শনিবার, ২৯ জানুয়ারি ২০২২, ১৪ মাঘ ১৪২৮  |   ২১ °সে
আজকের পত্রিকা জাতীয়আন্তর্জাতিকরাজনীতিখেলাধুলাবিনোদনঅর্থনীতি শিক্ষা স্বাস্থ্য সারাদেশ ফিচার সম্পাদকীয়
ব্রেকিং নিউজ
  •   বালুবাহী ট্রাক চাপায় গাড়ির হেলপার নিহত
  •   চাঁদপুর শহরে যুবকের আত্মহত্যা
  •   ফরিদগঞ্জে ৪ কেজি গাঁজাসহ দুই যুবক আটক
  •   করোনায় মৃত্যু ২০, শনাক্ত ১৫৪৪০ জন
  •   ফরিদগঞ্জে আগুনে পুড়ে বৃদ্ধার মৃত্যু

প্রকাশ : ২৭ নভেম্বর ২০২১, ০৮:৪৮

চাঁদপুরের কচুয়া থেকে ১৭টি বিষধর সাপ উদ্ধার

আতঙ্কে এলাকাবাসী!

অনলাইন ডেস্ক
চাঁদপুরের কচুয়া থেকে ১৭টি বিষধর সাপ উদ্ধার

কচুয়ার তেতুয়া ইউনিয়নে ৬নং ওয়ার্ডের খিড্ডা গ্রাম থেকে ১৭টি বিষধর সাপ উদ্ধার করেছে সাপুড়েসহ স্থানীয়রা। সাপগুলোর মধ্যে গোখড়াসহ বিভিন্ন প্রজাজিতর বিষধর সাপ রয়েছে। ২৫ নভেম্বর বৃহস্পতিবার সাপগুলো উদ্ধার করে এক সাপুড়েসহ স্থানীয়রা। ২৭ নভেম্বর শনিবার বিষয়টি নিশ্চিত করেন হাজী বাড়ির গৃহকর্তী অবসরপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তার স্ত্রী রাজিয়া সুলতানা রাজু।

তিনি জানান, আমাদের এলাকার দুটি বাড়ি থেকে জীবন্ত অবস্থায় বড় আকারের ৪টি ও ছোট ৭টি বিষধর সাপ উদ্ধার করা হয়েছে। এদিনে আরও ৬টি বিষধর সাপ আমাদের হাজী বাড়ির বাসিন্দারা পিটিয়ে মেরে ফেলেছে। তিনি আরও জানান, আমার স্বামী মৃত: মেজর এম এফ রহমানের এই বাড়ীটি অনেক পুরানো। বেশ কিছুদিন যাবৎ বাড়ীতে সাপ দেখে আমি আতঙ্কিত হচ্ছিলাম। পরে এক সাপুড়েকে ডেকে এনে বাড়ীর বিভিন্ন স্থান থেকে সাপগুলো উদ্ধারের ব্যবস্থা করি। সাপুড়ে বলেছনে বাড়ীতে এখনো বড় ২/৩ টি সাপ রয়েছে তাই আতঙ্কে আছি।

এ বিষয়ে সাপুড়ে মোঃ সাহাবুদ্দিন বলেন, খিড্ডা গ্রাম থেকে ছোট বড় মিলিয়ে প্রায় ১৭টি বিষধর সাপ উদ্ধার করেছি। আমরা মোট ৬ জনের সাপুড়ের টিম এই সাপ ধরার অভিযানটি পরিচালনা করেছি। একটি বড় বিষধর গোখরো সাপ তার বিষ আমার চোখে ছুঁড়ে দিয়ে পালিয়ে যায়। আমি এতে অসুস্থ হয়ে পড়লে আমার সাথীরা আমাকে কচুয়া হাসপাতালে ভর্তি করে। আমি এখনো চিকিৎসাধীন রয়েছি। তিনি আরও বলেন, সেনাকর্মকর্তার বাড়ীর বড় সাপগুলোর মধ্যে ২টি স্ত্রী সাপ ধরা পড়লেও আমরা পুরুষ সাপ ধরতে পারিনি। কারন সেদিন পুরুষ সাপ ২টি বাড়িতে নেই। সেগুলো আহারের জন্য হয়তো ওইদিন বাহিরে গেছে। দ্রুতই আমরা সেগুলো উদ্ধারে পুনরায় অভিযান দিবো।

এদিকে বিষধর পুরুষ সাপ বাড়ীতে রয়েছে এটি শুনার পর থেকে আতঙ্কে বাড়ীতে থাকছেন না অবসরপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তার স্ত্রী রাজিয়া সুলতানা রাজু। স্থানীয়রা এই সাপ আতঙ্ক দূর করতে দ্রুত প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করেছেন।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়