চাঁদপুর, বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৪ আশ্বিন ১৪২৯, ২ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪  |   ৩০ °সে
আজকের পত্রিকা জাতীয়আন্তর্জাতিকরাজনীতিখেলাধুলাবিনোদনঅর্থনীতি শিক্ষা স্বাস্থ্য সারাদেশ ফিচার সম্পাদকীয়
ব্রেকিং নিউজ
  •   ড্রেজার ধ্বংস করাসহ মালিককে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা
  •   শাহরাস্তিতে আলোকচিত্র প্রদর্শনীর উদ্বোধন
  •   ফরিদগঞ্জে প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে ছাত্রলীগের আয়োজনে বর্ণাঢ্য র‌্যালী
  •   হাজীগঞ্জ পৌরসভা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত
  •   ভুয়া দুদক কর্মকর্তা সেজে চাঁদা দাবি

প্রকাশ : ০৮ মার্চ ২০২২, ১৭:৫২

হরিণা ঘাটে ফেরিতে আগুন

হরিণা ঘাটে ফেরিতে আগুন
মিজানুর রহমান

চাঁদপুর হরিণা ঘাটে কস্তুরী ফেরিতে আগুন লাগার ঘটনা ঘটেছে।এতে অল্পের জন্য বড় ধরনের দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পেয়েছে ফেরিতে থাকা যাত্রী ও যানবাহনগুলো।৮ই মার্চ সকাল ৮ টার সময় আগুন লাগার ঘটনা ঘটে। বিষয়টি নিশ্চিত করেন বিআইডব্লিউটিসি হরিনা ঘাট ব্যবস্থাপক আব্দুন নূর তুষার।

তিনি বলেন, শরীয়তপুর ঘাট থেকে ফেরিটি হরিনা ঘাটে ভিড়ার প্রাক্কালে হঠাৎ ইঞ্জিন রুমের সাইলেন্সার পাইপে আগুন ধরে যায়।তাৎক্ষণিক ফেরির লোকজন আগুন নিভিয়ে ফেলে।পরে গাড়ি ও যাত্রীরা নিরাপদে ফেরি থেকে নেমে গন্তব্যে চলে যায়।

এদিকে চাঁদপুর দক্ষিণ, পুরাণ বাজার ফায়ার স্টেশনের সিনিয়র স্টেশন অফিসার এমরান হোসেন জানান, আগুন লাগার খবর পেয়ে তাৎক্ষণিক আমাদের একটি টিম হরিনা ঘাটে পৌঁছার আগেই ফেরির লোকজন আগুন নিভিয়ে ফেলে। আগুন লাগার কারণ হিসাবে তিনি বলেন, ইঞ্জিন রুমের জেনারেটর সাইরেন্সার পাইপ ওভার হিটে আগুন ধরেছে। বড় ধরনের ক্ষয়ক্ষতি হয়নি। এতে তারা ১০ হাজার টাকার ক্ষয়ক্ষতি এবং প্রায় ৫ লক্ষ টাকার মালামাল ক্ষয়ক্ষতি থেকে উদ্ধার রিপোর্ট তেরি করেছেন।

এদিকে, ফেরিতে থাকা যাত্রী ও ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, কস্তুরি ফেরিটি গাড়ি ও যাত্রী নিয়ে হরিনাঘাটে ভিড়ছিল। হঠাৎ পিছন দিয়ে দাও দাও করে আগুন জ্বলে উঠতে দেখে আগুন আগুন চিৎকার দিয়ে সবাই দিগ্বিদিক ছোটাছুটি শুরু করে। এই অবস্থায় ফেরির লোকজন দশ পনের মিনিটের মধ্যেই আগুন নিভিয়ে ফেলতে সক্ষম হয়। পরে যাত্রী ও গাড়িগুলো দ্রুতে ফেরি থেকে উপরে উঠে যায়।

এখানে উল্লেখ্য যে, অধিক পুরাতন অনেকগুলো ফেরি চাঁদপুর-শরীয়তপুর রুটে চলাচল করছে। কিছুদিন আগে ফেরির র‍্যাম ফাঁক হয়ে একটি ট্রাক নদীতে পড়ে যায়। এ দুর্ঘটনার রেশ না কাটতেই আরেকটি ফেরির ইঞ্জিনরুমে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটলো। তাই যে কোনো দুর্ঘটনা এবং নিরাপদে যাত্রী ও যানবাহন পারাপারের জন্য এই রুটে ভালো মানের ফেরি দেওয়া প্রয়োজন বলে সচেতন মহল মনে করছেন।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়