চাঁদপুর, শনিবার, ১৩ আগস্ট ২০২২, ২৯ শ্রাবণ ১৪২৯, ১৪ মহররম ১৪৪৪  |   ৩১ °সে
আজকের পত্রিকা জাতীয়আন্তর্জাতিকরাজনীতিখেলাধুলাবিনোদনঅর্থনীতি শিক্ষা স্বাস্থ্য সারাদেশ ফিচার সম্পাদকীয়
ব্রেকিং নিউজ
  •   ফরিদগঞ্জে কিশোর বলাৎকারের শিকার
  •   বাবুরহাট মতলব পেন্নাই সড়কে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ১
  •   আগামীতে হরতালের চেয়েও বৃহৎ কর্মসূচি আসবে : মানিক
  •   চাঁদপুরে পুলিশের অভিযানে ৫ কেজি গাঁজাসহ আটক ১
  •   চাঁদপুর পদ্মা নদীতে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে ৫ নৌ ডাকাত গ্রেফতার

প্রকাশ : ১৪ জুন ২০২২, ১১:০৬

মতলবে শরীফ উল্লাহ হাই স্কুল এন্ড কলেজের সভাপতি মনোনীত হলেন আনিসুল হক

মাহবুব আলম লাভলু
মতলবে শরীফ উল্লাহ হাই স্কুল এন্ড কলেজের সভাপতি মনোনীত হলেন আনিসুল হক

মতলব উত্তর উপজেলার ঐতিহ্যবাহী শরীফ উল্লাহ হাই স্কুল এন্ড কলেজ পরিচালনা কমিটির সভাপতি মনোনীত হলেন সমাজ সেবক, শিক্ষানুরাগী ও একজন প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী আনিসুল হক। ইতিপূর্বেও তিনি দুই বছর এই শরীফ উল্লাহ হাই স্কুল এন্ড কলেজের গভর্নিং বডির সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন কারেছেন। স্থানীয় বেশ ক'জনের সাথে কথাবলে জানা যায়, আনিসুল হক এর আগে এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির পরিচালনা কমিটির সভাপতি থাকাকালে এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বেদখল হয়ে যাওয়া অনেক সম্পত্তি ও দোকানপাট পুনরুদ্ধার, কোচিং বাণিজ্য বন্ধসহ শিক্ষার মানোন্নয়নে অনেক কাজ করেছেন। যা যেকোন সময়ের তুলনায় উল্লেখযোগ্য ও চোখে পড়ার মতো।

স্থানীয় বেশ ক'জনের সাথে কথাহলে তারা আরো জানায়, আনিসুল হক ঢাকায় বসবাস করলেও যখন থেকেই এলাকামুখী হয়েছেন তখন থেকেই তিনি এলাকার মাদক বিক্রেতা ও মাদকসেবীদের জন্য হয়ে উঠেছেন আতঙ্ক। মাদকের সাথে কোন আপোষ নেই সে যেই হোক না কেন এমন নীতি বাস্তবায়নে তিনি নিয়েছেন বেশ কয়েকটি শক্ত ও দৃষ্টান্তমূলক পদক্ষেপ। এরমধ্যে ৬ হাজা ৮শ' পিচ ইয়াবার চালানসহ মাদক বিক্রেতাকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করার বিষয়টি ছিল পুরো জেলা বাসীর কাছে চোখে পড়ার মতো। এছাড়াও তিনি এলাকায় ইভটিজিং ও বাল্যবিবাহ প্রতিরোধও ব্যাপক কাজ করে যাচ্ছেন। তবে তিনি একজন প্রচারবিমুখ মানুষ।

বৃহত্তর কুমিল্লার প্রথম মেজর জেনারেল, সাবেক সফল মন্ত্রী, মতলবকে আধুনিকতার ছোঁয়া দিতে যার ছিল অগ্রণী ভূমিকা সেই প্রয়াতঃ সূর্য সন্তান এম শামসুল হক এর কনিষ্ঠ পুত্র এই আনিসুল হক। আনিসুল হক ১৯৬৬ সালের ২৯ অক্টোবর জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৮৩ সালে ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট এ অবস্থিত আদমজী স্কুল এন্ড কলেজ থেকে এসএসসি এবং সেই একই কলেজ থেকে ১৯৮৫ সালে এইচএসসি এবং ১৯৮৮ সালে বি কম পাস করেন।

বর্তমানে তিনি সিএনজি স্টেশন, পেট্রোল পাম্প ও তৈলবাহী জাহাজ ব্যবসার সাথে জড়িত। এছাড়া তিনি সরকারি নদী খননের কাজে নিয়োজিত ড্রেজিং কোম্পানির ব্যবসায়েও তিনি জড়িত এবং এ ব্যবসায়ী সংগঠনের সিইও এবং পরিচালক হিসেবেও দায়িত্ব¡ পালন করেন। তিনি বাংলাদেশ কার্গো জাহাজ মালিক সমিতির অ্যাসিস্ট্যান্ট জেনারেল সেক্রেটারি হিসেবে দুই বছর এবং অর্গানাইজিং সেক্রেটারি হিসেবে দুই বছর দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়াও বাংলাদেশ সিএনজি স্টেশন অ্যাসোসিয়েশনে নারায়ণগঞ্জের সভাপতি হিসেবেও দুই বছর দায়িত্ব পালন করেন। আনিসুল হকের বড় মেয়ে ব্র্যাক ইউনিভার্সিটিতে এমবিএ পাস করে একটি ব্যাংকে কর্মরত আছেন। ছেলে এ লেভেলস পাস করেছে।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়