চাঁদপুর, সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৩ রবিউস সানি ১৪৪৩  |   ২৩ °সে
আজকের পত্রিকা জাতীয়আন্তর্জাতিকরাজনীতিখেলাধুলাবিনোদনঅর্থনীতি শিক্ষা স্বাস্থ্য সারাদেশ ফিচার সম্পাদকীয়
ব্রেকিং নিউজ
  •   প্রিজাইডিং ও সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার নিজেই ব্যালটে সিল মারতে থাকেন

প্রকাশ : ২৩ অক্টোবর ২০২১, ১২:১৮

বিদেশ থেকে আসা সব টাকাই রেমিট্যান্স নয়

অনলাইন ডেস্ক
বিদেশ থেকে আসা সব টাকাই রেমিট্যান্স নয়

বিদেশ থেকে দেশে অনেকেই টাকা পাঠান। তবে ব্যাংকিং চ্যানেলে আসা সব টাকাই রেমিট্যান্স নয়। কেবল রেমিট্যান্সের বিপরীতে ২ শতাংশ হারে প্রণোদনা দেওয়া হয়। কিন্তু অন্য ক্ষেত্রে কোনও প্রণোদনা দেওয়া হয় না। রেমিট্যান্সের সুবিধা পেতে বেশ কয়েকটি শর্ত ও কিছু নিয়ম মানতে হয়। যারা এসব নিয়ম ও শর্ত মানেন না তারা বিদেশ থেকে বৈদেশিক মুদ্রা আনার পরও রেমিট্যান্সের এই সুবিধা পান না।

বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তারা বলছেন, বিদেশ থেকে টাকা আনলেও রেমিট্যান্সের স্বীকৃতি না পাওয়ার কারণে অনেকেই ২ শতাংশ হারে প্রণোদনার সুবিধা পান না। তৈরি পোশাকের পরে অর্থনীতিতে প্রবাসীদের অবদান সবচেয়ে বেশি‑যা দেশের অর্থনীতিকে এগিয়ে রাখতে ব্যাপক ভূমিকা রাখছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের নিয়ম অনুযায়ী রেমিট্যান্সের সুবিধা পেতে হলে সরাসরি বিদেশে থাকার পাশাপাশি সেখানে বৈধভাবে আয় করতে হবে। এছাড়া বিদেশে অবস্থিত বিভিন্ন মানি এক্সচেঞ্জ হাউজের মাধ্যমে অথবা ওইসব দেশের বিভিন্ন ব্যাংকের মাধ্যমে "রেমিট্যান্স" ঘোষণা দিয়ে টাকা পাঠাতে হবে।

সাধারণত, মানিগ্রামসহ বেশ কিছু ইন্টারন্যাশনাল মানি ট্রান্সফার কোম্পানির মাধ্যমে বেশিরভাগ রেমিট্যান্স আসে। তবে সরাসরি ব্যাংকের মাধ্যমেও কিছু রেমিট্যান্স দেশে আসে।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক মো. সিরাজুল ইসলাম বলেন, প্রবাসে যারা ছোট-খাটো চাকরি করেন, তারা রেমিট্যান্সের ঘোষণা দিয়ে ব্যাংকিং চ্যানেলে যে টাকা পাঠান সেগুলোকে সাধারণত আমরা রেমিট্যান্স বলি। এছাড়া বিভিন্ন দেশে অনেকেই ব্যবসা-বাণিজ্য করে অল্প পরিমাণ টাকা পাঠালে সেগুলোও রেমিট্যান্স। অর্থাৎ প্রবাসে কর্মরত বাংলাদেশি নাগরিকরা তাদের আত্মীয়-স্বজনের কাছে ঘোষণা দিয়ে টাকা পাঠালে রেমিট্যান্স হিসেবে স্বীকৃত হবে।

জানা গেছে, রেমিট্যান্সের বিপরীতে ২ শতাংশ হারে প্রণোদনা দেওয়ার নিয়ম রয়েছে। বৈধ পথে রেমিট্যান্স পাঠানোকে উৎসাহিত করতে ২০১৯-২০ অর্থবছর থেকে ২ শতাংশ হারে প্রণোদনা দিচ্ছে সরকার। অর্থাৎ ব্যাংকিং চ্যানেলে রেমিট্যান্স পাঠালে প্রতি ১০০ টাকায় দুই টাকা করে নগদ প্রণোদনা পাচ্ছেন প্রবাসীর স্বজনরা। এ প্রণোদনা দিতে গত অর্থবছরে মূল বাজেটে ৩ হাজার ৬০ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হলেও সংশোধিত বাজেটে তা বাড়িয়ে ৩ হাজার ৮০০ কোটি টাকায় উন্নীত করা হয়। এর আগের অর্থবছরে ৩ হাজার ৬০ কোটি টাকা অর্থ বরাদ্দ রাখা হয়েছিল। চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরে বাজেটে রেমিট্যান্স খাতে প্রণোদনার পরিমাণ বাড়িয়ে ৪ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য বলছে, প্রবাসী শ্রমিকরা যে পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা দেশে পাঠাচ্ছেন, তা দেশের মোট রফতানি আয়ের প্রায় অর্ধেক। এছাড়া অর্থনৈতিক উন্নয়নে রেমিট্যান্সের অবদান মোট জিডিপির ১২ শতাংশের মতো। প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্স বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে বেশ গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, করোনার মধ্যে ২০২০-২১ অর্থবছরে প্রবাসীরা দুই হাজার ৪৭৮ কোটি ডলার রেকর্ড সমপরিমাণ অর্থ দেশে পাঠিয়েছেন। যেখানে আগের অর্থবছর পাঠিয়েছিলেন এক হাজার ৮২০ কোটি ডলার।

রেমিট্যান্সের শর্ত

রেমিট্যান্সের সুবিধা পেতে দেশের বাইরে সশরীরে থাকতে হবে। ওই দেশে বৈধভাবে থাকার অনুমতির পাশাপাশি থাকতে হবে ওয়ার্ক পারমিট ও বৈধ নিয়োগপত্র। এছাড়াও বিদেশে ব্যবসা-বাণিজ্য করলে তার বৈধ কাগজপত্রও দেখাতে হবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তারা বলছেন, বিদেশে অবস্থিত বিভিন্ন মানি এক্সচেঞ্জ হাউজে গিয়ে অথবা ওইসব দেশের বিভিন্ন ব্যাংকে গিয়ে রেমিট্যান্সের ঘোষণা দিয়ে পাঠানো টাকার বিপরীতে ২ শতাংশ হারে প্রণোদনা দেওয়ার নিয়ম রয়েছে।

এ প্রসঙ্গে রাষ্ট্রায়ত্ত অগ্রণী ব্যাংকের চেয়ারম্যান ড. জায়েদ বখত বলেন, রেমিট্যান্স হিসেবে টাকা পাঠাতে গেলে প্রথমত সোর্স অব মানি বা টাকার উৎস কি সেটা জানাতে হয়। তিনি বলেন, বিদেশ থেকে কাউকে কোনও টাকা পাঠাতে গেলে এন্টি মানি লন্ডারিংয়ের পার্ট হিসেবে বেশ কিছু তথ্য দিতে হয়। যেসব ব্যাংক ও এক্সচেঞ্জ হাউজের মাধ্যমে প্রবাসীরা টাকা পাঠান, ওই সব ব্যাংকের কাছে রেমিট্যান্স সংক্রান্ত সব তথ্য সংরক্ষিত থাকে। ওই টাকা দেশে আসার পর বাংলাদেশের ব্যাংকগুলো টাকার উৎস ও বিভিন্ন তথ্যের সঠিকতা নিশ্চিত করার পর রেমিট্যান্স হিসেবে স্বীকৃতি দেয়।

২০১৯ সালে প্রকাশিত বিশ্বব্যাংকের তথ্য অনুসারে, বিশ্বব্যাপী রেমিট্যান্স ২০১৮ সালে ৬৮৯ বিলিয়ন ডলার হয়েছে। ২০১৮ সালে রেমিট্যান্স আহরণে বাংলাদেশ ৯ম স্থানে রয়েছে। বাংলাদেশের প্রবাসীরা মধ্যপ্রাচ্যের সৌদি আরব, কাতার, আরব আমিরাত, কুয়েত, মিসর, মরক্কো, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর, ব্রুনাই, দক্ষিণ কোরিয়াসহ ইউরোপ, আমেরিকা ও অস্ট্রেলিয়া মহাদেশে বিভিন্ন পেশায় নিয়োজিত রয়েছেন।

যেগুলো রেমিট্যান্স নয়

অগ্রণী ব্যাংকের চেয়ারম্যান ড. জায়েদ বখত বলেন, অনেকেই বিদেশ থেকে টাকা পাঠান সঞ্চয়পত্র কেনার জন্য। সেটাকে রেমিট্যান্স বলে না। ওই টাকার বিপরীতে কোনও প্রণোদনা দেওয়া হয় না। এছাড়া অনেকেই বিদেশ থেকে গিফট হিসেবে টাকা পাঠান। সেগুলোও রেমিট্যান্স নয়।

বিদেশ থেকে অনেকে আন্তর্জাতিক বিভিন্ন এওয়ার্ড বা পুরস্কারের টাকা পান। সেটাও রেমিট্যান্স নয়। অনেকে আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সেমিনারে বক্তৃতা করে টাকা আয় করেন, সেটাও রেমিট্যান্স নয়। অনেকে বিশ্বব্যাংকের পরামর্শকের চাকরি করেন, সেখান থেকে পাঠানো টাকাও রেমিট্যান্স নয়।

অনেকে বিবিসি, ডয়েচেভেলেসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে চাকরি করেন, সেখান থেকে পাঠানো টাকাও রেমিট্যান্স নয়। কারণ উল্লেখ করে জায়েদ বখত বলেন, তারা দেশের ভেতরে থেকে কাজ করছেন। এটা এক ধরনের রফতানি আয়। তারা বিদেশে সেবা রফতানি করে বৈদেশিক মুদ্রা আয় করেন। একইভাবে অনেকেই দেশে থেকে ফ্রিল্যান্সিং করে মুদ্রা আয় করেন, সেগুলোও রেমিট্যান্স নয়। এগুলো সেবা রফতানি। এছাড়া পণ্য রফতানি আয়ও রেমিট্যান্স নয়। আবার বিদেশি বিনিয়োগ বা ফরেন ইনভেস্টমেন্ট বা এফডিআই রেমিট্যান্স নয়।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়