চাঁদপুর। সোমবার ০৭ জানুয়ারি ২০১৯। ২৪ পৌষ ১৪২৫। ৩০ রবিউস সানি ১৪৪০
redcricent
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • চাঁদপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য ডাঃ দীপু মনি শিক্ষামন্ত্রীর দায়িত্ব পেয়েছেন || চাঁদপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য দীপু মনি শিক্ষামন্ত্রীর দায়িত্ব পেয়েছেন || *
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৪৫-সূরা জাছিয়া :

৩৭ আয়াত, ৪ রুকু, ‘মক্কী

পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।



২৩। তুমি কি লক্ষ্য করিয়াছ তাহাকে, যে তাহার খেয়াল-খুশিকে নিজ ইলাহ্ বানাইয়া লইয়াছে? আল্লাহ জানিয়া শুনিয়াই উহাকে বিভ্রান্ত করিয়াছেন এবং উহার কর্ণ ও হৃদয় মোহর করিয়া দিয়াছেন এবং উহার চক্ষুর উপর রাখিয়াছেন আবরণ। অতএব আল্লাহর পরে কে তাহাকে পথনির্দেশ করিবে? তবুও কি তোমরা উপদেশ গ্রহণ করিবে না?

দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


অসতর্ক জ্ঞানের অভাবের চেয়েও ক্ষতিকর।

-টলস্টয়।


মায়ের পদতলে সন্তানদের বেহেশত।

 


ফটো গ্যালারি
অজানা উৎসের জ্বর
ডাঃ পীযূষ কান্তি বড়ুয়া
০৭ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


জ্বর নিয়ে মানুষের ভোগান্তির অন্ত নেই। কখনো সর্দি জ্বর, কখনো ভাইরাস জ্বর, কখনো ম্যালেরিয়া নিয়ে গলদঘর্ম হয়ে নাকানি-চুবানি খেয়েছে মানুষ। যেসব জ্বরের উৎস বা কারণ জানা যায় তাদের চিকিৎসা করা তেমন কঠিন বিষয় নয়। কিন্তু কখনো কখনো জ্বর থাকে ছদ্মাবরণে, যার উৎস জানা যায় না মোটেও। এই ধরনের জ্বরকেই অজানা উৎসের জ্বর হিসেবে অভিহিত করা যায়।



 



অজানা উৎসের জ্বর কী :



একটানা তিন সপ্তাহ ধরে কোনো জ্বর হলে এবং এর মধ্যে এক সপ্তাহ হাসপাতালে চিকিৎসা নেয়ার পরও যদি জ্বরের কারণ অজ্ঞাত থাকে এবং জ্বর নিরসন না হয় তবে এরকম জ্বরকে আমরা অজানা উৎসের জ্বর নামে অভিহিত করি। আজকাল হাসপাতালের বহির্বিভাগে তিনবার ডাক্তার দেখানোর পরও জ্বর অনির্ণীত থাকলে তাকেও অজানা উৎসের জ্বর নামে অভিহিত করা হয়।



 



অজানা উৎসের জ্বরের ধরণ :



অজানা উৎসের জ্বর উচ্চ তাপমাত্রার যেমন হতে পারে তেমনি জ্বর নিম্ন তাপমাত্রারও হতে পারে। কিংবা জ্বর দিনের যে কোনো অংশে আসতে পারে। জ্বর কাঁপুনি দিয়ে যেমন আসতে পারে তেমনি জ্বর কাঁপুনি ছাড়াও আসতে পারে। জ্বরের সাথে ঘাম হতে পারে, আবার ঘাম না-ও হতে পারে। অ্যান্টি বায়োটিকের সাতদিনের কোর্স সম্পন্ন করলেও জ্বর নিরসন হয় না।



অজানা উৎসের জ্বর অধিকাংশ সময়ে যক্ষ্মা কিংবা ম্যালিগন্যান্সি হিসেবে পরে নিরূপিত হয়। কখনো কখনো ম্যালেরিয়া, কালাজ্বর হিসেবেও চিহ্নিত হতে পারে। এছাড়াও অজানা উৎসের জ্বর এর তালিকায় অ্যাবসেস, ইনফেকশন, এন্ডোকার্ডাইটিস, এনকেফালাইটিস, বাতজ্বর ইত্যাদি পরে সনাক্ত হয়।



 



অজানা উৎসের জ্বরের লক্ষ্মণ :



* প্রায় তিন সপ্তাহ বা তার অধিক জ্বর



* হাসপাতালে সপ্তাহখানেক ভর্তি থেকেও জ্বর কমে না



* পরীক্ষা-নিরীক্ষার মাধ্যমেও জ্বরের কারণ সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া যায় না।



 



অজানা উৎসের জ্বর নির্ণয়ে পরীক্ষণ :



* বস্নাড ফর রুটিন টেস্ট



* ইউরিন ফর রুটিন টেস্ট



* চেস্ট এঙ্রে পি/এ ভিউ



* এমপি টেস্ট



* সিরাম বিলিরুবিন



* বস্নাড ফর এএসও টাইটার



* বিডাল টেস্ট



* সিটি স্ক্যান অফ ব্রেন



* সিএফটি ফর কালাজ্বর ইত্যাদি।



 



চিকিৎসা ও ব্যবস্থাপনা :



অজানা উৎসের জ্বরের চিকিৎসায় বস্নাইন্ড থেরাপী দেয়া হয় কখনো কখনো। কিংবা কখনো টাইফো ম্যালেরিয়া বা টিউবারকুলোসিসের চিকিৎসায় জ্বর উপশম হয়। কখনো কখনো সর্বশেষে ক্যান্সার নিরূপিত হয়। এইডস্ হিসেবেও রোগ সনাক্ত হতে পারে। এছাড়াও রোগের তালিকায় লিম্ফেডিনাইটিস, কোলেঞ্জাইটিস, কোলেসিস্টাইটিস, ডেন্টাল অ্যাবসেস, থাইরয়েডাইটিস, ড্রাগ ফিভার ইত্যাদি থাকতে পারে।



 



অজানা উৎসের জ্বরের রকমফের :



* ক্লাসিক বা সচরাচর ধরণের



* নোজোকোমিয়াল বা হাসপাতালের পরিবেশজনিত



* রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা হ্রাসজনিত



* এইডস্ সংশ্লিষ্ট



 



অজানা উৎসের জ্বরের পরিণতি :



* অনেক ক্ষেত্রেই এই জ্বর ছয় থেকে একমাস পরে উপশম হয়।



* কোনো কোনো ক্ষেত্রে জ্বর অনিরূপিত অবস্থায় রোগী মৃত্যুবরণ করে।



* কোনো কোনো অজানা উৎসের জ্বরে রোগ নিরূপনীমূলক পেটে অস্ত্রোপচার প্রয়োজন হয় এবং তার ফলে কখনো কখনো চিকিৎসার ক্ষেত্রে সুরাহা হয়।



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৩৬৭৮৮৫
পুরোন সংখ্যা