত এবং পায়ে ঘষে নিন। এরপর কুসুম গরম পানিতে লিটারে ১ চা চামচ লবণ দিয়ে এতে হাত ও পা ডুবিয়ে রাখুন ১০ থেকে ১৫ মিনিট। চাইলে পানিতে সামান্য শ্যাম্পুও দিতে পারেন। এরপর একটি মাজুনি দিয়ে আলতো করে হাত ও পা ঘষে নিন। এরপর হালকা কুসুম গরম পানিতে হাত-পা ধুয়ে ও মুছে নিন। এরপর হাতে এবং পায়ে অলিভ অয়েল লাগিয়ে নিন। এটি করুন সপ্তাহে দুই দিন।



 



পা ফাটা প্রতিরোধের জন্য বাড়িতে পরিচর্যা



বাড়িতে ফাটা গোড়ালির পরিচর্যার চাবিকাঠি হল রাতে শোবার আগে ময়েশ্চারাইজার লাগান এবং তারপর আর্দ্রতা যাতে উবে না যায়, তাই একটি বিশেষ ধরনের মোজা পরে শুয়ে সারা রাত পায়েই আর্দ্রতা আটকে রাখা? এর মধ্যে উন্নতি না দেখতে পেলে, আপনার পেডিয়াট্রিস্টকে দেখান? আর নিন্মোক্ত ব্যবস্থাগুলো গ্রহণ করতে পারেন :



* পা ফাটা (প্রতিরোধের জন্য প্রতিদিন সকালে গোসলের আগে পায়ে ভালো করে ১ চা চামচ তিল তেল বা নারকেল তেলের সঙ্গে ৩-৪ ফোঁটা ল্যাভেন্ডার অয়েল বা আমন্ড অয়েল, ১ চা চামচ গি্লসারিন, ১ চামচ গোলাপ পানি, সিকি চামচ ভিনেগার মিশিয়ে নিয়ে পুরো হাতে, পায়ে, পায়ের পাতায় লাগিয়ে রাখুন মিনিট দশেক। সামান্য গরম পানিতে হাত-পা ধুয়ে নিয়ে আলতো করে ময়েশ্চারাইজার মালিশ করে নিন।



* রাতে শোবার সময় হালকা গরম পানিতে পা ধোয়ার পর ১০০ গ্রাম নারকেল তেলের সঙ্গে ৫ গ্রাম কর্পুর, ২০ গ্রাম প্যারাফিন ওয়্যাঙ্ মিশিয়ে গরম করে একটি পাত্রে রেখে দিন। এ মিশ্রণটি পায়ের ফাটা জায়গায় লাগিয়ে তার ওপর কোনো সুতির মোজা পরে নিন।



* বাড়িতে সবসময় সস্নিপার বা সুতির মোজা পরা অভ্যাস করুন।



* ১ চা চামচ পেট্রোলিয়াম জেলির সঙ্গে ১ টেবিল চামচ মুলতানি মাটি, ১ চা চামচ মধু, ২ চা চামচ গি্লসারিন, ১ চা চামচ মুগডাল বাটা, ২ চা চামচ গোলাপ পানি দিয়ে পেস্ট বানিয়ে পুরো পায়ে ১৫ মিনিট লাগিয়ে রেখে হালকা গরম পানিতে ধুয়ে ফেলুন। নিয়মিত এ প্যাক লাগালে পা ফাটা থেকে মুক্তি পাবেন।



 



চুলের যত্নে লেবুর রস



শীতকালে মাথার ত্বকে ছোট ছোট ফুসকুড়ি ওঠে ও খুশকির সমস্যা দেখা যায়। লেবুর রস এ সমস্যার সমাধান করবে। লেবুর রসের অ্যান্টিইনফ্লেমেটরি উপাদান খুশকি থেকে মাথার ত্বককে দূরে রাখে। মাথার ত্বকের স্বাস্থ্য ঠিক রাখতে অনেক হারবাল উপাদানেই লেবুর রস ব্যবহার করা হয়ে থাকে। আপনি ঘরে বসেই প্রাকৃতিকভাবে লেবুর রসের মাধ্যমে মাথার ত্বককে সুস্থ রাখতে পারেন স্বাস্থ্যোজ্জ্বল চুলের জন্য।



একটি গোটা লেবুর রস, ১ থেকে ২ টেবিল চামচ, নারকেল তেল, একটি ভিটামিন ই ক্যাপস্যুল, সবকটি উপাদান একসঙ্গে একটি বাটিতে মিশিয়ে নিন। এরপর মাথার ত্বকে বিশেষ করে ফুসকুড়ি ও খুশকি আক্রান্ত স্থানে ভালো করে লাগান এ মিশ্রণ। ১ ঘণ্টা রেখে ধুয়ে ফেলুন। লেবুর রসের সাইট্রিক অ্যাসিড মাথার ত্বকের সব সমস্যা দূর করে ও খুশকি মুক্ত করে।



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৫১৩৪৭৬
পুরোন সংখ্যা