চাঁদপুর, শুক্রবার, ২ ডিসেম্বর ২০২২, ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ৭ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪  |   ২৮ °সে
আজকের পত্রিকা জাতীয়আন্তর্জাতিকরাজনীতিখেলাধুলাবিনোদনঅর্থনীতি শিক্ষা স্বাস্থ্য সারাদেশ ফিচার সম্পাদকীয়
ব্রেকিং নিউজ
  •   কচুয়ায় আলোর মশালের সপ্তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে করোনাযোদ্ধা ও রক্তদাতাদের সংবর্ধনা
  •   সেভ দ্য ফিউচার ফাউন্ডেশন’র সহযোগিতায় ঘরের স্বপ্ন পূরণ হলো প্রতিবন্ধী রিপনের
  •   চাঁদপুরে বিশ্ব এইডস দিবস পালিত
  •   হাজীগঞ্জে মডেল হসপিটালের উদ্বোধন
  •   চাঁদপুর রেলওয়ের সাবেক টিএক্সারের ইন্তেকাল

প্রকাশ : ২৮ জুলাই ২০২২, ১৯:৪৪

ফরিদগঞ্জে ভরা বর্ষায়ও পানির অভাব, পাট জাগ দিতে পারছেন না চাষিরা

এমরান হোসেন লিটন
ফরিদগঞ্জে ভরা বর্ষায়ও পানির অভাব, পাট জাগ দিতে পারছেন না চাষিরা

বর্ষার ভরা মৌসুমে শ্রাবণের এই সময়ে প্রচণ্ড খরার কারণে খেতেই শুকিয়ে মরে যাচ্ছে পাট। খালে-বিলে পানি নেই, তাই পাট পচাতে বা জাগ দিতে না পেরে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন চাষিরা। বর্ষার ভরা মৌসুমেও খাল-বিলে পানি না থাকায় জলাশয়, ডোবা, পুকুরে পাটের জাগ দিতে হচ্ছে। এতে স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি খরচ হচ্ছে। কমছে গুণগত মান। পাটে কালো দাগ পড়তে শুরু করেছে।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, ফরিদগঞ্জে ভালো পাট উৎপন্ন হতো, কিন্তু বর্তমানে পানির অভাবে কৃষকরা এর ওপর আস্থা হারিয়ে ফেলছে। চলতি মৌসুমে উপজেলার ১৫টি ইউনিয়ন ও পৌরসভায় মোট ১৫০ হেক্টর জমিতে পাটের আবাদ হয়েছে। গত বছরের তুলনায় এ বছর চাষ কম করা হয়েছে।

উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে দেখা গেছে, পানি না থাকায় কৃষকরা পাট নিয়ে চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন। বিশেষ করে বন্যাপ্রবণ এলাকার বালিথুবা ১, বালিথুবা ২, সুবিদপুর ৩, সুবিদপুর ৪, ৫নং গুপ্টি এলাকার চাষিরা জোয়ার-ভাটার পানির ওপর পাট চাষ এবং পচাতে নির্ভরশীল। কিন্তু জোয়ার-ভাটার পানি নদী থেকে বিভিন্ন মাঠে না উঠায় পাট জাগ দিতে বিভিন্ন রকম ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে।

উপজেলার নদী, মাছ চাষের পুকুর, খাল, বিলে, কোথাও পর্যাপ্ত পানি না থাকায় পাট জাগ দিতে পারছেন না তারা। কোনো উপায় না পেয়ে পাট কেটে ক্ষেতেই রাখছেন তারা। অনেকে বন্যার পানির আশায় পাট না কেটে রেখে দিচ্ছেন। আবার কেউ কেউ পর্যাপ্ত পানি না পেয়ে নিচু জায়গায় জমে থাকা বৃষ্টির পানিতে জাগ দিচ্ছেন।

এবার পাটের ফলন ভালো হলেও পর্যাপ্ত পানির অভাবে পাটের আঁশে কালো বর্ণ ধারণ করেছে। কিছু কিছু জায়গায় পাট ফ্যাকাসে হয়ে যাচ্ছে। এতে সোনালি এ শস্যের বাজারমূল্য অনেক কম হবে বলে আশঙ্কা করছেন কৃষকরা। সরেজমিনে ফরিদগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন মাঠে গিয়ে দেখা যায়, বেশির ভাগ জমির পাট কাটা শুরু হয়েছে। বৃষ্টি না হওয়ায় মাঠে পানি নেই। জমি থেকে নদী বা খালের দূরত্ব অনেক। যে কারণে সেখানে পাট নেয়া কষ্টকর হয়ে যাচ্ছে। অনেকে অতিরিক্ত টাকা দিয়ে শ্রমিক এনে খালে নিয়ে পাট জাগ দিচ্ছেন। জমি থেকে পাট দূরে নিয়ে জাগ দেয়ার কারণে উৎপাদন খরচ বৃদ্ধি পাচ্ছে।

বালিথুবা ইউনিয়নের মহসিন নামের এক কৃষক জানান, এ বছর বৃষ্টির পরিমাণ কম, আষাঢ়-শ্রাবণ মাস শেষ হয়ে গেছে। এখনও কোথাও পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি নেই। বন্যার পানির আশায় আছি। আষাঢ় মাসের প্রথম ভাগে জোয়ার-ভাটায় সামান্য পানি আসলেও এখন সে পানিও চলে গেছে। প্রয়োজনীয় পানির অভাবে পাট নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছি।

সিরাজ সরদার নামে অপর কৃষক জানান, পাট চাষে কোনো লাভ নেই। অনেক খরচে জমি প্রস্তুত করা, বীজ বপন, সেচ দেয়া, সার দেয়া, আগাছা পরিষ্কার করা, পাট কাটা, জাগ দেয়া ও পাট ধোয়া পর্যন্ত যে খরচ হয়, হিসাব করলে কৃষকদের লোকসান ছাড়া লাভ হয় না। পাটচাষি সলেমান জানান, এ বছর পাটের স্বাভাবিক ফলন হয়েছে। বাজারদর ভালো, কিন্তু পানি না থাকায় পাট কাটা সম্ভব হচ্ছে না। যেখানে পাট চাষ করেছি সেখানে গত বছর এই সময়ে ৫ ফুট পানি ছিলো। কিন্তু এই বছর সেখানে এক ইঞ্চি পানিও নেই। অন্যান্য বছর পাট যেখানে কাটতাম সেখানেই জাগ দিতাম, যার কারণে খরচ একেবারেই কম পড়তো। এছাড়া জমি থেকে বিভিন্ন পুকুরে পাট জাগ দেয়ার কারণে মাছ মারা যায়, যার কারণে পাট জাগ দিতে পারছি না।

উপজেলা কৃষি অফিসার আশিক জামিল মাহমুদ বলেন, ফরিদগঞ্জের কৃষকদের মধ্যে সৌখিনতা বেশি। আমরা বহু চেষ্টার পরেও এদেরকে পাটের ফলন ফলাতে আনতে পারছিলাম না। তিনি বলেন, পাটের ফলন করতে হলে পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি থাকতে হয়, কিন্তু গত ক’ বছর পানির অভাবে ফরিদগঞ্জের কৃষকরা পাট চাষ করতে আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছে।

ডিপ্লোমা কৃষি অফিসার নূর আলম জানান, ফরিদগঞ্জ উপজেলা একটি বেড়িবাঁধ এলাকায়। এখানে শত শত খাল রয়েছে যেগুলো সংস্কার না করার কারণে পানির অভাব দেখা দেয়। পর্যাপ্ত পানি না থাকার কারণে কৃষকরা পাট চাষ করতে আগ্রহী নয়।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়