সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১, ২ কার্তিক ১৪২৮, ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩  |   ২৭ °সে
আজকের পত্রিকা জাতীয়আন্তর্জাতিকরাজনীতিখেলাধুলাবিনোদনঅর্থনীতি শিক্ষা স্বাস্থ্য সারাদেশ ফিচার সম্পাদকীয়
ব্রেকিং নিউজ
  •   হাজীগঞ্জের পৃথক দুটি তদন্ত চলছে : পরিস্থিতি স্বাভাবিক : ১৪৪ ধারা প্রত্যাহার

প্রকাশ : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:৩২

ফরিদগঞ্জে টিকা গ্রহীতাদের উপচে পড়া ভিড় : উপেক্ষিত স্বাস্থ্যবিধি

শামীম হাসান
ফরিদগঞ্জে টিকা গ্রহীতাদের উপচে পড়া ভিড় : উপেক্ষিত স্বাস্থ্যবিধি

ফরিদগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কম্পেক্সে করোনা টিকা নিতে আসা মানুষদের উপছে পড়া ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। এতে উপেক্ষিত হচ্ছে স্বাস্থবিধি। দীর্ঘক্ষণ লাইনে দাঁড়িয়েও টিকা না পাওয়ার জন্য হাসপাতালের অব্যবস্থাপনাকে দায়ী করছেন টিকা নিতে আসা ব্যক্তিগণ।

করোনাভাইরাস প্রতিরোধী টিকা নিতে আসা সাধারণ মানুষের তুলনায় টিকা প্রদানের বুথ কম থাকায় বেগ পেতে হয়েছে সাধারণ মানুষদের। মাত্র ৩টি বুথে টিকা প্রদান করায় উপেক্ষিত হচ্ছে স্বাস্থ্যবিধি। এতে ঘন্টার পর ঘন্টা দাঁড়িয়ে থেকে জনসমাগমের মধ্যেই কোভিড-১৯ টিকা নিতে হচ্ছে।

২৪ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় সরেজমিন হাসপাতালে গিয়ে দেখা যায় ফরিদগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নিচ তলায় উপচে পড়া ভিড়। হাসপাতালের তিন কর্মকর্তা মেসেজ আসা ব্যাক্তিদের টিকার কার্ড সুরক্ষা আ্যাপে যাচাই করে টিকা গ্রহণের জন্য চুড়ান্ত অনুমতি দিচ্ছেন যা চলছে একেবারে কোলাহলপূর্ণ পরিবেশে। এমন ভিড়ের মধ্যে কিছুক্ষণ পরপর টিকা গ্রহীতাদের সাথে ওই কর্মকর্তাদের বাক-বিতন্ডায় জড়াতেও দেখা গেছে।

হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, গণটিকা কার্যক্রম শুরু হওয়ার পর থেকে প্রায় প্রতিদিনই এমন পরিস্থিতি সৃষ্টি হচ্ছে। সকাল ৮টা থেকে টিকা নিতে আসা মানুষের ভিড় ক্রমান্বয়ে বাড়তে থাকে। সকাল ১০টা থেকে টিকা কর্যক্রম শুরু করার কথা থাকলেও চাপ সামলাতে প্রতিদিন সাড়ে ৯টা থেকেই ৩টি বুথে প্রতিদিন গড়ে ৬৯৫ জনকে টিকা দেওয়া হচ্ছে।

টিকা গ্রহীতাদের দাবী, সঠিক ব্যাবস্থাপনা না থাকায় এমন পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। টিকে নিতে আসা আমেনা বেগম নামের এক নারী চাঁদপুর কণ্ঠকে জানান, ছোট পোলাপাইন বাড়িত থুইয়া হেই সকাল ৯টার দিগে আইছি, দুই ঘণ্টার উপরে খাড়াই থাকি এখন মাত্র টিকা দিতাম হাইচ্ছি।

ইকবাল মৃর্ধা নামক আরেক টিকা গ্রহীতা চাঁদপুর কণ্ঠকে বলেন, প্রথম ডোজ দিতে আসার সময় এত সমস্যায় পড়তে হয়নি, কিন্তু দ্বিতীয় ডোজ দিতে এসে এখানে অনেক ভিড় দেখছি। টিকা নিতে দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে থেকে ধাক্কাধাক্কি করে টিকা নিতে হচ্ছে। ব্যবস্থাপনার অভাব বোধ করছি অনেকটা। এখানে সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মানার কোনো প্রবণতা নেই। এ বিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডঃ আশরাফ আহম্মেদ চৌধুরী চাঁদপুর কণ্ঠকে জানান, মানুষকে বারবার বলার পরও তারা কথা মানছেন না। টিকা গ্রহীতাদের ভীড় সামলাতে আমরা থানা পুলিশের সাথে কথা বলেছি, পুলিশ বাহিনীর কয়েকজন সদস্যকে এখানে দেওয়ার জন্য। কিন্তু ফরিদগঞ্জ থানা পুলিশের সদস্য সংখ্যা কম থাকার কারনে তারা তা দিতে পারেনি। ৩টি বুথে টিকা দেওয়া হলেও লাগামহীন ভিড় হলে টিকা প্রদানের জন্য রিজার্ভ আরো একটি বুথ রেখেছি। নির্দিষ্ট সময়ের ৩০ মিনিট আগে থেকে টিকা প্রধান শুরু করে আমাদের অফিস টাইম শেষ হলেও আমরা প্রতিদিনই ম্যাসেজ পাওয়া ব্যাক্তিদের টিকা প্রধান করা শেষ করি৷ টিকা গ্রহীতারা নিয়ম মেনে ধৈর্য ধরে লাইনে দাঁড়ালে স্বাথ্যবিধি মেনেই আমরা সবাইকে টিকা দিতে পারবো।

আবেদন করার পর দীর্ঘ সময় পার হওয়ার পরও ভ্যাক্সিনের জন্য অনেকের ম্যাসেজ না পাওয়ার কারন জানতে চাইলে তিনি বলেন, নির্দেশনা অনুযায়ী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পড়ুয়া শিক্ষার্থী ও বয়স্কদের অগ্রাধিকার থাকায় আমার তাদেরকে আগে ম্যাসেজ পাঠাতে হচ্ছে। তবে যারাই অনলাইনে আবেদন করেছে আমরা ধারাবাহিকভাবে ম্যাসেজ প্রেরণ করবো।

উল্লেখ্য, ফরিদগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কম্পেক্সে চলতি মাসের ২০,২১ ও ২২ তারিখে যথাক্রমে ৭৬০,৬৯০,৬৩৬ জনকে টিকা প্রধান করা হয়েছে একইভাবে এই টিকা প্রদান ধারাবাহীক চলমান রয়েছে। এ পর্যন্ত ১ লক্ষাধিক টিকার রেজিষ্ট্রেশন হলেও তার বিপরীতে ২৬ হাজার ৪শ' ৬১ জন পুরুষ ও ২০ হাজার ৫শ' ৮ জন মহিলাকে করোনার টিকা প্রদান করা হয়েছে।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়