সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১, ২ কার্তিক ১৪২৮, ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩  |   ২৭ °সে
আজকের পত্রিকা জাতীয়আন্তর্জাতিকরাজনীতিখেলাধুলাবিনোদনঅর্থনীতি শিক্ষা স্বাস্থ্য সারাদেশ ফিচার সম্পাদকীয়
ব্রেকিং নিউজ
  •   হাজীগঞ্জের পৃথক দুটি তদন্ত চলছে : পরিস্থিতি স্বাভাবিক : ১৪৪ ধারা প্রত্যাহার

প্রকাশ : ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩:৫১

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে করোনার থাবা

♦ মানিকগঞ্জে উপসর্গ নিয়ে স্কুলছাত্রীর মৃত্যু ♦ গোপালগঞ্জে শিক্ষার্থী বাগেরহাটে শিক্ষক আক্রান্ত

অনলাইন ডেস্ক
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে করোনার থাবা
মানিকগঞ্জে করোনায় আক্রান্ত হয়ে এক শিক্ষার্থীর মৃত্যু হয়েছে। এ ছাড়া গোপালগঞ্জে এক শিক্ষার্থী ও বাগেরহাটে এক শিক্ষক করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।
মানিকগঞ্জ:মানিকগঞ্জে করোনা উপসর্গ নিয়ে এক স্কুলছাত্রীর মৃত্যু হয়েছে। সুবর্ণা ইসলাম রোদেলা নামের মেয়েটি মানিকগঞ্জ শহরের সুরেন্দ্র কুমার (এস কে) সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী ছিল। সুবর্ণা জেলা শহরের বেউথা এলাকার বশির উদ্দিন মোল্লার একমাত্র সন্তান। পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, তিন দিন ধরে সুবর্ণার জ্বর এবং শ্বাসকষ্ট হচ্ছিল। বুধবার দুপুর ১২টার দিকে শ্বাসকষ্ট, গলা ও বুকে ব্যথা মারাত্মক আকার ধারণ করলে সে অচেতন হয়ে পড়ে। দ্রুত তাকে স্থানীয় মুন্নু জেনারেল হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে তার অবস্থার অবনতি হওয়ায় দ্রুত রাজধানীর কুর্মিটোলা হাসপাতালে নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। মানিকগঞ্জ থেকে ঢাকায় যাওয়ার পথে গাবতলী এলাকায় অ্যাম্বুলেন্সে তার অবস্থা আরও খারাপ হলে ইবনে সিনা হাসপাতালে নেওয়া হয়। চিকিৎসকরা সেখানে তাকে মৃত ঘোষণা করেন। রাতেই তাকে স্থানীয় কবরস্থানে দাফন করা হয়। জেলা সিভিল সার্জন ডা. অনোয়ারুল আমীন আখন্দ বলেন, সুবর্ণা করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা গেছে।
জেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি ও জেলা প্রশাসক আবদুল লতিফ বলেন, মেয়েটি ১৫ সেপ্টেম্বর সর্বশেষ স্কুলে গিয়েছিল। তখন তার শরীরে কোনো সমস্যা ছিল না। তিন দিন ধরে তার জ্বর এবং শ্বাসকষ্ট হচ্ছিল। বুধবার তাকে মুন্নু হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখান থেকে ঢাকায় নেওয়ার পথে সে মারা যায়। সে করোনায় আক্রান্ত ছিল কি না তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।
গোপালগঞ্জ: গোপালগঞ্জে পঞ্চম শ্রেণির এক শিক্ষার্থী করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। এ ঘটনার পর স্থানীয় প্রশাসন ওই বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির ওই কক্ষটি তালাবদ্ধ করে দিয়েছে।গোপালগঞ্জ পৌরসভার বীণাপানি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থী মোনালিসা ইসলামের র‌্যাপিড টেস্টে করোনা পজিটিভ আসে ২১ সেপ্টেম্বর। সে পৌরসভার শিশুবন এলাকার মাসুদ শেখের মেয়ে।
বিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, ১২ সেপ্টেম্বর থেকে বিদ্যালয়ে পাঠদান শুরু হয়। ১৪ সেপ্টেম্বর মোনালিসার মাথাব্যথা ও জ্বর শুরু হয়। এরপর থেকে সে আর বিদ্যালয়ে আসেনি।
মোনালিসার মা মিতু খানম বলেন, এত দিন আমার মেয়ে বাড়িতে ছিল এবং সুস্থ ছিল। ১২ সেপ্টেম্বর মেয়েকে স্কুলে পাঠালে ১৪ সেপ্টেম্বর সে মাথাব্যথা ও হালকা জ্বর অনুভব করে। ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে তার স্কুলে যাওয়া বন্ধ করে দিই। পরে করোনা পরীক্ষা করতে দিলে ফলাফল পজিটিভ আসে। এরপর থেকে তাকে গোপালগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়।
বীণাপানি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক পারভীন আক্তার বলেন, মোনালিসা সর্বশেষ ১৪ সেপ্টেম্বর বিদ্যালয়ে ক্লাস করে। সেই দিন তার মধ্যে করোনার কোনো উপসর্গ জ্বর ও মাথাব্যথা লক্ষ্য করা যায়নি। আমরা সার্বক্ষণিক তার পরিবারে সঙ্গে যোগাযোগ রাখছি।
মোংলা: বাগেরহাটের মোংলা উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের এক সহকারী শিক্ষক করোনা আক্রান্ত হওয়ায় ওই বিদ্যালয়ের শিক্ষক কর্মচারী ও আড়াই শতাধিক শিক্ষার্থীর নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা করার নির্দেশ দিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন। বৃহস্পতিবার স্কুল পরিদর্শন করে মোংলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কমলেশ মজুমদার কর্তৃপক্ষকে এ নির্দেশনা দেওয়ার পর মোংলা উপজেলা হাসপাতালে তাদের নমুনা পরীক্ষা শুরু হয়েছে। সেই সঙ্গে স্কুল চলাকালীন কঠোরভাবে স্বাস্থ্যবিধি মানার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।
গত মঙ্গলবার মোংলা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক পুলিন মন্ডল ও তার স্ত্রী মোংলা উপজেলা হাসপাতালের নার্স সুচন্দা মন্ডলের নমুনা পরীক্ষায় করোনা শনাক্ত হয়। আক্রান্ত ওই শিক্ষক স্কুলে আসায় প্রশাসন এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এরপর থেকে করোনা আক্রান্ত শিক্ষক ও তার স্ত্রী হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন।
মোংলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কমলেশ মজুমদার জানান, কয়েক দিন ধরে মোংলা উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক পুলিন মন্ডলের স্ত্রী মোংলা উপজেলা হাসপাতালের নার্স সুচন্দার শরীরে করোনাভাইরাসের উপসর্গ দেখা দেয়। পরীক্ষায় তারা করোনা পজিটিভ হয়। এরপর থেকে তারা হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন।
বাগেরহাট জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. কামরুজ্জামান জানান, বাগেরহাটে ১২ সেপ্টেম্বর জেলার ৩১৯টি স্কুল খুলে দেওয়া হয়। স্কুল কর্তৃপক্ষকে আমরা সবসময় স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে নির্দেশনা দিয়ে আসছি। বাগেরহাটের মোংলা বালিকা বিদ্যালয়ে এক স্কুলশিক্ষক করোনা পজিটিভ হওয়ার খবর পেয়ে আমরা সঙ্গে সঙ্গে পরিদর্শন করে পরবর্তীতে যাতে আর কেউ আক্রান্ত না হতে পারে সে জন্য ব্যবস্থা নিয়েছি।
মানিকগঞ্জে করোনায় আক্রান্ত হয়ে এক শিক্ষার্থীর মৃত্যু হয়েছে। এ ছাড়া গোপালগঞ্জে এক শিক্ষার্থী ও বাগেরহাটে এক শিক্ষক করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।
মানিকগঞ্জ:মানিকগঞ্জে করোনা উপসর্গ নিয়ে এক স্কুলছাত্রীর মৃত্যু হয়েছে। সুবর্ণা ইসলাম রোদেলা নামের মেয়েটি মানিকগঞ্জ শহরের সুরেন্দ্র কুমার (এস কে) সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী ছিল। সুবর্ণা জেলা শহরের বেউথা এলাকার বশির উদ্দিন মোল্লার একমাত্র সন্তান। পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, তিন দিন ধরে সুবর্ণার জ্বর এবং শ্বাসকষ্ট হচ্ছিল। বুধবার দুপুর ১২টার দিকে শ্বাসকষ্ট, গলা ও বুকে ব্যথা মারাত্মক আকার ধারণ করলে সে অচেতন হয়ে পড়ে। দ্রুত তাকে স্থানীয় মুন্নু জেনারেল হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে তার অবস্থার অবনতি হওয়ায় দ্রুত রাজধানীর কুর্মিটোলা হাসপাতালে নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। মানিকগঞ্জ থেকে ঢাকায় যাওয়ার পথে গাবতলী এলাকায় অ্যাম্বুলেন্সে তার অবস্থা আরও খারাপ হলে ইবনে সিনা হাসপাতালে নেওয়া হয়। চিকিৎসকরা সেখানে তাকে মৃত ঘোষণা করেন। রাতেই তাকে স্থানীয় কবরস্থানে দাফন করা হয়। জেলা সিভিল সার্জন ডা. অনোয়ারুল আমীন আখন্দ বলেন, সুবর্ণা করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা গেছে।
জেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি ও জেলা প্রশাসক আবদুল লতিফ বলেন, মেয়েটি ১৫ সেপ্টেম্বর সর্বশেষ স্কুলে গিয়েছিল। তখন তার শরীরে কোনো সমস্যা ছিল না। তিন দিন ধরে তার জ্বর এবং শ্বাসকষ্ট হচ্ছিল। বুধবার তাকে মুন্নু হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখান থেকে ঢাকায় নেওয়ার পথে সে মারা যায়। সে করোনায় আক্রান্ত ছিল কি না তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।
গোপালগঞ্জ: গোপালগঞ্জে পঞ্চম শ্রেণির এক শিক্ষার্থী করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। এ ঘটনার পর স্থানীয় প্রশাসন ওই বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির ওই কক্ষটি তালাবদ্ধ করে দিয়েছে।গোপালগঞ্জ পৌরসভার বীণাপানি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থী মোনালিসা ইসলামের র‌্যাপিড টেস্টে করোনা পজিটিভ আসে ২১ সেপ্টেম্বর। সে পৌরসভার শিশুবন এলাকার মাসুদ শেখের মেয়ে।
বিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, ১২ সেপ্টেম্বর থেকে বিদ্যালয়ে পাঠদান শুরু হয়। ১৪ সেপ্টেম্বর মোনালিসার মাথাব্যথা ও জ্বর শুরু হয়। এরপর থেকে সে আর বিদ্যালয়ে আসেনি।
মোনালিসার মা মিতু খানম বলেন, এত দিন আমার মেয়ে বাড়িতে ছিল এবং সুস্থ ছিল। ১২ সেপ্টেম্বর মেয়েকে স্কুলে পাঠালে ১৪ সেপ্টেম্বর সে মাথাব্যথা ও হালকা জ্বর অনুভব করে। ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে তার স্কুলে যাওয়া বন্ধ করে দিই। পরে করোনা পরীক্ষা করতে দিলে ফলাফল পজিটিভ আসে। এরপর থেকে তাকে গোপালগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়।
বীণাপানি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক পারভীন আক্তার বলেন, মোনালিসা সর্বশেষ ১৪ সেপ্টেম্বর বিদ্যালয়ে ক্লাস করে। সেই দিন তার মধ্যে করোনার কোনো উপসর্গ জ্বর ও মাথাব্যথা লক্ষ্য করা যায়নি। আমরা সার্বক্ষণিক তার পরিবারে সঙ্গে যোগাযোগ রাখছি।
মোংলা: বাগেরহাটের মোংলা উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের এক সহকারী শিক্ষক করোনা আক্রান্ত হওয়ায় ওই বিদ্যালয়ের শিক্ষক কর্মচারী ও আড়াই শতাধিক শিক্ষার্থীর নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা করার নির্দেশ দিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন। বৃহস্পতিবার স্কুল পরিদর্শন করে মোংলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কমলেশ মজুমদার কর্তৃপক্ষকে এ নির্দেশনা দেওয়ার পর মোংলা উপজেলা হাসপাতালে তাদের নমুনা পরীক্ষা শুরু হয়েছে। সেই সঙ্গে স্কুল চলাকালীন কঠোরভাবে স্বাস্থ্যবিধি মানার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।
গত মঙ্গলবার মোংলা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক পুলিন মন্ডল ও তার স্ত্রী মোংলা উপজেলা হাসপাতালের নার্স সুচন্দা মন্ডলের নমুনা পরীক্ষায় করোনা শনাক্ত হয়। আক্রান্ত ওই শিক্ষক স্কুলে আসায় প্রশাসন এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এরপর থেকে করোনা আক্রান্ত শিক্ষক ও তার স্ত্রী হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন।
মোংলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কমলেশ মজুমদার জানান, কয়েক দিন ধরে মোংলা উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক পুলিন মন্ডলের স্ত্রী মোংলা উপজেলা হাসপাতালের নার্স সুচন্দার শরীরে করোনাভাইরাসের উপসর্গ দেখা দেয়। পরীক্ষায় তারা করোনা পজিটিভ হয়। এরপর থেকে তারা হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন।
বাগেরহাট জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. কামরুজ্জামান জানান, বাগেরহাটে ১২ সেপ্টেম্বর জেলার ৩১৯টি স্কুল খুলে দেওয়া হয়। স্কুল কর্তৃপক্ষকে আমরা সবসময় স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে নির্দেশনা দিয়ে আসছি। বাগেরহাটের মোংলা বালিকা বিদ্যালয়ে এক স্কুলশিক্ষক করোনা পজিটিভ হওয়ার খবর পেয়ে আমরা সঙ্গে সঙ্গে পরিদর্শন করে পরবর্তীতে যাতে আর কেউ আক্রান্ত না হতে পারে সে জন্য ব্যবস্থা নিয়েছি।
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়