চাঁদপুর, সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৩ রবিউস সানি ১৪৪৩  |   ২২ °সে
আজকের পত্রিকা জাতীয়আন্তর্জাতিকরাজনীতিখেলাধুলাবিনোদনঅর্থনীতি শিক্ষা স্বাস্থ্য সারাদেশ ফিচার সম্পাদকীয়
ব্রেকিং নিউজ
  •   প্রিজাইডিং ও সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার নিজেই ব্যালটে সিল মারতে থাকেন

প্রকাশ : ১৭ অক্টোবর ২০২১, ১৯:১৬

চট্টগ্রাম কমনওয়েলথ যুদ্ধ সমাধিতে স্মরণ

অনলাইন ডেস্ক
চট্টগ্রাম কমনওয়েলথ যুদ্ধ সমাধিতে স্মরণ

১৭ অক্টোবর ২০২১ চট্টগ্রাম যুদ্ধ সমাধিতে ভারতীয় হাই কমিশন, ঢাকার প্রতিনিধিগণ এবং চট্টগ্রামের ভারতীয় সহকারী হাই কমিশনার দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে কমনওয়েলথ দেশগুলোর হয়ে লড়াই করে মৃত্যুবরণকারী ভারতীয় সৈন্যদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছেন।

চট্টগ্রামের গভীর নৌ-বন্দর আরাকানে অপারেশন পরিচালনার জন্য একটি উৎকৃষ্ট ঘাঁটি এবং একটি উল্লেখযোগ্য হাসপাতাল কেন্দ্র ছিল। মূলত হাসপাতালের মৃতদের জন্য তৈরি সমাধিস্থলটি বেশ কয়েকটি বিচ্ছিন্ন স্থান থেকে মৃতদেহ সৎকারের জন্য সম্প্রসারণ করা হয়েছিল এবং এতে ৭৫১টি যুদ্ধসমাধি রয়েছে, যার মধ্যে ১৪ জন নাবিক, ৫৪৫ জন সৈন্য এবং ১৯৪ জন বিমানবাহিনীর সদস্য রয়েছে। এছাড়াও এই যুদ্ধ সমাধিতে ৪টি বিশ্বযুদ্ধের নয় এমন সমাধিও রয়েছে। এখানে যুক্তরাজ্য, কানাডা, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, পূর্ব আফ্রিকা, পশ্চিম আফ্রিকা, বার্মা (মিয়ানমার), নেদারল্যান্ডস, জাপান এবং অবিভক্ত ভারতের সৈন্যদের সমাধি রয়েছে। অবিভক্ত ভারতের ২১৪ জনের সমাধির মধ্যে ১০ জনের বেশি রয়েছেন যারা বর্তমান বাংলাদেশের অধিবাসী।

এই সকল ব্যক্তিরা ১৯৩৯ থেকে ১৯৪৫ পর্যন্ত অক্ষশক্তির বিরুদ্ধে যুদ্ধে তাদের জীবন উৎসর্গ করেছিলেন। সমাধিস্থলের প্রবেশ দ্বারে চট্টগ্রাম স্মৃতিসৌধ রয়েছে যা রয়্যাল ইন্ডিয়ান নেভি এবং মার্চেন্ট নেভির ৬৪৬৯ জন নাবিকদের স্মরণ করে যারা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় সমুদ্রে নিখোঁজ হয়ে গিয়েছিলেন।

ভারত যখন স্বাধীনতার ৭৫ বছর উদযাপন করছে, তখন আমরা শ্রদ্ধার সাথে সেসব সাহসী নারী-পুরুষদের স্মরণ করি যারা আমাদের আগামীর জন্য নিজেদের বর্তমানকে বিসর্জন করেছে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে ভারতীয়দের আত্মত্যাগ মিত্রদেশগুলির বিজয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে ছিল কারণ ভারতীয় সৈন্যরা যুদ্ধের সমস্ত ক্ষেত্রে নিজেদের যোগ্যতার স্বাক্ষর রেখেছিল।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়