চাঁদপুর, সোমবার ১৪ অক্টোবর ২০১৯, ২৯ আশ্বিন ১৪২৬, ১৪ সফর ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৫৬ সূরা-ওয়াকি'আঃ


৯৬ আয়াত, ৩ রুকু, মক্কী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


৮০। ইহা জগৎসমূহের প্রতিপালকের নিকট হইতে অবতীর্ণ।


৮১। তবুও কি তোমরা এই বাণীকে তুচ্ছ গণ্য করিবে?


৮২। এবং তোমরা মিথ্যারোপকেই তোমাদের উপজীব্য করিয়া লইয়াছো!


 


 


 


 


 


হিংসা একটা দরজা বন্ধ করে অন্য দুটো খোলে।


-স্যামুয়েল পালমার।


 


 


নামাজ বেহেশতের চাবি এবং অজু নামাজের চাবি।


 


 


 


ফটো গ্যালারি
প্রশ্বাস কষ্ট বা ডিজনিয়া
ডাঃ পীযূষ কান্তি বড়ুয়া
১৪ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


জীবন হচ্ছে এক নিঃশ্বাসের দম। দম ফুরালে জীবনও ফুরায়। আমরা প্রশ্বাস নেই আর নিঃশ্বাস ছাড়ি। প্রশ্বাস বায়ুতে থাকে অক্সিজেনের আধিক্য আর নিঃশ্বাস বায়ুতে থাকে কার্বন ডাই-অক্সাইডের আধিক্য। স্বাভাবিক প্রশ্বাসে ব্যক্তির কোনো কষ্ট হয় না বা হওয়ার কথা নয়। কিন্তু শরীরে যখন বিভিন্ন রোগ ও উপসর্গ দেখা দেয় তখন প্রশ্বাস গ্রহণের স্বাভাবিকতা নষ্ট হয়। তখন ব্যক্তি কষ্ট অনুভব করে এবং মৃত্যুর ঝুঁকি তৈরি হয়।

ডিজনিয়া : প্রশ্বাসে কষ্ট যাকে চিকিৎসা বিজ্ঞানের ভাষায় আমরা ডিজনিয়া বলি তা হলো ব্যক্তির প্রশ্বাস অগভীর হওয়া। এই অগভীর প্রশ্বাসের মূল কারণ শ্বাস নিতে গেলে একটা নির্দিষ্ট মাত্রার পর ব্যথা বোধ হওয়া বা অস্বস্তি বোধ হওয়া, যে কারণে ব্যক্তি সচেতনভাবে ঐ মাত্রা বা সীমার পরে আর প্রশ্বাসকে গভীর করে না। অগভীর প্রশ্বাসের কারণে ব্যক্তি ঘন ঘন প্রশ্বাস গ্রহণ করতে হয় এবং এতে পর্যাপ্ত অক্সিজেন হতে ভুক্তভোগী বঞ্চিত হয়।



ডিজনিয়ার কারণ : ডিজনিয়ার মূল কারণ তিন ধরনের।

প্রথমত হৃদপিণ্ড ও রক্ত সংবহনতন্ত্রের দুর্বলতা এবং অ্যানিমিয়া বা রক্ত স্বল্পতা

দ্বিতীয়ত শ্বাসতন্ত্রের দুর্বলতা এবং

তৃতীয়ত মানসিক চাপ বা মানসিক দুর্বলতা

হৃদপিণ্ডের যদি অসামর্থ্য বা ফেইলিওর তৈরি হয় তবে ডিজনিয়া দেখা দেয়। মায়োকার্ডিয়াল ইনফার্কশান বা হৃদপিণ্ডের মাংশপেশি স্তরের অক্সিজেন স্বল্পতাহেতু পচে যাওয়া, কনজেস্টিভ কার্ডিয়াক ফেইলিওর বা হৃদপিণ্ডের অসামর্থ্যজনিত কারণে অতিরিক্ত তরল সঞ্চয়ন ও তদ্জনিত কারণে বুক জ্যাম হয়ে যাওয়া ইত্যাদি কারণে মানুষ ডিজনিয়ায় আক্রান্ত হয়।

শ্বাসতন্ত্রে জীবাণু সংক্রমণ বা নিউমোনিয়া, ইন্টারস্টিশিয়াল লাং ডিজিজ, অ্যাজমা, ক্রনিক অবস্ট্রাকটিভ পালমোনারী ডিজিজ বা দীর্ঘদিন ধরে শ্বাসতন্ত্রের অবরোধজনিত বিঘ্নতা ইত্যাদি কারণে ডিজনিয়া দেখা দেয়।

মানসিকভাবে কেউ যদি অতি উদ্বেগে ভোগে, কেউ মাত্রাতিরিক্ত ভীতিপ্রবণ হলে কিংবা অতিমাত্রায় আবেগী হয়ে উঠলেও তার ডিজনিয়া বা প্রশ্বাস গ্রহণে অতি সচেতনতামূলক অগভীরতা তৈরি হয়।



ডিজনিয়ার লক্ষণ : ডিজনিয়া বা প্রশ্বাসের কষ্টে ভোগা রোগীদের ঘন ঘন শ্বাস নিতে হয়। গায়ে ঘাম হয়। নখের পাতগুলো নীলচে বা নীলাভ হয়ে যায়। জিভের অগ্রভাগ, কানের লতিও নীলচে বর্ণ ধারণ করে। অর্থাৎ তাদের রক্তে কার্বন ডাই-অক্সাইড বাড়তি হয়। প্রশ্বাস ধরে রাখা কষ্টকর হয় ও প্রশ্বাসে শব্দ হয়। খুব দ্রুত ও অগভীর প্রশ্বাস নিতে হয় এবং হৃদ্স্পন্দন বৃদ্ধি পায়। প্রশ্বাসকালীন শোঁ শোঁ আওয়াজ হয়, বুকে ব্যথা অনুভব হয়। ত্বক শীতল বা ঠাণ্ডা হয়ে যায়। সিঁড়ি ভেঙে উপরে উঠতে কিংবা অল্প পথ হাঁটতে ক্লান্তি বোধ হয়। এক পর্যায়ে বসে থাকলেও ক্লান্তি তৈরি হয় এবং বুকে চাপ চাপ লাগে।

ডিজনিয়ায় আক্রান্ত ব্যক্তির পরীক্ষণ :

বুকের এক্স-রে

সিটি স্ক্যান

ইসিজি

রক্তের সিবিসি

রক্তে চর্বির মান নিরূপণ



ডিজনিয়ার চিকিৎসা :

যে কোনো ধরনের ডিজনিয়ায় অক্সিজেন থেরাপী আবশ্যক। মিনিটে তিন লিটার হারে অক্সিজেন থেরাপী ক্ষেত্র বিশেষে প্রযোজ্য।

ডিজনিয়ার মূল কারণ অনুসন্ধান করে তার সঠিক চিকিৎসা করা উচিত। অ্যানিমিয়া বা রক্ত স্বল্পতাজনিত ডিজনিয়ায় রক্তবর্ধক বা আয়রনের ঘাটতি সংশোধনকারী চিকিৎসা প্রদান জরুরি। পাশাপাশি বাংলাদেশে আয়রন ঘাটতিজনিত রক্তস্বল্পতার মূল কারণ নির্মূলে নিয়মিত বিরতিতে কৃমিনাশক ঔষধ সেবন করা জরুরি। রক্তক্ষরণের কোনো যৌক্তিক কারণ থাকলে তা অপনোদন করা জরুরি।

হৃদপিণ্ডের ফেইলিওর বা মায়োকার্ডিয়াল ইনফার্কশানে হৃদরোগ বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিতেই হবে। ফুসফুসের জীবাণু সংক্রমণ প্রতিকারে উপযুক্ত অ্যান্টিবায়োটিক যেমন : ক্ল্যাভুলোনিক অ্যাসিডের অগমেন্টেশনে তৈরি করা অ্যামক্সিসিলিন বা দ্বিতীয় প্রজন্মের সেফালোস্পোরিন ব্যবহার করা যেতে পারে।

মানসিক চাপ ও বিকলনজনিত ডিজনিয়া মোকাবেলায় মনকে প্রফুল্ল রাখতে হবে। দুশ্চিন্তা দূরে রেখে জীবন চলা জরুরি। প্রতিদিন হাল্কা শরীর চর্চা ডিজনিয়া মোকাবেলায় কার্যকর। অতিরিক্ত উদ্বেগ অবশ্যই পরিহার করতে হবে।



ডিজনিয়া প্রতিরোধ :

নিয়মিত হাল্কা শরীর চর্চা

ধূমপান ও অ্যালকোহল বর্জন

দেহের অতিরিক্ত ওজন হ্রাস

ধোঁয়া-ধূলিবালি এড়িয়ে চলা

পর্যাপ্ত বিশ্রাম গ্রহণ।

 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৪৭৫৮৮৩
পুরোন সংখ্যা