রোববার, ২৩ জানুয়ারি ২০২২, ৮ মাঘ ১৪২৮  |   ২৪ °সে
আজকের পত্রিকা জাতীয়আন্তর্জাতিকরাজনীতিখেলাধুলাবিনোদনঅর্থনীতি শিক্ষা স্বাস্থ্য সারাদেশ ফিচার সম্পাদকীয়
ব্রেকিং নিউজ
  •   চাঁদপুরে করোনা উপসর্গে এক নারীর মৃত্যু
  •   হাইমচরে মৎস্য ব্যবসায়ীর মৃত্যু নিয়ে দুম্র্রজাল
  •   ভুয়া পুলিশ পরিচয়ে কামাল হোটেল মালিক আটক
  •   হাজীগঞ্জে হামিদিয়া জুট মিলে দেয়াল চাপায় শ্রমিক নিহত
  •   হাইমচরে বিষপানে গৃহবধূর আত্মহত্যা : পরিবারের দাবী হত্যা

প্রকাশ : ০৫ নভেম্বর ২০২১, ২০:৪৮

সিঙ্গারা ফলের পরিচিতি

অনলাইন ডেস্ক
সিঙ্গারা ফলের পরিচিতি

বাংলাদেশের গ্রামাঞ্চলের খুব পরিচিত একটি ফল পানিফল। এই ফলটি দেখতে অনেকটা সিঙ্গাড়ার মতো দেখা যায়। যার কারণে মানুষজন একে ডাকে সিঙ্গাড়াফল নামে। সিঙ্গারা ফলটি এখন শুধু গ্রামে নয়, শহরের ফুটপাতে, ফল ব্যবসায়ীদের কাছেও এই ফলের দেখা পাওয়া যায়। পানিতে জন্মানোর কারণে এই ফলকে পানিফল বলে। বাংলাদেশের অপ্রচলিত ফলের মধ্যে একটি ফল হলো পানিফল। জানা যায়, প্রাচীনকাল থেকে চীন এ ফল চাষ করে আসছেন। আমাদের দেশেও পানিফলের চাষ শুরু হয়েছে। বাংলাদেশের অধিকাংশ মানুষ এ ফল সম্পর্কে ধারণা নেই। ভাদ্র মাস থেকে গাছে ফল আসা শুরু করে এবং আশ্বিন-কার্তিক মাসে ফল বিক্রি শুরু হয়। ফলের রঙ লাল, নীলাচে সবুজ বা কালচে সবুজ হয়ে থাকে। ফলটি নরম। খোসা ছাড়ালেই পাওয়া যায় হৃৎপিণ্ড বা ত্রিভূজাকৃতির নরম সাদা শাঁস। কাঁচা ফলের নরম শাঁস খেতে মিষ্টি এবং বেশ মজা। পানিফলের গাছটি লতার মতো শেকড় পানির নিচে থাকলেও পানির উপরে ভেসে থাকে পাতা এবং ফলগুলো। অনেকটা কচুরিপানার মতো। আর ফলগুলোতে দুটি শিং-এর মত কাঁটা থাকে, তাই স্থানীয়দের কাছে এটি পানিসিংড়া নামে পরিচিত।

পানিফলের বৈজ্ঞানিক নাম Trapa natans। এর ইংরেজি নাম water chestnut। পানিফল স্থানভেদে water caltrop, buffalo nut নামেও পরিচিত। পানিফলের আদি নিবাস এশিয়া, ইউরোপ ও আফ্রিকা হলেও এর প্রথম দেখা পাওয়া যায় উত্তর আমেরিকায়। জানা যায় যে, প্রায় ৩০০০ বছর পূর্বে চীনে পানিফলের চাষ হতো। চীন, জাপান, ভারত, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কাসহ কিছু দেশেও পানিফল চাষ হয়। পানিফল সেদ্ধ, কাঁচা ও রান্না করে খাওয়া যায়। চীনে বিভিন্ন সবজির সাথে মিশিয়ে সবজি রান্না করা হয়। বিভিন্ন দেশে পানিফল দিয়ে তারা পিঠা কেক বিস্কুট তৈরি করে খায়, বাজারেও বিক্রি করে।

পানি ফলের উপকারিতাঃ

১। পিপসা রোধ : পানি ফল খেলে শরীরকে পিপাসা রোধ করে। এটি শরীরকে ঠান্ডা রাখে লালার পরিমাণ বৃদ্ধি করে। ডায়রিয়া ও হিট স্ট্রোক থেকে রক্ষা করতে পারে। গরম এবং শুষ্ক আবহাওয়ায় শরীরের সঠিক তাপমাত্রা বজায় রাখার জন্য সিঙ্গারা ফল খাওয়া উচিত।

২। জন্ডিস প্রতিরোধ : জন্ডিস আক্রান্তদের জন্য পানি ফল খুবই উপকারী। এই ফল শরীরের বিষাক্ত টক্সিন পদার্থকে নির্মূল করে জন্ডিসের উপশম করে।

৩। মূত্রতন্ত্রের প্রদাহ : সিঙ্গারা ফলে থাকা এনজাইম মূত্রথলি পরিষ্কার করে এবং জীবাণু প্রতিরোধক হিসেবে কাজ করে মূত্রনালীর সংক্রমণ প্রতিরোধ করে।

৪। বদহজম এবং বমি বমি ভাব : বদহজম এবং বমি বমি ভাব হলে পানি ফল খাওয়া খুবই উপকারী। পানি ফলকে পাউডার বানিয়ে চা অথবা পানির সাথে মিশিয়ে খেলে কাশি ভাল হয়।

৫। চুলের যত্নে : চুলের যত্নে এই ফলের আশ্চর্যজনক গুণ রয়েছে। এতে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন ই ও পটাশিয়াম রয়েছে যা চুলের যত্নে খুবেই কার্যকর।

উল্লেখ্য, যেকোনো কিছুই অতিরিক্ত পরিমাণ শরীরের জন্য খারাপ হতে পারে। সুস্থ ব্যক্তি প্রতিদিন ১০-১৫ গ্রাম পানিফল খেতে পারবেন। অতিরিক্ত পানি ফল খেলে পেটফাঁপা এবং পেট ব্যথাও হতে পারে। যাদের কোষ্ঠকাঠিন্য রয়েছে তারা এই ফল খাওয়া থেকে বিরত থাকবেন।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়