চাঁদপুর, শুক্রবার, ১৯ আগস্ট ২০২২, ৪ ভাদ্র ১৪২৯, ২০ মহররম ১৪৪৪  |   ৩২ °সে
আজকের পত্রিকা জাতীয়আন্তর্জাতিকরাজনীতিখেলাধুলাবিনোদনঅর্থনীতি শিক্ষা স্বাস্থ্য সারাদেশ ফিচার সম্পাদকীয়
ব্রেকিং নিউজ
  •   উদাসীনতা আর কাকে বলে!
  •   ইবাদত ও খেলাফতের মধ্যেই মুসলমানদের শ্রেষ্ঠত্ব নিহিত
  •   আগামী প্রজন্মকে নির্মাণে এ ধরনের অনুষ্ঠানের কোনো বিকল্প নেই
  •   পীর বাদশা মিয়া রোডে ড্রেন ও সড়ক নির্মাণ কাজ উদ্বোধন করলেন মেয়র জিল্লুর রহমান জুয়েল
  •   এলজিইডি চাঁদপুরের সাড়ে ১০ হাজার তালগাছের বীজ রোপণ

প্রকাশ : ০৮ জুন ২০২২, ০০:০০

কর্মসংস্থানের নতুন গন্তব্য
অনলাইন ডেস্ক

শান্তি ও সমৃদ্ধির দেশ গড়তে চাই জনগণের কর্মসংস্থান। বিশেষ করে তরুণ প্রজন্মের চাকরি। সৎ উপায়ে বেঁচে থাকার অবলম্বন। আমাদের দেশ অত্যন্ত জনবহুল দেশ। এ দেশের কর্মসংস্থানের সুযোগ স্বভাবতই দেশের জনসংখ্যার তুলনায় অপ্রতুল। তাই শিক্ষিত তরুণদের মধ্যে রয়েছে হতাশা ও উৎকণ্ঠা।

একটি জাতীয় পত্রিকার পরিসংখ্যানে দেখেছি, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্র্যাজুয়েটদের প্রায়ই ৬৪ শতাংশ বেকার থাকছে। অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্ষেত্রেও চাকরিবিহীন গ্র্যাজুয়েটের সংখ্যা উল্লেখ করার মতো। শিক্ষিত হওয়ার ফলে তরুণ প্রজন্মের দ্বারা খেতে খামারে কাজ করাও কঠিন হয়ে পড়ছে, আবার চাকরিও দুর্লভ। বাস্তব অভিজ্ঞতায় দেখেছি, সরকারি চাকরির ক্ষেত্রে পিয়ন পোস্টে চারটি পোস্টের জন্যে ১ হাজার ৬০০ জন আবেদন করেছে। তাদের মধ্যে আবার অসংখ্য আবেদনকারীর শিক্ষাগত যোগ্যতা অনার্স-মাস্টার্স। একটি সরকারি চাকরির বিজ্ঞপ্তির ক্ষেত্রে দেখেছিলাম ২১টি পৃথক পদের বিপরীতে আবেদন পড়েছে ১ লাখ ২১ হাজার। বাস্তব অভিজ্ঞতায় দেখেছি, সরকারি চাকরির জন্যে মানুষ ব্যাগভর্তি টাকা নিয়ে তদবির করছে, যা দেশবিধ্বংসী কর্মকাণ্ডের শামিল। এমন কঠিন প্রতিযোগিতাময় পরিবেশে তরুণ প্রজন্মের মধ্যে থাকছে চরম হতাশা। এখান থেকেই মাদকাসক্তি ও আত্মহত্যার মতো মানসিক সমস্যা বেড়েই চলেছে। আবার এসব তরুণকে কোনো কোনো ক্ষেত্রে সমাজের স্বার্থান্বেষী ও দুর্জন ব্যক্তিগণ অপকর্মে ব্যবহার করছে।

সম্প্রতি জাতীয় পত্রিকার একটি খবরে দেখলাম, শিক্ষিত একজন তরুণকে ব্যবহার করা হয়েছে একজন রাজনীতিবিদকে খুন করার জন্যে। বিনিময়ে তার আগের সব মামলা সমাধানের আশ্বাস দেয়া হয়েছে। কর্মসংস্থানের সুযোগ যতো বাড়ানো যাবে এ ধরনের অপরাধে জড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনা ততোই কমবে। তরুণ প্রজন্মের জন্যে বৈদেশিক কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা খুব একটা কঠিন নয়, দরকার কর্তৃপক্ষের প্রজ্ঞা ও শিক্ষিত মানুষের দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন। আমাদের বিশ্বাস, আমাদের দেশের ১৮ কোটি মানুষের মধ্যে খুব কমসংখ্যক মানুষই দেশটির নাম জানেন। দেশটি ওসেনিয়ার অন্তর্গত একটি দেশ। নাম তার ‘পালাও’। ৪৬৬ বর্গকিলোমিটার আয়তনের দেশটিতে ২২ হাজার লোকের বসবাস। যার মধ্যে ২ হাজার লোকই বাংলাদেশি। ২ হাজার লোকের কর্মসংস্থান সুপারি বাগানের সুপারি তোলা ও বিপণনের সঙ্গে জড়িত। এছাড়া বাঙালিরা সেখানে সমুদ্রে সার্ফিংয়ের মাধ্যমে জীবিকা নির্বাহ করে। দেশটির মাথাপিছু আয় ১৭ হাজার ৪৩৮ মার্কিন ডলার। এমন নাম না জানা দেশে মোট জনসংখ্যার ১০ ভাগই বাঙালি। পৃথিবীতে এমন নাম না জানা বা কম পরিচিত অনেক দেশ আছে, যেখানে আইনশৃঙ্খলা, পরিস্থিতি, বসবাসের পরিবেশ আকর্ষণীয়। এসব দেশে বেঁচে থাকার মতো কর্মসংস্থান তৈরি করার উদ্যোগ, চেষ্টা ও প্রজ্ঞার সমন্বয় ঘটানো যেতে পারে। তাহলেই বহুলাংশে দূর হবে বেকার সমস্যা।

ইতিহাস পর্যালোচনা করলে দেখা যায়, পৃথিবীর ধনী দেশগুলোর সবাই দেশের গণ্ডি পেরিয়ে ভিনদেশে নিজেদের রাজনৈতিক অর্থনৈতিক ও সাংস্কৃতিক উপনিবেশ তৈরি করেছিলো। উপনিবেশগুলো থেকে আহরিত অর্থ জ্ঞান বিজ্ঞানচর্চা ও শিল্পোৎপাদন ব্যবহার করে তারা উন্নত ও ধন সম্পদে সমৃদ্ধ হয়েছে। একবিংশ শতাব্দীর প্রথমে এসে একটি বিষয় লক্ষণীয় তা হলো ইউরোপ এবং আমেরিকার উন্নত দেশগুলো প্রাকৃতিক সম্পদ লুণ্ঠনে আফ্রিকার দেশগুলোর ওপর নির্ভরশীল। ইউরোপ ও আমেরিকার প্রাকৃতিক ও খনিজ সম্পদের চাহিদার বিরাট অংশ আসে আফ্রিকা মহাদেশ থেকে। আফ্রিকানদেরকে মদ ও মাদকে আসক্ত রেখে গোত্রে গোত্রে যুদ্ধ, বিগ্রহে ব্যস্ত রেখে ইউরোপিয়ানরা নির্বিঘ্নে প্রাকৃতিক সম্পদ লুটে নিচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে। করোনা মহামারি একটি বিষয় আমাদের শিখিয়েছে তা হলো শুধু টাকা থাকলেই চলবে না। জনগোষ্ঠীর জীবন ধারণের মৌলিক প্রাকৃতিক রসদ দেশের মধ্যেই থাকতে হবে। করোনার সময় সিঙ্গাপুরে খাদ্যের ঘাটতি দেখা দেয়। কারণ শিল্প ও ব্যবসায় উন্নত হলেও সিঙ্গাপুর তার মোট চাহিদার ১০ ভাগ খাদ্য নিজেরা উৎপাদন করে। বাকি অংশের জন্যে তারা বিদেশের ওপর নির্ভরশীল। করোনায় সাপ্লাই চেইন ব্যাহত হওয়ায় সেখানে খাদ্যাভাব হয়েছিলো। ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধে সারা পৃথিবীতে তেল, গ্যাস খাদ্যদ্রব্যের মূল্য অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে। এই যুদ্ধে ইউরোপের প্রাকৃতিক সম্পদের দেউলিয়াত্ব বিশ্ববাসীর কাছে ফুটে উঠেছে। তাই ইউরোপকে শুধু কর্মসংস্থানের ক্ষেত্র হিসেবে ধরলে আমাদের জন্যে বোকামি হবে।

আফ্রিকার মহাদেশের কথা শুনলেই অন্ধকারাচ্ছন্ন একটি মহাদেশের কথা মনে পড়ে। কিন্তু ইউটিউবে World in Bengali, Top 10 Bangla -লিংক ব্যবহার করে যদি আফ্রিাকার দেশগুলোকে পৃথক পৃথকভাবে বিশ্লেষণী দৃষ্টিতে দেখি, তাহলে আমাদের আজন্মকাল লালিত ধারণার আমূল পরিবর্তন ঘটবে-আফ্রিকার শহরগুলোর অবকাঠামোগত সৌন্দর্য আমাদেরকে আধুনিক ইউরোপের কথা মনে করিয়ে দেবে। ২০২১ সালের গ্লোবাল পিস ইনডেক্স (জিপিআই) সূচক অনুযায়ী আফ্রিকার ১০টি দেশ যথাক্রমে মরিশাস, বতসোয়ানা, ঘানা, জাম্বিয়া, সিয়েরালিওন, সেনেগাল, তানজানিয়া, নামিবিয়া, লাইবেরিয়া ও মালাউইয়ের শান্তির সূচক যথাক্রমে ২৮, ৪১, ৩৮, ৭১, ৪৬, ৫৪, ৫৮, ৬৫, ৭৬ ও ৫৯। এখানে উল্লেখ্য, ২০২১ সালে একই তালিকায় বাংলাদেশের অবস্থান ৯৩তম। আফ্রিকার ধনী দেশের মধ্যে রয়েছে সিশেলস, মরিশাস, ইকুয়েটরিয়াল গিনি, গ্যাবন, বতসোয়ানা, দক্ষিণ আফ্রিকা, নামিবিয়া, আলজেরিয়া, তিউনিসিয়া, মিশর। এর মধ্যে দক্ষিণ আফ্রিকা ছাড়া অন্য ৯টি দেশেই জীবন ও জীবিকা অত্যন্ত নিরাপদ। গ্লোবাল ইকোনমি ফোরামের তথ্য মতে, ২০৫০ সালের মধ্যে আফ্রিকার মোট জিডিপি হবে ২৯ ট্রিলিয়ন ডলার। সুতরাং সেসব দেশে জনশক্তি রপ্তানির সিদ্ধান্ত নেওয়ার উপযুক্ত সময় এখনই।

২০২১ সালে গ্লোবাল পিস ইনডেক্স (জিপিআই) র‌্যাংকিংয়ে দক্ষিণ আমেরিকার দেশগুলোর মধ্যে প্রথম থেকে পঞ্চম অবস্থানে রয়েছে যথাক্রমে উরুগুয়ে, চিলি, আর্জেটিনা, প্যারাগুয়ে ও পেরু। এখানে উল্লেখ্য উরুগুয়ের জিপিআই সূচক যুক্তরাষ্ট্রের চেয়েও বেশি। আয়তনে বাংলাদেশের চেয়ে বড় দক্ষিণ আমেরিকার একটি দেশ গায়ানা। যা বিট্রিশ কলোনি ছিল এবং এখানকার মাতৃভাষা ইংরেজি। এর জনসংখ্যা প্রায় ৭ লাখ এবং সাম্প্রতিক কালে তেল উত্তোলিত হচ্ছে। তেলনির্ভর এই দেশটি বাংলাদেশিদের কর্মক্ষেত্র হতে পারে। এর পাশেই রয়েছে সুরিনাম নামে আরো একটি বাংলাদেশের সমআয়তনের দেশ, যা হল্যান্ড শাসিত ছিল। লোকসংখ্যা ৫ লাখ ৭৫ হাজার। এ দেশটিও শিক্ষিত বাংলাদেশিদের কর্মসংস্থানের নতুন গন্তব্য হতে পারে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার বক্তৃতায় বলেছিলেন, ‘অর্থনৈতিক কূটনীতিতে গুরুত্ব দিতে হবে।’ তিনি বলেন, ‘আজকের বিশ্বে কূটনৈতিক মিশনগুলোর দায়িত্ব পরিবর্তিত হয়েছে। এখন রাজনীতির পাশাপাশি অর্থনৈতিক কূটনীতি অবলম্বন করতে হবে, যাতে আমরা দেশের ব্যবসায়-বাণিজ্য জোরদার করতে পারি ও বিশ্বের সবার সঙ্গে একত্র হয়ে অর্থনৈতিক স্বনির্ভরতা অর্জন করতে পারি।’ আমরা মনে করি, সচেতন মানুষ যাদের কর্মকাণ্ড দেশের সার্বিক পরিবর্তনে অবদান রাখতে পারে তাদের স্লোগান হওয়া উচিত-‘দূরদর্শী পরিকল্পনা করি, সুখী সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ি।’

ড. মোঃ নাছিম আখতার : উপাচার্য, চাঁদপুর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়